Alexa

মির্জাপুর শাহী মসজিদ: দেশের অন্যতম প্রাচীন নিদর্শন

মির্জাপুর শাহী মসজিদ: দেশের অন্যতম প্রাচীন নিদর্শন

মির্জাপুর শাহী মসজিদ, পঞ্চগড়, ছবি: বার্তা২৪.কম

মির্জাপুর শাহী মসজিদ। মুঘল আমলে প্রতিষ্ঠিত পঞ্চগড় জেলার একমাত্র ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন মসজিদ। ঐতিহ্যবাহী এই মসজিদটি দেশের উত্তরের সীমান্তবর্তী জেলা পঞ্চগড়ের পর্যটন শিল্পের একটি অন্যতম উপাদান। মসজিদের অবস্থান দেশের সর্ব উত্তরের প্রান্তিক জেলা পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর গ্রামে। মির্জাপুর শাহী মসজিদের প্রতিষ্ঠাকাল সম্পর্কে বিস্তারিত কোনো তথ্য পাওয়া যায় না। তবে ঐতিহাসিকদের মতে, এ মসজিদের বয়স সাড়ে ৩শ’ বছরের বেশি।

অনেকের ধারণা মসজিদটি ষোড়শ শতকের শেষের দিকে নির্মিত। অনেকেই অনুমানে করেন এ মসজিদটি ১৬৭৯ খ্রিস্টাব্দে (সম্ভাব্য) নির্মিত হয়েছে। কারণ মির্জাপুর শাহী মসজিদটি ঢাকা হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে অবস্থিত মসজিদের সঙ্গে ব্যাপক শৈলীর সাদৃশ্য খুজে পাওয়া যায় এ থেকে ধারণা করা হয় ঢাকা হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে অবস্থিত মসজিদের সম-সাময়িককালে এ মসজিদের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়। তবে মসজিদের দেয়াল থেকে কিছু উদ্ধারকৃত শিলালিপি থেকে অনুমান করা হয় ১৬৫৬ সালের দিকে নির্মাণ করা হয়েছে মসজিদটি। ভারত সম্রাট শাহজাহানের পুত্র শাহ সুজার শাসনামলে শাহী মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে বলে তথ্য পাওয়া যায়।

তবে স্থানীয়রা মনে করেন, মির্জাপুর গ্রামের প্রতিষ্ঠাতা মালিক উদ্দীন শাহী মসজিদ নির্মাণের এই মহান কাজটি করেছেন। তবে দোস্ত মোহাম্মদ শাহী মসজিদ নির্মাণের শেষ কাজটি সমাপ্ত করেন বলে ব্যাপক জনশ্রুতি রয়েছে।
দেশের অন্যতম প্রাচীন নিদর্শন

তিন গম্বুজ বিশিষ্ট মির্জাপুর শাহী মসজিদের দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট, প্রস্থ ২৫ ফুট। এক সাড়িতে মসজিদের নির্মাণ শৈলীর নিপূণতা ও কারুকাজ থাকায় বিভিন্ন জায়গা থেকে আগত দর্শনার্থীদের বিশেষ করে আকৃষ্ট করে। মসজিদের মধ্যবর্তী দরজার উপরিভাগে নির্মাণ সম্পর্কে পারস্য ভাষায় লিখিত একটি ফলক রয়েছে, সে ফলকের ভাষা ও লিপি থেকে ধারণা পাওয়া যায় মোঘল সম্রাট শাহ আলমের রাজত্বকালে এট নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়।

মোগল স্থাপত্য রীতির বৈশিষ্ট্যে ভরপুর সুসজ্জিত মির্জাপুর শাহী মসজিদের গম্বুজের শীর্ষবিন্দু ক্রমহ্রাসমান বেল্ট দ্বারা যুক্ত। মসজিদের দেওয়ালের টেরাকোট ফুল এবং লতাপাতার বিভিন্ন খোদাই করা নকশা আছে যা সহজেই আকৃষ্ট করে পর্যটকদের। এ মসজিদের গম্বুজের চার কোণায় চারটি মিনার আছে৷ সামনের দেয়ালের দরজার দু'পাশে গম্বুজের সাথে মিল রেখে দু’টি মিনার দৃশ্যমান। মসজিদের দেয়ালে ব্যবহার করা ইটসমূহ চিক্কন, রক্তবর্ণ ও বিভিন্নভাবে অলঙ্কৃত এবং দেয়ালের চারপাশ ইসলামি টেরাকোটা ফুল ও লতাপাতার নকশায় পরিপূর্ণ। বিশেষ করে মসজিদের মধ্যবর্তী দরজায় ফারসি লিপিখচিত মুদ্রার কালো ফলক, ফলকের লিপি ও ভাষা থেকে অনুমান করা যায় এ মসজিদটি মুগল সম্রাট শাহ আলমের শাসনমালে নির্মিত।
দেশের অন্যতম প্রাচীন নিদর্শন

মসজিদটির তিনটি বড় দরজা আছে, মসজিদের দেয়ালে কারুকার্য ও বিভিন্ন আকৃতির নকশা করা। মসজিদের ভেতরের দেয়ালে খোদাই করা কারুকার্য বিভিন্ন রঙের এবং বিভিন্ন ফুল, লতাপাতাসহ কোরআনের সংবলিত ক্যালিওগ্রাফি তুলির ছোঁয়ায় সজ্জিত করা যা মনোমুগ্ধ করে দর্শনার্থীদের।

ঐতিহ্যবাহী মির্জাপুর শাহী মসজিদের সামনে একটি উন্মুক্ত খোলা জায়গা রয়েছে। এক পাশে সুসজ্জিত পাকা তোরণসহ মসজিদের উভয় পাশে নকশা ও খাঁজ করা স্তম্ভ রয়েছে। স্তম্ভেরগুলো মাঝে চ্যাপ্টা গম্বুজ, তোরণকে আরও সুন্দর করে তুলেছে। আর সুসজ্জিত গম্বুজের ওপরে মুদ্রা আকৃতির চূড়া দর্শনার্থীদের মাঝে আরও আকৃষ্ট করে। প্রাচীন এ মসজিদটি কয়েকশ বছর বয়স হলেও কোনো ক্ষতি হয়নি ফলে মসজিদের ইটের গাঁথুনি, দেয়াল, প্লাস্টার ও নকশাসহ সব কারুকাজ শক্ত ও মজবুতভাবে দাঁড়িয়ে আছে।

মির্জাপুর গ্রামের বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম বার্তা২৪.কমকে জানান, অনেকদিন আগে প্রবল এক ভূমিকম্পে মসজিদটির বেশকিছু অংশ ভেঙে যায়। তখন মির্জাপুর গ্রামের বাসিন্দা মালিক উদ্দীন মসজিদটি পুনঃসংস্কারের জন্য সুদূর ইরান থেকে কারিগর নিয়ে আসেন। সেই কারিগর তখন শাহী মসজিদটি সংস্কার করেন। তখন থেকে আর কোনো প্রকার সংস্কারের কাজ করা হয়নি।

শাহী মসজিদের নকশা খচিত কারুকাজ দেখার জন্য দেশি-বিদেশী পর্যটক, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষ ভিড় করেন প্রতিদিন।
দেশের অন্যতম প্রাচীন নিদর্শন

এ বিষয়ে মকবুলার রহমান সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মামুনুর রশিদ মামুন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘শাহী মসজিদ আমাদের ঐতিহ্য, স্থানীয় জনগণের দেখাশুনার পাশাপাশি যদি সরকারের সুদৃষ্টি থাকে, তাহলে প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী মসজিদটির সৌন্দর্য আরও বৃদ্ধি পাবে আমি মনে করি।’

আটোয়ারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তহিদুল ইসলাম জানান, 'শাহী মসজিদটি আমাদের অতি প্রাচীন। মসজিদটি কালের ঐতিহ্য হওয়ায় দেশ-বিদেশ থেকে বহু মানুষ দেখতে আসেন। মসজিদ সংষ্কার ও সৌদর্য ধরে রাখে বহুবিধ কাজ করে যাচ্ছি আমরা।’

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন জানান, ‘মির্জাপুর শাহী মসজিদটি পঞ্চগড়ে এক অন্যতম নিদর্শন। মসজিদ সংরক্ষণ ও সংষ্কার করার বিষয়ে আমরা আরও নতুন নতুন উদ্যোগ নিয়েছি।’

আপনার মতামত লিখুন :