দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান দিয়ে অাইন অনুমোদন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

'কওমি মাদরাসাসমূহের দাওরায়ে হাদিস (তাকমীল)-এর সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি (ইসলামিক স্টাডিজ ও অারবি) সমমনা প্রদান অাইন, ২০১৮'- এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রীসভা।

সোমবার (১৩ অাগস্ট) প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রীসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবারয়ে সংবাদ সম্মেলন এ তথ্য জানান মন্ত্রীপরিষদ সচিবব মোহাম্মদ শফিউল অালম।

তিনি বলেন, দাওরায়ে হাদিসের অর্থ কি হবে? এসব বিষয়ের সংজ্ঞা দেয়া অাছে। কওমি মাদ্রাসার শিক্ষাবোর্ড গঠন করা হবে। এর কেন্দ্রীয় অফিস থাকবে ঢাকায়। চেয়ারম্যান চাইলে কমিটির সদস্য নির্ধারণ করতে পারবেন। তবে কমিটি ১৫ সদস্যের বেশি থাকবেন না। কমিটিতে সরকারের কোন

মন্ত্রীপরিষদ সচিব বলেন, কওমি মাদরাসার ১৫ লাখ শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের মূল ধারায় নিয়ে অাসতে এ অাইনটি করা হয়েছে। তারা সরকারের অাওতায় ছিল না। সেটি মাথায় রেখেই অাইনটি করা হয়েছে। অাগে যেসকল সনদ দেয়া হয়েছে তা এই অাইনের অাওতায় গৃহিত হবে বলেও জানান তিনি।

আইনে বলা হয়েছে, কওমি মাদরাসার স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য বজায় রেখে এবং দারুল উলুম দেওবন্দের মূলনীতিগুলোকে ভিত্তি করে এই সমমান দেয়া হল।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, এ সমমান দেওয়ার লক্ষ্যে বেফাক সভাপতি (পদাধিকার বলে) আল্লামা শফীর নেতৃত্বে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে সরকারের কোনো প্রতিনিধি রাখা হয়নি।

বলা হয়েছে, এ কমিটি সনদবিষয়ক যাবতীয় কার্যক্রমের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী বিবেচিত হবে। এ কমিটির তত্ত্বাবধানে নিবন্ধিত মাদরাসাগুলোর দাওরায়ে হাদিসের সনদ মাস্টার্সের সমমান বিবেচিত হবে। এ কমিটির অধীনে ও তত্ত্বাবধানে দাওরায়ে হাদিসের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। কমিটি সিলেবাস প্রণয়ন, পরীক্ষা পদ্ধতি, পরীক্ষার সময় নির্ধারণ, অভিন্ন প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও উত্তরপত্র মূল্যায়ন, ফলাফল এবং সনদ তৈরিসহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এক বা একাধিক উপ-কমিটি গঠন করতে পারবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়গুলো অবহিত করবে কমিটি। এ কমিটি দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে থাকবে।

২০১৭ সালের ১৩ এপ্রিল কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্স সমমর্যাদা ঘোষণা করে সরকার। ওই দিন গণভবনে প্রায় তিন শতাধিক আলেমদের এক অনুষ্ঠানে কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকের (বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ) চেয়ারম্যান আল্লামা শাহ আহমদ শফীর উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ঘোষণা দেন। ওই অনুষ্ঠানে অন্য পাঁচটি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও দেশের শীর্ষ আলেমরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করে। এর আলোকে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) উচ্চপর্যায়ের আলেমদের সঙ্গে দফায় দফায় বসে এ সংক্রান্ত আইনের খসড়া চূড়ান্ত করে।

এর পরও কওমি মাদরাসার সমমান সংক্রান্ত আইন পাশ বিলম্ব হওয়ায় ২৮ জুলাই (২০১৮) রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন আল্লামা আহমদ শফী। তখন কওমি সনদের স্বীকৃতি দ্রুত সময়ে মন্ত্রিসভায় অনুমোদন এবং আইনি ভিত্তি প্রদান করে চূড়ান্ত ঘোষণার আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী।

কওমি মাদরাসা শিক্ষা সনদের সমমান কিংবা স্বীকৃতির দাবি দীর্ঘ দিনের। বিভিন্ন সময় এর জন্য আন্দোলন হয়েছে। ২০১০ সালে সরকার শিক্ষানীতি ঘোষণার সময়ই কওমি শিক্ষাকে স্বীকৃতি দেওয়ার ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়। ২০১৩ সালে কওমি সনদের স্বীকৃতি বাস্তবায়নে আল্লামা শফীর নেতৃত্বে কমিশন গঠন করে সরকার। ১৭ সদস্য বিশিষ্ট ওই কমিটিতে সদস্য সচিব ছিলেন গওহারডাঙ্গা মাদরাসার মহাপরিচালক মুফতি রুহুল আমীন।

দাওরায়ে হাদিস কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ স্তর। কওমি শিক্ষায় ৬টি স্তর রয়েছে। এগুলো হল- ইবতেদাইয়্যাহ (প্রাথমিক), মুতাওয়াসসিতাহ (নিম্নমাধ্যমিক), সানাবিয়্যাহ আম্মাহ (মাধ্যমিক), সানাবিয়্যাহ খাসসাহ (উচ্চ মাধ্যমিক), মারহালাতুল ফজিলত (স্নাতক), মারহালাতুত তাকমিল বা দাওরায়ে হাদিস (মাস্টার্স সমমান)।

ইসলাম এর আরও খবর

আখেরি মোনাজাত শুরু

মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুর পৌনে ১২টার দিকে টঙ্গীর তুরাগ তীরে ইজতেমা ময়দানে আখেরি মোনাজাত শুরু হয়।