চীনের প্রত্যর্পণ বিলের প্রতিবাদে নতুন ‘আমব্রেলা মুভমেন্ট’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
প্রত্যর্পণ বিলের প্রতিবাদে হংকংয়ের রাস্তায় হাজারো মানুষ

প্রত্যর্পণ বিলের প্রতিবাদে হংকংয়ের রাস্তায় হাজারো মানুষ

  • Font increase
  • Font Decrease

চীনের প্রস্তাবিত প্রত্যর্পণ বিলের বিরুদ্ধে হংকংয়ের রাস্তায় সমবেত হয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন হাজারো বিক্ষোভকারী। ধারণা করা হচ্ছে, ২০১৪ সালের আমব্রেলা মুভমেন্টের চেয়েও বড় আকার ধারণ করতে পারে এই আন্দোলন।

ছাত্র-শিক্ষক, ব্যবসায়ী, আইনজীবীসহ সর্বস্তরের মানুষ আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানায়, হংকংয়ের নেতা ক্যারি লাম জুলাই মাসেরর আগে প্রত্যর্পণ বিলটি পাশ করার জন্য সরকারকে চাপ দেন। তার সমর্থকরা বলছেন, বিলটিতে রাজনৈতিক কিংবা ধর্মীয় নিপীড়ন প্রতিরোধের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে।

অন্যদিকে বিক্ষোভকারীরা বলছেন, এটাই হংকংয়ের শেষ খেলা। এটি জীবন-মৃত্যুর শামিল। এটি একটি মন্দ আইন।

বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থী ইভান ওং বলেন, গণতন্ত্রের কণ্ঠ আর শোনা যাচ্ছে না। এই বিল আন্তর্জাতিক আমাদের দেশের ভাবমূর্তিকে নষ্ট করবে, পাশাপাশি বিচার ব্যবস্থাকেও প্রভাবিত করবে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/09/1560098468758.jpg
হংকং চীনের বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল হিসেবে বিবেচিত হলেও ২০৪৭ সাল অবধি অঞ্চলটির স্বায়ত্তশাসনের নিশ্চয়তা দিয়েছে চীন। ১৯৯৭ সালে হংকংয়কে চীনের কাছে ফেরত দেওয়া হয়েছিলো। গতবছরের এক ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রস্তাবিত বিলটি তৈরি করা হয়৷

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাইওয়ানে ঘুরতে গিয়ে ২০ বছর বয়সী এক নারী তার প্রেমিকের দ্বারা নিহত হন। গর্ভবতী অবস্থায় তাকে কুপিয়ে হত্যা করে হংকংয়ে পালিয়ে যান ঘাতক। তাইওয়ানের কর্মকর্তারা অভিযুক্ত ব্যক্তিকে কতৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করতে বলেন। হংকং প্রত্যর্পণ চুক্তির কারণে সেটি করতে অস্বীকৃতি জানায়। পরবর্তীতে তাইওয়ান সরকার প্রত্যর্পণ চুক্তির মাধ্যমে না গিয়ে হংকং-কে পৃথকভাবে মামলা পরিচালনা করার জন্য বলে।

সরকার এক বিবতিতে জানায়, তাইওয়ানে সংঘটিত ওই হত্যাকাণ্ড প্রমাণ করে যেকোন সময় যেকোন স্থানে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আইনের ত্রুটিগুলো আমরা দ্রুতই সমাধানের চেষ্টা করছি।