Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

‘মুক্তিযুদ্ধে আলেমদেরও অবদান রয়েছে’

‘মুক্তিযুদ্ধে আলেমদেরও অবদান রয়েছে’
মহান মুক্তিযুদ্ধে আলেমসমাজের অবদান শীর্ষক আলোচনা সভা, ছবি: বার্তা২৪.কম
ইসলাম ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের শীর্ষ আলেম-উলামা, লেখক-সাংবাদিক ও রাজনৈতিক নেতাদের উপস্থিতিতে ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে আলেমসমাজের অবদান’ শীর্ষক আলোচনা সভা এবং ‘নবীজিকে চিঠি লিখে জিতে নাও পুরস্কার’ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। আওয়ার ইসলাম টোয়েন্টিফোর ডটকম এ আলোচনা সভা ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

শনিবার (২৩ মার্চ) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আওয়ার ইসলাম টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক মুফতি মুহাম্মদ আমিমুল ইহসান।

অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক ড. মাওলানা মুশতাক আহমদ বলেন, নবীজিকে চিঠি লেখা একটি চমৎকার বিষয়। আমাদের মণীষীরাও নবীজিকে চিঠি লিখেছেন। সেসব চিঠির প্রতিটি লাইনে মিশে আছে তাদের হৃদয়ের ব্যাকুলতা। যখন আমরা সেই চিঠি হাতে নেই ভালোবাসায় আমাদের হৃদয় বিগলিত হয়।

মুক্তিযুদ্ধে আলেম সমোজের অবদানের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে আলেমদের অনেক অবদান রয়েছে যা আলোচনা করার জন্য দীর্ঘ সময় দরকার। তিনি দুঃখ করে বলেন, আজ একশ্রেণির বামপন্থি মুক্তিযুদ্ধে আলেম সমাজের অবদানের কথা স্বীকার করতে চায় না। যা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মুক্তাদির চৌধুরী। তিনি বক্তব্যে বলেন, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) মুক্তির জন্য প্রেরিত হয়েছেন। তিনি সকল মানুষের মুক্তির জন্য এসেছেন। তিনি রাহমাতুল্লিল আলামিন।

তিনি বলেন, আমি শুরু থেকেই আওয়ার ইসলাম পরিবারের সঙ্গে আছি। ইনশাল্লাহ আগামীতেও থাকবো। আওয়ার ইসলাম এর আগেও নবিজীকে চিঠি লেখা প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। এটি একটি ভালো উদ্যোগ। এতে করে আমাদের যুবসমাজের তরুণদের নবীজিকে পড়ার এবং জানার আগ্রহ সৃষ্টি হবে। বস্তুত নবী করিম (সা.)-এর অনুসরণ আমাদের যুবসমাজকে মাদকমুক্ত করবে।

অনুষ্ঠানে প্রসিদ্ধ লেখক মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবিদীন তার বক্তব্যে আশ্চর্য প্রকাশ করে বলেন, আলেমদের ব্যতীত মুক্তিযোদ্ধার ইতিহাস হয় কীভাবে! তিনি বলেন, আজ আলেমসমাজ অনেক এগিয়ে আছেন। মুক্তিযুদ্ধে আলেমসমাজের অবদান শীর্ষক আলোচনা সময়ের দাবি। মানুষের জানা উচিৎ মুক্তিযুদ্ধে আলেমসমাজের অবদান কী?

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন আওয়ার ইসলাম টোয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক হুমায়ুন আইয়ুব।

আরও বক্তব্য রাখেন শিক্ষাবিদ আলেম মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভি, প্রকৌশলী আলী আবদুল মুনতাকিম, মাকতাবাতুল আখতারের কর্ণধার মাওলানা আহমদ আলী, কওমি কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুস সামাদ, এক্সিম ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট একিউএম ছফিউল্লাহ আরিফ, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের সহ-সভাপতি মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ঢাকা দক্ষিণের সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, বার্তা২৪.কম এর ইসলাম বিভাগের প্রধান মুফতি এনায়েতুল্লাহ, বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরামের সভাপতি জহির উদ্দিন বাবর ও শীলন বাংলার সম্পাদক মাসউদুল কাদির।

আপনার মতামত লিখুন :

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা
মসজিদে হারামে নামাজ আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করছেন হাজিরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: হজপালন শেষে মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা মক্কার বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান পরিদর্শন, ৫ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে হারামে আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করে কাটাচ্ছেন।

মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা উমরার নিয়ত করলে তাদের ইহরাম বাধার জন্য যেতে হয় আয়েশা মসজিদে। সেখানে যেয়ে (ইহরাম আগেও পড়া যায় মসজিদে আয়েশাতে যেয়েও অনেকে পরিধান করেন) দুই রাকাত নামাজ পড়ে তালবিয়া (লাব্বাইক .... ) পড়ে কাবা শরিফে এসে উমরার সব নিয়মনীতি পালন করেন।

মসজিদটি মক্কার তানঈম এলাকায় অবস্থিত। এটাকে মসজিদে তানঈমও বলা হয়। হেরেম এলাকার বাইরে এটি মক্কা থেকে সর্বাধিক নিকটবর্তী স্থান। মক্কা থেকে ৬ কিলোমিটার উত্তরে মক্কা-মদিনা রোডে আল হিজরা এলাকায় অবস্থিত এই মসজিদ। রাতদিন ২৪ ঘণ্টা এখানে মুসল্লিদের উপস্থিতি থাকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392961853.jpg

উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.) এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে উমরা করেছিলেন। পরে সেখানে একটি বিশাল মসজিদ গড়ে উঠে। মসজিদটি ইসলামি শিল্পনৈপুণ্যের এক অনুপম নিদর্শন।

বিদায় হজের সময় হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.)কে তার ভাই হজরত আবদুর রহমান (রা.)-এর সঙ্গে হারামের বাইরে এখান থেকে উমরার ইহরাম বাঁধার জন্য পাঠিয়েছিলেন।

এ কারণে এখান থেকে মক্কাবাসীরা উমরার জন্য এখান থেকে ইহরাম বেঁধে থাকেন। বিদেশি হাজিরা এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে থাকেন। অবশ্য এটা নিয়ে ইসলামি স্কলারদের মাঝে বিতর্ক আছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392972633.jpg

মক্কা থেকে এখানে আসতে বাস ভাড়া ৩ রিয়াল, আর ট্যাক্সি ভাড়া ৫ রিয়াল। সারাক্ষণ নফল উমরার ইহরামের জন্য আসা হাজিদের ভিড় থাকে মসজিদটিতে। বিশাল এই মসজিদের দু’টি মিনার ও একটি গম্বুজ অনেক দূর থেকে দেখা যায়। মসজিদটি খেজুর গাছ দ্বারা পরিবেষ্টিত। মসজিদের সামনে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য বিশাল জায়গা রয়েছে। রয়েছেন অজু ও নারীদের নামাজের জন্য আলাদা ব্যবস্থা।

হজ বা উমরাপালন করতে যারা বিমানযোগে সৌদি আরব আসেন তারা নিজ দেশ থেকে কিংবা নির্দিষ্ট মিকাত থেকে নিয়ত করেন। কিন্তু হজের পর উমরা করতে চাইলে উত্তম হলো- নির্দিষ্ট মিকাতে যেয়ে উমরার নিয়ত করা। এজন্য তায়েফ, রাবেক, মদিনা, আস-সাইরুল খাবির, আস-সাদিয়াত যেতে পারেন। এসব জায়গা থেকে আসার পথে মিকাত পড়বে। সেখান যথা নিয়মে উমরার নিয়ত করে উমরা আদায় করতে পারেন।

ইসলামি স্কলারদের অভিমত হচ্ছে, হজে গিয়ে বেশি বেশি তাওয়াফ করা। এটি সুন্নত এবং সবচেয়ে উত্তম কাজ। কাজেই যারা মক্কায় অবস্থান করেন, তারা বেশি করে তাওয়াফ করবেন এবং আল্লাহর ঘরে গিয়ে বেশি করে নফল নামাজ আদায় করবেন।

আরও পড়ুন: হজপালনে শীর্ষ ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশ চতুর্থ

আরও পড়ুন: হজ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে কিছু প্রস্তাবনা

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে
ছবি: সংগৃহীত

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: সৌদি আরবে আসা হজযাত্রীদের হজপালন বিষয়ে ধর্মীয় পরামর্শ ও দিক-নির্দেশনা প্রদানের জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আসা ৫৮ আলেমকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছেন মদিনার মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) সকালে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ মুহাম্মদ আবদুল্লাহর নেতৃত্বে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখ দল হজপালন শেষে মদিনার মসজিদে নববী পরিদর্শনে গেলে তারা এ অভ্যর্থনা জানান। এ সময় মসজিদে নববীর প্রধান কর্মকর্তা মোহাম্মদ আল খুদায়েরি বলেন, অতীতে বাংলাদেশের এতো বড় আলেম প্রতিনিধি দল সৌদি আরব বিশেষ করে মদিনায় আসেনি। একসঙ্গে বাংলাদেশের শীর্ষ আলেমদের কাছে পেয়ে তারা গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315408680.jpg

এ সময় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৌদি আরবের সঙ্গেও তিনি সুসম্পর্ক বজায় রাখছেন। তিনি আরও বলেন, মুসলিম বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সৌদি আরবের নেতৃত্বকে সমর্থন জানাবে বাংলাদেশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315426944.jpg

পরে বাংলাদেশের আলেম ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রীকে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা মোবারকে সালাম ও দরুদ পেশ এবং রিয়াজুল জান্নাতে নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করেন মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য যে, হজযাত্রীদের পরামর্শ দিতে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখের একটি দল রাষ্ট্রীয় খরচে সৌদি আরব অবস্থান করছেন। ২১ আগস্ট তাদের দেশে ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র