ব্রেক্সিট ইস্যু: বিক্ষোভকারীদের তোপের মুখে প্রশাসন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের পার্লামেন্ট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তকে 'অগণতান্ত্রিক' ব্যাখ্যা দিয়ে পার্লামেন্ট ভবনের সামনে হাজারো বিক্ষোভকারী জড়ো হয়েছেন। ব্রেক্সিট চুক্তিকে বাস্তবায়নের লক্ষে এমন স্বৈরতান্ত্রিক সিদ্ধান্তের ফলে নিন্দার মুখে পড়েছেন যুক্তরাজ্যের নবনিযুক্ত এ প্রধানমন্ত্রী। এমনকি এ বিক্ষোভ সরকার পতনের ইঙ্গিত দিচ্ছে বলেও জানান রাজনীতিবিদরা।

বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানায়, টানা পাঁচ সপ্তাহ পার্লামেন্ট ভবন বন্ধ রাখার ঘোষণায় যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট ভবনের সামনে হাজারো বিক্ষোভকারী এমন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছেন।

বিক্ষোভকারীরা বলছেন, এটি গণতন্ত্রের জন্য বিপদজনক একটি সিদ্ধান্ত। পার্লামেন্ট বন্ধ ঘোষণার মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কণ্ঠকে রুদ্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে বরিস জনসন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছে পার্লামেন্ট পাঁচ সপ্তাহের জন্য মুলতবি রাখার আবেদন করেন। বুধবার (২৮ আগস্ট) রানি সেই আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত পার্লামেন্টে মুলতবি রাখার অনুমতি দেন।

রানির এমন অনুমতিতে বিক্ষুব্ধ হন বিরোধী দলীয় নেতারা। তারা ব্রেক্সিট চুক্তিকে বাস্তবায়নের লক্ষে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের এমন পরিকল্পনা বলে জানান। একইসঙ্গে বরিস জনসনের এমন পদক্ষেপকে 'সাংবিধানিক জুলুম' বলে আখ্যা দেন। এরই ধারাবাহিকতায় যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট ভবনের সামনে বিক্ষোভকারীরা সমবেত হয়েছেন।

আরও পড়ুন, ব্রেক্সিট ইস্যু: যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট মুলতবি ঘোষণা 

আপনার মতামত লিখুন :