Barta24

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বাবর কী করেছিলেন তা আমাদের বিবেচ্য নয়: সুপ্রিম কোর্ট

বাবর কী করেছিলেন তা আমাদের বিবেচ্য নয়: সুপ্রিম কোর্ট
বাবরি মসজিদ, ছবি: সংগৃহীত
কলকাতা ডেস্ক


  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘদিন চলা অয্যোধ্যা মামলায়, মধ্যস্থতাকারী নিয়োগ নিয়ে বুধবারও (৬ ফেব্রুয়ারি) রায় স্থগিত রাখল ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। তবে এই ইস্যুতে দেশের শীর্ষ আদালত যে দ্রুত নির্দেশ দিতে চায়, সে কথাও জানিয়ে দিয়েছে।

সেজন্য সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলিকে সম্ভাব্য মধ্যস্থতাকারীদের নামও জানাতে বলেছে আদালত। পাশাপাশি প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের নেতৃত্বাধীন সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ বলেছে, 'এই মামলা শুধুমাত্র সম্পত্তি নিয়ে নয়। এর সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে আবেগ এবং আস্থা।'

রাম মন্দিরের পক্ষে প্রবীণ আইনজীবী সিএস বৈদ্যনাথন বলেন, 'অতীতে বারবার প্রচেষ্টা সত্ত্বেও মধ্যস্থতার রাস্তায় কোনো ফল মেলেনি। অন্যদিকে মুসলিম সংগঠনগুলি সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ মেনে মধ্যস্থতার প্রস্তাবকেই সমর্থন জানায়। তাদের বক্তব্য, আদালতে রুদ্ধদ্বার প্রক্রিয়ায় এটি হওয়া উচিত।'

প্রসঙ্গত, ১৯৯৪ সালে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নরসিমা রাও -এর সরকার সুপ্রিম কোর্টে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, কখনও যদি প্রমাণ হয় সেখানে মন্দির ছিল, তাহলে ওই জমি মন্দির নির্মাণের জন্য দিয়ে দেওয়া হবে।

শুনানি চলাকালীন হিন্দু মহাসভা বুধবার সুপ্রিম কোর্টে বলে, 'কোনো রকম মধ্যস্থতায় রাজি নয় হিন্দুরা। বিষয়টি মধ্যস্থতার দিকে ঠেলে দেওয়া ঠিক হবে না। আমরা ১৯৫০ সাল থেকে এই মামলার ফলের দিকে তাকিয়ে রয়েছি।'

এর পরই সুপ্রিম কোর্টের তরফ থেকে বলা হয়, 'এই জমি বিতর্কের গভীরতা ও দেশের রাজনীতিতে মধ্যস্থতার মাধ্যমে সমাধানের প্রভাব সম্পর্কে আদালত যথেষ্ট সজাগ। এই মামলা শুধুমাত্র জমি সংক্রান্ত নয়। এর সঙ্গে আবেগ ও বিশ্বাস জড়িয়ে রয়েছে। মুঘল শাসক বাবর কী করেছিলেন, তারপর কী হয়েছিল, সেসব আমাদের বিবেচ্য নয়। বর্তমানে স্থাপনাটা নিয়ে কীসের অস্তিত্ব রয়েছে, সেটাই আমরা বিচার করে দেখব।'

আপনার মতামত লিখুন :

এরশাদের মৃত্যুতে মুখ্যমন্ত্রী মমতার শোকবার্তা

এরশাদের মৃত্যুতে মুখ্যমন্ত্রী মমতার শোকবার্তা
এরশাদের মৃত্যুতে মুখ্যমন্ত্রী মমতার শোক

সাবেক রাষ্ট্রপতি  ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  

রোববার (১৪ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো এক শোকবার্তায় তিনি এ শোক প্রকাশ করেন।

শোকবার্তায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। আজ সকাল পৌনে ৮টায় ঢাকার হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর৷ কোচবিহারের বাসিন্দা মুহম্মদ এরশাদের সঙ্গে আমার অত্যন্ত সুসম্পর্ক ছিল।

প্রয়াত এরশাদ বাংলাদেশের জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা ছিলেন ৷  তাঁর প্রয়াণে রাজনৈতিক জগতে অপূরণীয় শূন্যতার সৃষ্টি হয়।

শোকবার্তায় মূখ্যমন্ত্রী এরশাদের পরিবার-পরিজন ও  অনুরাগীদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানিয়েছেন।

 

শেকড়ের টানে পর্যটন মেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে ভিড়

শেকড়ের টানে পর্যটন মেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে ভিড়
বাংলাদেশ সরকারের ট্যুরিজম বোর্ড সহ ১২টি স্টল দেয়া হয় এই মেলায়, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

কলকাতায় সম্পন্ন হলো তিন দিনব্যাপী ৩১তম ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ফেয়ার।

রোববার (১৪ জুলাই) সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে আয়োজিত মেলায় ভিন্ন স্বাদের পর্যটনের সম্ভার নিয়ে হাজির হয়েছিলো বাংলাদেশ।   

দেশটির মিনিস্ট্রি অফ সিভিল এভিয়েশন অ্যান্ড ট্যুরিজমের ডেপুটি সেক্রেটারি অঞ্জনা খান মজলিস বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, এখানকার বেশিরভাগ মানুষ বাংলাদেশ সম্বন্ধে সেভাবে জানেন না। বাংলাদেশে দর্শনীয় স্থান কি কি আছে বা কোথায় কোথায় ঘোরা যায়, সেই বিষয়গুলো আমারা জানাচ্ছি। পাশাপাশি আমাদের কালচার যেমন ভাষা আন্দোলন, নববর্ষ উদযাপন এমনকি আমাদের ইলিশ এসব বিষয়ে কলকাতার মানুষ আগ্রহ বোধ করছে। জানার পর প্ল্যানিং করছে কি ভাবে আসবে বাংলাদেশে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/14/1563102301190.jpg
বাংলাদেশকে আরও কাছে থেকে জানতে অনেকে ঘুরতে আসতে চেয়েছেন 

 

এখানে ১২ জন ট্যুর অপারেটর এসেছে আমরা তাদের কাছে পাঠিয়ে দিচ্ছি। পাশাপাশি এখানকার বেশিরভাগ মানুষের শেকড় বাংলাদেশে, ফলে অনেকের পৈতৃক ভিটে আছে দেশে। তারা বাংলাদেশকে যেমন দেখতে চায় সঙ্গে নিজেদের জন্মস্থানও দেখতে চায়। সেই ভাবেই আমাদের প্যাকেজগুলো করে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছে অনেকে। ভালো লাগছে, বেশ সাড়া পাচ্ছি। পশ্চিমবঙ্গের মানুষের বাংলাদেশের প্রতি আলাদা আকর্ষণ রয়েছে, তা বেশ বোঝা যাচ্ছে।

মেলায় বাংলাদেশের প্যাভিলিয়ন সাজানো হয়েছিল দিনাজপুরের বিখ্যাত কান্তজীর মন্দিরের আদলে। প্যাভিলিয়নে ১১টি বেসরকারি স্টল ছাড়াও বাংলাদেশ সরকারের ট্যুরিজম বোর্ড সহ ১২টি স্টল স্থান পেয়েছিল। পর্যটন মেলায় কলকাতাবাসীর কাছে আকর্ষণীয় বিষয় হলো একই ভাষায়, একই গন্ধে বিদেশ ভ্রমণ। বুকিংও পেয়েছে প্রচুর। পূর্বপুরুষের ভিটেমাটি ছেড়ে ভারতে আসার পর  নতুন প্রজন্মকে সেই স্বাদ পাওয়ানোর ইচ্ছা অনেকের থাকলেও, সহযোগিতা পাচ্ছিলো না। সেই সুবিধা করে দিল বাংলাদেশ থেকে আসা ট্যুর কোম্পানিগুলো।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/14/1563102319331.jpg
বাংলাদেশের ঐতিহ্যকে তুলে ধরা হয় কলকাতাবাসীর কাছে 

 

শুক্রবার (১২ জুলাই) মেলা শুরু হয়ে শেষ হয় রোববার (১৪ জুলাই)। এবারের মেলায় ৪৩০টি স্টলে ভারতের ২৮টি রাজ্য এবং ১৪টি দেশ অংশগ্রহণ করেছিল। কলকাতাবাসীর কাছে বাংলাদেশ এক আবেগের বিষয়। সে কারণেই বাংলাদেশ সম্বন্ধে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে খোজ খবর নিচ্ছেন অনেকেই। অনেকে প্লানও করে নিয়েছে এবার পুজোর ছুটির ডেসটিনেশন বাংলাদেশ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র