নবীর আদর্শই শান্তির উৎস

নবীর আদর্শই শান্তির উৎস, ছবি: সংগৃহীত

ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম

১৪৪০ হিজরি সনের ১২ রবিউল আউয়াল আজ। ৫৭০ খ্রিস্টাব্দের এ দিনে মক্কার কোরাইশ বংশে বাবা আব্দুল্লাহ ও মা আমেনার ঘরে জন্মলাভ করেন হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। ইসলামের সুমহান দ্বীন প্রচার শেষে ৬৩ বছর বয়সে ৬৩২ খ্রিষ্টাব্দে ১১ হিজরির ঠিক এ দিনেই তিনি আল্লাহ প্রদত্ত রিসালাতের সব দায়িত্ব পালন শেষে আল্লাহতায়ালার ডাকে সাড়া দিয়ে মাওলার সান্নিধ্যে গমন করেন।

তাই তারিখ হিসেবে আজ বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও ওফাত দিবস। এ জন্য দিনটি বিশ্বের মুসলমানদের কাছে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিশ্বের মুসলমানেরা প্রতি বছর ১২ রবিউল আউয়াল দিনটি পালন করেন হজরত নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদর্শকে স্মরণে এনে এবং সে আদর্শ ব্যক্তিগত, সমাজ ও জাতীয় জীবনে পালনের অঙ্গীকারের মাধ্যমে।

এখন প্রশ্ন আসে, কী তার আদর্শ? উত্তর, আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে তাকে মানবতার মুক্তির দূত হিসেবে কোরআনে কারিমের বর্ণনা মোতাবেক সমগ্র মানবজাতির জন্য একমাত্র যে আদর্শ জীবনবিধান আল্লাহ দিয়েছেন সেটিই তার জীবনের আদর্শ।

সার কথা হচ্ছে- নবী জীবনের শিক্ষা হচ্ছে, নিজের ইচ্ছা-অনিচ্ছাকে সমূলে বিসর্জন দিয়ে আল্লাহর কাছে সম্পূর্ণ আত্মসমর্পণ করে মানবতার কল্যাণে নিয়োজিত হওয়া। সর্বশক্তিমান আল্লাহতায়ালার নির্দেশিত পথে, সত্য ও ন্যায়ের পথে হাঁটাই ছিল তার জীবনের পরম আদর্শ।

তার শিক্ষা হলো- পৃথিবীর মানুষকে তার ন্যায্য মানবিক অধিকার দিতে হবে, রাজা-বাদশাহ-আমির-ফকির কেউ ছোট, কেউ বড় নয়। কেউ কারো চেয়ে শ্রেষ্ঠ নয়। একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কারো কাছে কোনো অবস্থাতেই মাথা নোয়ানো যাবে না। তিনি প্রচার করেছেন, মানুষের প্রকৃত মর্যাদা আল্লাহর সার্বভৌমত্ব মেনে আল্লাহর নির্দেশিত পথে সারা জীবন চলার মধ্যে। মানুষ ইহকালে যে কাজ করবে, পরকালে আল্লাহর কাছে এ জন্য জবাবদিহি করতে হবে। যারা আল্লাহ, তার প্রেরিত আসমানি কিতাব, নবী-রাসূল এবং আখেরাতে এবং শেষ বিচারের দিনের প্রতি বিশ্বাস রেখে ন্যায় ও কল্যাণের পথে হাঁটবে, তাদের জন্য রয়েছে আল্লাহর পুরস্কার হিসেবে শাশ্বত শান্তিময় স্থান বেহেশত। তারা সেখানে মৃত্যুর পর অনন্তকাল বসবাস করবেন। যারা সত্যের পথে চলবে না, তাদের জন্য রয়েছে চরম শাস্তির চিরন্তন স্থান দোজখ।

এসব বিশ্বাসকে সম্বল করেই নবী করিম (সা.) সারা জীবন পথ চলেছেন। তার প্রতিটি কাজের লক্ষ্য ছিল মানুষের কল্যাণ এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি। তিনি এ পথে শত্রুকে করেছেন মিত্র। আরবের অন্ধকার যুগের মানুষকে টেনে এনেছেন আলোর জগতে। তিনি মানুষের আস্থার মূল্য দিতেন। সেই সূত্রে তার সময়ের আরব দুনিয়ায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন আল-আমিন বা বিশ্বাসী নামে। ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি অসি হাতে যুদ্ধ করেছেন; কিন্তু অন্যায়ভাবে সামান্য আঘাতও দেননি। যুদ্ধবন্দীদের দিয়েছেন অভাবনীয় মানবাধিকার। তিনি ঘোষণা করেছেন, ‘যার হাতে মানুষ নিরাপদ নয়, সে প্রকৃত মুসলমান নয়।’ তিনি আমাদের সর্বাঙ্গীণ আদর্শ। অপরাধীদের ক্ষমা করে দেওয়ার জন্য আমাদের তাগিদ দিয়েছেন। ওয়াদা রক্ষায় ছিলেন শত ভাগ আন্তরিক।

মুসলমানেরা যখন ইসলামের স্বর্ণযুগে তার আদর্শ ও ন্যায়ের পথে ছিলাম দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, তখন সাফল্য আমাদের হাতের মুঠোয় এসেছিল। যখন তার আদর্শ পালনে আমরা গাফেল হয়ে উঠতে শুরু করি, তখন থেকেই মুসলমানের পতনের শুরু। আজ তার আদর্শচ্যুত হয়ে মুসলিম উম্মাহ পতনের চরম পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে। আমরা যদি তার আদর্শে ফিরে যেতে না পারি, তবে এ অধঃপতন থেকে উত্তরণের কোনো সম্ভাবনা নেই।

হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকেকে সমগ্র মানবজাতির আদর্শ হিসেবে আল্লাহ দুনিয়ায় পাঠিয়েছেন। মানবজাতি সে আদর্শ অনুসরণ করলে আজকের দুনিয়ার অশান্তি, অনাচার, দ্বন্দ্ব-সংঘাতের অবসান হতে পারে।

ইসলাম এর আরও খবর

লাখোকণ্ঠে মোনাজাত

বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত শুরু হয়েছে। মোনাজাত পরিচালনা করছেন কাকরাইল মার্কাজের মুরব্বি ও শূরা সদস্য হাফেজ মা...