সেনাদের বাধায় মিয়ানমারে জাতিসংঘ নাগরিক অধিকার চুক্তি বাতিল

খুররম জামান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও তাদের জোটের বিরোধীতার কারণে দেশটির সংসদ আন্তর্জাতিক নাগরিক অধিকার চুক্তিতে (আইসিসিপিআর) যোগদানের প্রস্তাব বাতিল করেছে।

মিয়ানমারের সংসদের নিম্নসভা এ বিল বাতিল করেছে, কারণ এ কক্ষে সেনাবাহিনীর বেশ কিছু এমপি কোটার ভিত্তিতে স্থায়ীভাবে বহাল রয়েছেন। বিশেষত তাদের বিরোধিতায় এ বিলটি বাতিল হয়ে যায়।

মিয়ানমারের জান্তা আমলের সংবিধান অনুযায়ী, সংসদের এক চতুর্থাংশ আসন সেনাবাহিনীর দখলে রয়েছে। বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ও তাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ কারণে সেনাবাহিনীর সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি করতে হচ্ছে এনএলডিকে।

এনএলডির সদস্য এমপি ডাউ তান্দার ২০১৯ সালে ২১ মে অনুমোদনের জন্য এ চুক্তিটি নিম্ন সভায় জমা দিয়েছিলেন।

নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকারের আন্তর্জাতিক চুক্তির (আইসিসিপিআর) এ প্রস্তাবটিতে ভোট দেওয়ার সময় সামরিক সংসদ সদস্য এবং তাদের মিত্ররা মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) বলেছে, এ চুক্তিটি দেশের সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন করতে এবং এর সুরক্ষা বিপন্ন করতে পারে।

তারা এও বলেছে যে অনুমোদনের জন্য আন্তর্জাতিক চুক্তি জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়নি, কারণ কোনও এনএলডি সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের পরিবর্তে নিম্ন কক্ষে এ চুক্তিটি জমা দিয়েছিলেন।

সামরিক এমপিরা বলছেন, ২০০৮ এর সংবিধান রাষ্ট্রপতিকে আন্তর্জাতিক চুক্তি অনুমোদনের প্রস্তাব দেওয়ার ক্ষমতা দিয়েছে সংসদের মারফতে।
সে জন্য এটি আগে রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে নিতে হবে। রাষ্ট্রপতি অনুমোদন দিলে তা সংসদে উঠবে।

এ সম্পর্কে সামরিক এমপি লেফটেন্যান্ট কর্নেল মায়ো হেত উইন বলেন, সংসদ যদি রাষ্ট্রপতির অনুমোদন ছাড়াই এ চুক্তিটি অনুমোদন করে, তবে এটি সরকারের দু’টি সমমানের প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দ্বন্দ্ব তৈরি করতে পারে।

আরেক সামরিক এমপি লেফটেন্যান্ট কর্নেল অং জিন মিন বলেন, এ চুক্তির বিধানগুলো আরও বিশ্লেষণ করা দরকার। কারণ এগুলো অত্যন্ত জটিল এবং এটি অনুমোদিত হলে মিয়ানমারকে অনেক বিধি-বিধান মেনে চলতে হবে।

এনএলডির সদস্য এমপি ডাউ তান্দার বলেন, আইসিসিপিআরে স্বাক্ষর করার মাধ্যমে আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ে মানবাধিকার সুরক্ষিত ও প্রচার করে এমন একটি দেশ হিসেবে স্বীকৃতি অর্জন করব। আইসিসিপিআর স্বাক্ষর করা একটি গণতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠার পক্ষে সমর্থন নিশ্চিত করে এবং দেশকে আন্তর্জাতিক আস্থা ও স্বীকৃতি দেবে।

এনএলডির আরেক বিধায়ক ইউ লুইন কো লাত বলেন, আমি আইসিসিপিআরে স্বাক্ষরকে দৃঢ়ভাবে সমর্থন করি। কারণ এটি রাজনৈতিক অধিকার রক্ষা করবে। একটি আন্তর্জাতিক চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে ব্যক্তি অধিকার রক্ষা করার মাধ্যমে আমরা প্রমাণ করতে পারি যে আমরা আমাদের জনগণের স্বার্থে কাজ করে যাচ্ছি।

বিরোধী ইউনিয়ন সংহতি ও উন্নয়ন দলের সদস্য ইউ মাং মাইন্ত এনএলডি আইন প্রণেতাদের এ চুক্তি স্বাক্ষরের তাৎপর্য পুরোপুরি বোঝাতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য অভিযুক্ত করেন।

তিনি বলেন, আমি নিশ্চিত যে এ কক্ষের বেশির ভাগ সংসদ সদস্য (এমপি) প্রস্তাব জমা দেওয়ার আগে আইসিসিপিআর সম্পর্কে কিছুই জানতেন না।

তিনি উল্লেখ করেন, ১৭২টি দেশ আইসিসিপিআর স্বাক্ষর করলেও সিঙ্গাপুর করেনি।

তিনি জাতিসংঘ এবং পশ্চিমা দেশগুলোকে এ চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য সাবেক প্রেসিডেন্ট ইউ থেইন সেনের সরকারকে চাপ দেওয়ার জন্য অভিযুক্ত করে বলেন, কিন্তু তিনি বিনয়ের সঙ্গে এটি অস্বীকার করেছিলেন।

তিনি আরও বলেন, আইসিসিপিআরে স্বাক্ষর করার সঠিক সময় এটি নয়। কারণ এটি জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিটির (ইউএনএইচআরসি) একটি অঙ্গ। অনেক দিন ধরেই জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক তদন্ত কর্মকর্তা
ইয়াংহি লি মিয়ানমারে আসতে চেয়েও ব্যর্থ হয়েছেন। মিয়ানমারে তাকে প্রবেশ করতে দেবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

আইসিসিপিআর চুক্তি স্বাক্ষর করা হলে ইয়াংহি লির মতো মানবাধিকার প্রতিনিধিদের ভিসা অস্বীকার করা অসম্ভব বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

দেশটির আন্তর্জাতিক সহযোগিতা মন্ত্রী ইউ কিউ থিন সংসদকে চুক্তিটি স্বাক্ষর করার জন্য প্রস্তাবটি রেকর্ডে রাখার আহ্বান করে বলেন, ২০১৯ সালে আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে আইসিসিপিআরের সঙ্গে এ চুক্তিটি স্বাক্ষর করার চেষ্টা করা হয়েছিল, তবে আরও সময় প্রয়োজন।
মন্ত্রণালয় চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে।

তিনি বলেন, চুক্তি স্বাক্ষর করতে বিলম্বের জন্য কমিশনের কোনো প্রভাব নেই, তবে মিয়ানমার অবশেষে এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করলে ভালোই হবে।
আমরা সংসদীয় প্রক্রিয়া সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করতে পারি না, তবে গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে, সব নাগরিকের নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকারকে সমর্থন এবং সুরক্ষার জন্য এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করা ভালো।

মিয়ানমার জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের (এমএনএইচআরসি) চেয়ারম্যান ইউ উইন মরা এ সিদ্ধান্ত সম্পর্কে মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এ চুক্তি স্বাক্ষর করতে দেশটির আরও কয়েক বছর সময় লাগবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মিয়ানমার মাত্র চারটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার চুক্তি স্বাক্ষর করেছে, যার মধ্যে শিশু অধিকারের কনভেনশন (সিআরসি) এবং নারীদের বিরুদ্ধে সব ধরনের বৈষম্য দূরীকরণের কনভেনশন রয়েছে। এছাড়া দেশটি প্রতিবন্ধীদের অধিকার সম্পর্কিত কনভেনশন এবং অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সংস্কৃতি অধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক কনভেনশনকেও অনুমোদন দিয়েছে এবং সশস্ত্র সংঘর্ষে শিশুদের যোগদানের বিষয়ে সিআরসি প্রোটোকলে স্বাক্ষর করেছে।

ইউএনএইচআরসির সার্বজনীন পর্যায়ের পর্যালোচনা পদ্ধতির সমর্থক হওয়ার কারণে মিয়ানমার ২০২০ সালে তৃতীয় জাতীয় প্রতিবেদন জমা দেবে।

আপনার মতামত লিখুন :