Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

#মোজোএশিয়া২০১৯

যদি মোজো করতে চাও, স্মার্টলি করো

যদি মোজো করতে চাও, স্মার্টলি করো
ছবি. কানালায়উই ওয়ায়েক্লায়হং
কানালায়উই ওয়ায়েক্লায়হং
ব্যাংকক; থাইল্যান্ড থেকে


  • Font increase
  • Font Decrease

মোবাইল জার্নালিজম এখন এক বাস্তবতা। তবে একজন সাংবাদিক হিসেবে এই আলোচনাও হতে পারে, মোবাইল জার্নালিজম কি আমাদের জন্য সুযোগের নতুন দ্বার উন্মোচন করছে? মোবাইল জার্নালিজম কি আমাদের ভবিষ্যত নিউজরুম অথবা আমাদের ক্যারিয়ারের জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠছে?

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563273807946.png

এসব প্রশ্নের মধ্যে প্রথমটির উত্তর আমি পেয়েছি সম্প্রতি ব্যাংককে অনুষ্ঠিত মোবাইল জার্নালিজম কনফারেন্স ২০১৯-এ। যাকে বলা হচ্ছে #মোজোএশিয়া২০১৯।

মোজোএশিয়া২০১৯-এর আয়োজক ছিল কর্নাড এডেনয়ার স্টিফটাং (কেএএস) নামক প্রতিষ্ঠান। সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্যে কেএএস-এর পরিচালক ক্রিস্টোফ গ্রাবিটজ বলেন, এশিয়ার দেশগুলোতে যখন স্বাধীন সাংবাদিকতা রুদ্ধ হয়ে এসেছে, তখন মোবাইল সাংবাদিকতা হতে পারে গণমাধ্যমের স্বাধীনতার একটি বড় উপায়।

এই সম্মেলনে ৩৩টি দেশ থেকে পেশাদার সাংবাদিক, সংবাদ প্রযোজক এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বরা যোগ দেন। এখানে যেমন মোবাইল জার্নালিজমের ওপর কর্মশালা পরিচালিত হয়, তেমনি অনেকেই নিজেদের ধারণা এবং মোবাইল সাংবাদিকতার উদাহরণ উপস্থাপন করেন।

শুধু সাংবাদিক নয় এখন প্রায় সকলের হাতেই রয়েছে স্মার্টফোন। মোবাইল ফোনের ব্যবহার এই ধারণাকেই বদলে দিয়েছে, যে সংবাদ শুধুমাত্র সাংবাদিকের কাছ থেকেই আসতে হবে৷ বরং যে কোনো স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর কাছ থেকেই আসতে পারে৷ আবার একজন সাংবাদিক মোবাইল ব্যবহারের মাধ্যমে দ্রুত এবং ঘটনার আরো কাছে গিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করতে পারেন। তবে এখানে একটি প্রশ্ন আসছে যে, যদি মোবাইল ব্যবহারকারী দিনের ২৪ ঘণ্টাই প্রতিবেদন তৈরি করতে চায় বা বলতে চায়, সেটি পেশাদারিত্ব হবে কিনা?

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563274071108.png
উদ্বোধনী বক্তব্যে কেএএস-এর পরিচালক ক্রিস্টোফ গ্রাবিটজ ◢

 

এই দুদিনের ওয়ার্কশপে কোনো প্রশিক্ষকই, কী পদ্ধতিতে মোবাইল ব্যবহার করে প্রতিবেদন তৈরি করা যায়, সেটি নিয়ে আলোচনা করেননি। তারা শুধুমাত্র বলে গিয়েছেন, মোবাইল তাদের কাজে কী ধরনের সুবিধা তৈরি করছে বা তাদের সম্পাদকীয় নীতিমালায় কিভাবে মোবাইল ব্যবহারের বিষয়গুলো এসেছে।

অন্যদিকে সামাজিক এবং কমিউনিটির উন্নতিতে মোজো বড় ভূমিকা রাখতে পারে। সে বিষয়ে কিছু প্রকল্পের উদাহরণও দেখানো হয়েছে সম্মেলনে।

সম্মেলনের মধ্যে লেবাননের সাংবাদিক এবং সাংবাদিকতার প্রশিক্ষক সারাহ টেইটসের প্রকল্প উপস্থাপনা সত্যি আমার ভালো লেগেছে। সিরিয়া যুদ্ধের সংবাদ সংগ্রহের সময় মোজো কিভাবে তার কাজে সাহায্য করেছে, উপস্থাপন করেন তিনি৷

মোজো সাংবাদিকতার তিন ধারণা

তিনি বলেন, যুদ্ধাবস্থার এলাকাগুলো থেকে সাংবাদিকরা শুধু যুদ্ধের অবস্থা, ক্ষয়ক্ষতি, ধ্বংস এবং শরণার্থী বা ক্ষতিগ্রস্তদের নিয়ে প্রতিবেদন করেন৷ তবে আরেকটি সত্যি হচ্ছে, এই খারাপ দিনগুলো থেকেও তারা একদিন সুখে থাকার স্বপ্ন দেখেন, জীবনে সমৃদ্ধির জন্য চেষ্টা করেন। জীবনকে ছেড়ে দেন না।

সারাহ যুদ্ধকালীন সময়ে তিনটি শরণার্থী ক্যাম্পে মোজো প্রশিক্ষণ প্রদান করেন শরণার্থীদের। এবং তার এই উপস্থাপনায় এটা স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে মোজো শুধুমাত্র সাংবাদিকদের জন্য নয়, বরং সকলের জন্য।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563274315964.png
লেবাননের সাংবাদিক এবং সাংবাদিকতার প্রশিক্ষক সারাহ টেইটস ◢

 

এবার আসি পরের আলোচনায়। মোজো কি আমাদের পরবর্তী নিউজরুম? আসলে আমার মনে হয় না, এই প্রশ্নের উত্তর এখনই পাওয়া যাবে। তবে, ফিলিপাইন, পাকিস্তান, ভারত, বাংলাদেশ এবং থাইল্যান্ডের অনেক সাংবাদিকও এরই মধ্যে বলেছেন, সব দেশেই মোজোর ভিন্নতা রয়েছে এবং বর্তমান সময়ে প্রতিবেদন তৈরিতে মোজো খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

তাই আমার মনে হয়, গণমাধ্যমের, নিউজরুমের খুব ভালোভাবে জানা প্রয়োজন কেন আমরা নিউজরুমে মোজোর ওপর গুরুত্ব দেব? উত্তর হচ্ছে, খরচ বাঁচানো, সবার প্রথমে সংবাদ পরিবেশন এবং স্থানীয়দের সংবাদ তৈরিতে উৎসাহ প্রদান করতে।

যাই হোক, যদিও মোজো সবার জন্য, প্রযুক্তির এই দুনিয়ায় যখন তথ্যের স্রোত বইছে, সেসময় মোজো কিন্তু ভুল সংবাদের উৎসও হয়ে উঠতে পারে। যা ঘৃণা ছড়াতে, ভুল তথ্য ছড়াতে বা বিভ্রান্ত করতে সহায়ক হতে পারে৷ তাই যখন মোজো করা হবে, সেখানে তথ্যের উৎস এবং সত্যতা সম্পর্কে আরো বেশি নিশ্চিত হতে হবে। এর মানে নিউজরুম, স্থানীয় গণমাধ্যম এমনকি নাগরিক সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে মোজোতে আনতে হবে পেশাদারিত্ব।

সম্মেলনের একজন আলোচক বলেছিলেন, যদি তুমি মোজোকে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে চাও, এটাকে নির্ভুল করো প্রথমে। সম্মেলনের এই বক্তব্যের সঙ্গে আমি সম্পূর্ণ একমত। শুধু আপনার হাতে ফোন আছে বলেই আপনি দায়িত্বহীনভাবে যা ইচ্ছে বলে যাবেন, সেটা দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা নয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563274529956.png

আপনার মতামত লিখুন :

জি-সেভেন সম্মেলনে বিশ্বের শীর্ষ নেতারা

জি-সেভেন সম্মেলনে বিশ্বের শীর্ষ নেতারা
৪৫তম জি সেভেন সম্মেলন

ফ্রান্সের বিয়ারিৎস শহরে শনিবার (১৪ আগস্ট) শুরু হয়েছে শিল্পোন্নত দেশগুলোর সংগঠন জি সেভেন-এর ৪৫তম সম্মেলন।

রোববার (২৫ আগস্ট) আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানায়, তিন দিনের এ আয়োজনে অংশ নিচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, জার্মানি, ইতালি, জাপান ও ফ্রান্সের নেতারা।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, এবারের সম্মেলনে বিশ্ব নেতাদের আলোচনার বিষয় হবে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যকার বাণিজ্য যুদ্ধ, ইউরোপের ব্রেক্সিট চুক্তি, তেহরানের নিউক্লিয়ার প্রোগ্রাম এবং সাম্প্রতিক সময়ে আমাজনে আগ্নিকাণ্ড।

এই সম্মেলন সংহতি এবং ঐক্যের ব্যতিক্রমধর্মী পরীক্ষা যেখানে বিশ্বের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু ও জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কথা হবে বলেন জানান ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক।

এদিকে রোববার ট্রাম্প তার অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে এক টুইট বার্তায় বলেন, আমি ফ্রান্সে আসার আগে ভুয়া খবরে বলা হচ্ছিল জি-সেভেনের দেশগুলোর মধ্যকার অবস্থা উদ্বেগজনক। এমনকি এই দুই দিনের সাক্ষাৎকার গুলো যাচ্ছেতাই হতে যাচ্ছে।'

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/25/1566728551956.PNG

যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও ট্রাম্পের নিজের একটি হাস্যউজ্জ্বল ছবি পোস্ট করে তিনি বলেন, 'আমরা খুব ভালো একটি বৈঠক শেষ করেছি।'  

একইসঙ্গে আজ রোববার ফ্রান্সের হেনডায় শহরে কয়েক'শ জি-সেভেন বিরোধী বিক্ষোভকারী একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। সেখানে পুলিশ বিক্ষোভ মিছিলে টিয়ার গ্যাস ছুঁড়ে প্রতিহত করে। পরিবেশবাদী সংঘটন থেকে এ মিছিল বের করা হয় বলে ফ্রান্সের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানায়। 

অরুণ জেটলি: ভারতীয় রাজনীতির মেধাবী পুরুষ

অরুণ জেটলি: ভারতীয় রাজনীতির মেধাবী পুরুষ
অরুণ জেটলি

দক্ষিণ এশিয়ার সমকালীন রাজনীতি, বিশেষ করে ভারতের খোঁজ-খবর যারা রাখেন, তাদের কাছে বেশ কিছু নেতার মুখ খুবই চেনা। নিজের দেশের গণ্ডি পেরিয়ে উপমহাদেশ জুড়ে পরিচিতি পাওয়া তেমন রাজনীতিবিদদের অন্যতম একজন ছিলেন অরুণ (মহারাজ কৃষাণ) জেটলি।   

তুখোড় ছাত্রনেতা থেকে তীক্ষ্ণতা সম্পন্ন আইনজীবীর পরিচয় ছাপিয়ে অরুণ জেটলি ভারতের জাতীয় রাজনীতিতে রেখেছেন স্থায়ী স্বাক্ষর। প্রায়-নিঃস্ব অবস্থা থেকে কেন্দ্রীয় রাজনীতির শীর্ষে আরোহণের পথে জনমত ও মিডিয়া অ্যাক্টিভিজমের ক্ষেত্রে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) যে কয়জন নেতা মুখ্য ভূমিকা পালন করেছেন, তাদের মধ্যে বাজপেয়ী ও আদভানীর পর পরই নাম আসে অরুণ জেটলি ও সুষমা স্বরাজের।

গত ৬ আগস্ট সুষমা স্বরাজের মৃত্যুর ১৮ দিনের মাথায় ২৪ আগস্ট ৬৬ বছর বয়সে চিরবিদায় নিলেন অরুণ জেটলি। অবশ্য ৯ আগস্ট তিনি অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখান থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরা হয় নি তার। কয়েক দিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর ২৪ আগস্ট দ্বিপ্রহরে তার জীবনাবসান হয়।  

ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি শিবিরে এই মৃত্যুজনিত বেদনা গভীর ক্ষত ছড়িয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী শোক জানিয়ে বলেছেন যে, তিনি 'বিশ্বস্ত বন্ধু' হারিয়েছেন। বিজেপি'র পক্ষ থেকে অরুণ জেটলির মৃত্যুকে বর্ণনা করা হয়েছে 'মধ্যাহ্নে সূর্যাস্ত' শিরোনামে।

অরুণ জেটলি ছিলেন দলের অন্যতম মুখপাত্র। মিডিয়া ও বিতর্কে দলের নীতি ও আদর্শ তুলে ধরতে লাগাতার সফলতা দেখিয়েছেন তিনি। বিগত বছরগুলোতে তার যুক্তি ও বাচনভঙ্গি প্রায়-অখ্যাত বিজেপি নামক দলটির প্রতি মানুষের মনোযোগ ও আগ্রহ বাড়িয়েছে। নিজের দল ও রাজনীতি সম্পর্কে একটি ইতিবাচক মনোভাব ও আস্থাজনক বার্তা পৌঁছে দিতে অরুণ জেটলি ছিলেন সফল ও পারঙ্গম।            

অরুণ জেটলিকে বলা হতো 'ট্রাবলশুটার’, ‘ক্রাইসিস ম্যানেজার’ এবং 'কিং মেকার'। মাঠের রাজনীতির চেয়ে কৌশল ও পরিকল্পনার ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন উজ্জ্বলতর৷ ফলে তিনি নিজে নির্বাচনে লড়েছেন হাতে গোনা কয়েকটি। এমনকি, ২০১৪ সালে প্রবল মোদী হাওয়াতেও অমৃতসর কেন্দ্র থেকে লোকসভা ভোটে লড়ে কংগ্রেস প্রার্থী অমর সিং-এর কাছে পরাজিত হন তিনি। তবে তাকে গুজরাত থেকে রাজ্যসভায় নির্বাচিত করে আনা হয় দলের পক্ষ থেকে। সর্বাবস্থায় তিনি বিজেপির অপরিহার্য নেতা ও  মোদীর ঘনিষ্ঠ বৃত্তে থেকে গিয়েছেন বরাবর।

ইন্দিরা গান্ধীর জরুরি অবস্থার সময় জেলখানায় রাজনীতির হাতে খড়ি হওয়া তরুণ আইনজীবী অরুণ জেটলি জেল খেটেছেন ১৯ মাস। আর সেই ১৯ মাসেই এমন এমন রাজনৈতিক গুরুদের সংস্পর্শে আসেন তিনি, যে তার জীবনদর্শনই বদলে যায়। সে তালিকায় ছিলেন জয়প্রকাশ নারায়ণ, অটলবিহারী বাজপেয়ী, লালকৃষ্ণ আডবাণী, নানাজি দেশমুখের মতো প্রবাদ প্রতিম নেতারা। 

জেল থেকে মুক্তি পাওয়ার পর এবিভিপি (অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ)-এর সর্বভারতীয় সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয় তাকে। এর পর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ওকালতির সঙ্গে সমান্তরাল ভাবে রাজনীতিকেও কেরিয়ার হিসাবে বেছে নেন তিনি।

রাজনীতিকে কেরিয়ার হিসাবে বেছে নিলেও, নির্বাচনে লড়ার ক্ষেত্রে অবশ্য ততটা সাফল্য পাননি অরুণ জেটলি। অরুণ জেটলি নিজে অবশ্য শেষ বার ভোটে জিতেছিলেন ১৯৭৪ সালে দিল্লির ছাত্র সংসদের নির্বাচনে। তার পর থেকে তিনি চলে গিয়েছিলেন মঞ্চের পিছনে।

পরের চার দশক ধরে তিনি ‘ব্যাকরুম স্ট্র্যাটেজিস্ট’। বহু নির্বাচনেই দলের হয়ে রণকৌশল এবং প্রচার কৌশল তৈরির কারিগর ছিলেন তিনি। কিন্তু, নিজে ভোটে লড়েননি, অন্যদের লড়িয়ে জিতিয়ে এনেছিলেন।

লোকসভা নির্বাচনে (২০১৪ সালে) দেশ জুড়ে প্রবল মোদি ঝড়েও কিন্তু অরুণ জেটলি পপুলার ভোটে জিততে পারেন নি। পাঞ্জাবের অমৃতসর থেকে ভোটে লড়ে পরাজিত হন তিনি। তাতে অবশ্য মোদি বা দলের কাছে তার গুরুত্ব কমেনি। প্রথম মোদি সরকারের অর্থ মন্ত্রক তো বটেই প্রতিরক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও ছিল অরুণ জেটলির কাঁধে। কিন্তু, শরীরে বাসা বেঁধেছিল মারণ রোগ। একটু একটু করে সক্রিয় রাজনীতি থেকে সরেও আসতে থাকেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ২০১৯ সালের ভোটে আর দাঁড়াননি তিনি।

তারপরেও তাকে মন্ত্রিত্ব দেওয়ার কথা উঠলে তিনি তা সবিনয়ে প্রত্যাখ্যান করেন শারীরিক কারণ দেখিয়ে। ২৮ ডিসেম্বর ১৯৫২ সালে দিল্লিতে আইনজীবী পিতা মহারাজ কৃষাণ জেটলি ও মাতা রতন প্রভা জেটলির ঘরে  জন্ম গ্রহণকারী এই নেতা রাজধানীর সরব রাজনীতি থেকে দূরেই থেকেছেন শেষ দিনগুলো। স্মৃতিচারণ করেছেন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তাল ঘটনাক্রম আর সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের।

স্ত্রী সঙ্গীতা, যার পিতা ছিলেন জম্মু ও কাশ্মীরের অর্থমন্ত্রী গিরিদরী লাল দুর্গা এবং দুই আইনজীবী সন্তান, পুত্র রোহন ও কন্যা সোনালি ছাড়াও পুরো দিল্লিতে ছড়িয়ে ছিল তার অসংখ্য আত্মীয়, পরিজন ও গুণগ্রাহী। তথাপি তিনি শেষ জীবনের অসুস্থতার কারণে রাজনীতি ও সামাজিক ভিড় এড়িয়ে নিভৃতচারীর মতো জীবনযাপন করেন।          

দিল্লির অভিজাত আবাসিক এলাকা গ্রেটার কৈলাশের বাড়ির নির্জনে অরুণ জেটলির জীবনাবসানে কেবল বিজেপি নয়, ভারতীয় রাজনীতি এক মেধাবী পুরুষকে হারিয়েছে। দক্ষিণ এশিয়া হারিয়েছে একজন উচ্চাঙ্গের রাজনৈতিক নেতা ও সুশিক্ষিত-সুদক্ষ ব্যক্তিত্বকে। 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র