ডোরিয়ানে আক্রান্ত কুকুরদের বাড়িতে আশ্রয় দিলেন এক নারী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ছবি: সংগৃৃহীত

ছবি: সংগৃৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ানের তাণ্ডবে লন্ডভন্ড আটলান্টিক মহাসাগরের দ্বীপপুঞ্জ বাহামা। এখন পর্যন্ত ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। বিধ্বস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি রাস্তাঘাট ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বাহামার অ্যাবাকো দ্বীপের এলবো কে অঞ্চলের অনেক মানুষ হয়েছেন আশ্রয়হীন। বিপাকে পড়েছে গবাদি পশুসহ অন্যান্য প্রাণিরা।

ডোরিয়ানে আক্রান্ত বিপদগ্রস্ত কুকুরদের দিকে হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন চেল্লা ফিলিপস  নামে এক বাহামার নারী। আক্রান্ত ৯৭টি কুকুরকে নিজের বাড়িতে আশ্রয় দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশংসিত হয়েছেন এই নারী। চেল্লা ফিলিপস ‘দ্যা ভয়েসলেস ডগ’- নামে একটি সংস্থায় ম্যানেজার হিসেবে রয়েছেন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডোরিয়ানের কবল থেকে উদ্ধারকৃত কুকুরগুলোর একটি ছবি তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেন ফিলিপস। ছবিতে দেখা যায়, ফিলিপসের পুরো বাড়ি কুকুরে ভরপুর। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক অ্যানিমেল ওয়েলফেয়ার সংস্থাটি দ্বীপ অঞ্চলের বেওয়রিশ কুকুর নিয়ে কাজ করে।   

ফিলিপস লিখেন, শনিবার রাতে ৯৭টি কুকুরকে আমার বাড়িতে আশ্রয় দিয়েছি। এরমধ্যে ৭৯টি কুকর আমার বেডরুমে স্থান নিয়েছে। তবে তারা কোন হইচই করছে না, আমার বেডরুমকে যথেষ্ট শ্রদ্ধা দেখাচ্ছে। আমি তাদের খেলার জন্য বেড়রুমে মিউজিক ছেড়ে দিয়েছি।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) বলছে, ক্যাটাগরি-৫ ঘূর্ণিঝড় ‘ডোরিয়ান’ গত রোববার (১ সেপ্টেম্বর) বাহামাতে আঘাত হানে। ডোরিয়ানের প্রভাবে বন্যা ও প্রচণ্ড ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয় দ্বীপ রাষ্ট্রটির।

রোববার ফিলিপস তার ফেসবুকে পোস্টটি দেওয়ার পর প্রায় ৪৪ হাজার শেয়ার এবং প্রায় ৭ লাখ মানুষ এতে মন্তব্য করেন। অনেকেই কুকুরগুলোর জন্য সাহায্য দিতে চেয়েছেন।

একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী চেল্লা ফিলিপসের উদ্দেশে লিখেছেন, আপানি অনেক দয়ালু। আপনাকে ধন্যবাদ কুকুরগুলোকে সাহায্য করার জন্য। কারণ, প্রাণিরা নিজেরা নিজেদের সাহায্য করতে পারে না।

আরেক ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন, আপনি সত্যিকারের ‘হিরো’। আপনার ও কুকুরগুলোর জন্য অনেক শুভকামনা।

মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর), যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলে চলে যাওয়া ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ান কিছুটা দূর্বল হয়ে পড়েছে। ফ্লোরিডা, জর্জিয়া এবং সাউথ ক্যারোলিনায় ঝড়ের আশঙ্কা রয়েছে। এর মধেই লাখ লাখ মানুষকে এই অঞ্চলগুলো থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।