Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

শেষ দফার ভোট হবে পশ্চিমবঙ্গসহ ৮ রাজ্যে

শেষ দফার ভোট হবে পশ্চিমবঙ্গসহ ৮ রাজ্যে
লোকসভা নির্বাচনের একাংশ প্রার্থী / ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
কলকাতা


  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনের সপ্তম তথা শেষ পর্যায়ে মোট আটটি রাজ্যের ৫৯টি লোকসভা কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এরমধ্যে পশ্চিমবঙ্গের নয়টি আসনে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। এই নয়টি আসন হলো বারাসাত, বসিরহাট, দমদম, কলকাতা উত্তর, কলকাতা দক্ষিণ, ডায়মন্ডহারবার, যাদবপুর, জয়নগর মথুরাপুর।

শেষ দফার নির্বাচনে বারাসাত কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হয়েছেন ড. কাকলী ঘোষদস্তিদার এবং বিজেপি প্রার্থী হয়েছেন ড. মৃণাল কান্তি দেবনাথ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/18/1558175676156.jpg

বসিরহাট কেন্দ্র থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী অভিনেত্রী নুসরাত জাহান এবং এই কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী হয়েছেন সায়ন্তন বসু।

দমদম কেন্দ্র থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী অধ্যাপক সৌগত রায় এবং বিজেপির হয়ে লড়াই করছেন শমীক ভট্টাচার্য।

কলকাতা উত্তরে প্রধান প্রতিদ্বন্দী তৃণমূল-বিজেপি। এই কেন্দ্র তৃণমূল কংগ্রেসের সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার বিরুদ্ধে বিজেপি প্রার্থী রাহুল সিনহা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/18/1558175838982.jpeg

কলকাতা দক্ষিণে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হয়েছেন মালা রায়, বিজেপি প্রার্থী নেতাজী সুভাষ চন্দ্রের পারিবারের সদস্য চন্দ্র কুমার বোস। ওই কেন্দ্রেই ভোট দেবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় এবং সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। ভোট দেবেন অভিনেতা তাপস পাল, রঞ্জিত মল্লিক, কোয়েল, জিৎ, দেব, রুক্মিনি, পরমব্রতসহ প্রায় ৯০ শতাংশ বিনোদনের তারকারা। ওই কেন্দ্রেই ভোট আছে বসিরহাট তারকা প্রার্থী নুসরাতের।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/18/1558175859003.jpg

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে দক্ষিণ ২৪পরগনার ডায়মন্ডহারবার কেন্দ্রটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। এই কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিজেপি প্রার্থী নীলাঞ্জন রায়।

শেষ দফা নির্বাচনে কলকাতার যাদবপুর কেন্দ্রটি নিয়ে উৎসাহ তুঙ্গে। এই কেন্দ্র তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী, বিজেপির প্রার্থী অধ্যাপক অনুপম হজরা। যিনি সদ্য তৃনমূল ছেড়ে বিজেপিতে এসছেন। এছাড়া সিপিআইএম’র হেভিওয়েট প্রার্থী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/18/1558175903446.jpg

জয়নগর কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী প্রতিমা মণ্ডল বিজেপি তরফে লড়াই করছেন ড. অশোক কান্ডারী।

মথুরাপুর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হয়েছেন চৌধুরী মোহন জাটুয়া বিজেপির হয়ে ময়দানে আছেন শ্যমাপ্রসাদ হালদার।

গত লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে রাজ্যে বিরোধী দল ছিল কংগ্রেস ও সিপিআইএম। তবে ক্ষমাতায় না থাকলেও পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি-ই মূল বিরোধী দল হয়ে উঠে এসেছে।

পশ্চিমবঙ্গের এই কেন্দ্রগুলো ছাড়াও রোববার(১৯মে) বারানসি থেকে লড়াই করছেন স্বয়ং নরেন্দ্র মোদী এবং পাঞ্জাব থেকে বিজেপির প্রার্থী অভিনেতা সানি দেওল।

আপনার মতামত লিখুন :

সপ্তাহ শেষে পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করবে বর্ষা

সপ্তাহ শেষে পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করবে বর্ষা
ছবি: সংগৃহীত

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া একটি নিম্নচাপের জেরে আগামী দুই তিন দিনের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে বর্ষা প্রবেশ করবে বলে আশা করছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর। পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও ভারতের বিহার, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা জেলায় এ সপ্তাহেই মৌসুমি বায়ু ঢুকতে পারে বলে আবহাওয়া দফতর থেকে জানানো হয়েছে। ফলে গরম থেকে কিছুটা স্বস্তি মিলবে।  পাশাপাশি চাষবাসের জন্য এখনই ভারী বৃষ্টি হওয়া প্রয়োজন।

পশ্চিমবঙ্গসহ সমগ্র ভারতে বৃষ্টির ঘাটতি কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে যথেষ্ট উদ্বেগে রেখেছে। অবশ্য প্রাক বর্ষার বৃষ্টি ইতিমধ্যে পশ্চিমবঙ্গে শুরু হয়েছে। আগামী দুই তিনদিন এই পরিস্থিতি থাকবে বলে জানা গিয়েছে। শুক্রবার (২১ জুন) নাগাদ উত্তর বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপটি তৈরি হলে বৃষ্টির মাত্রা বাড়তে পারে বলে আবহাওয়াবিদরা আশা করছেন।

কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার (২০ জুন) তাপমাত্রা কিছুটা কমবে। পাশাপাশি আবহাওয়াবিদরা আশা করছেন, এই নিম্নচাপ পশ্চিমবঙ্গ সহ পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলো ছাড়াও মধ্য ভারতে বর্ষা টেনে আনার ক্ষেত্রে সহায়ক হবে। এবারে দেশে বর্ষা বেশ ধীর গতিতে এগোচ্ছে।

নির্ধারিত সময়ের আট দিন পর কেরল উপকূল দিয়ে স্থলভূমিতে বর্ষা ঢুকেছে। তারপরও মৌসুমি বায়ু বিশেষ সক্রিয় নয়। এই সময়ের মধ্যে দক্ষিণ, পশ্চিম, মধ্য ও পূর্ব ভারতের একটা বড় অংশে পুরোদমে বর্ষা শুরু হয়ে যাওয়ার কথা। স্বাভাবিক নিয়মে ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে গোটা দেশ বর্ষার আওতায় এসে যায়। জুন মাসে বৃষ্টির ব্যাপক ঘাটতি হলে তা বর্ষাকালের বাকি তিন মাসে পূরণ করা সমস্যা হয়ে দাড়াবে।

মৌসুমি উত্তর রেখা বৃহস্পতিবার উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরের খুব কাছে চলে এসেছে। বঙ্গোপসাগরে এই অংশের সংলগ্ন এলাকার দক্ষিণবঙ্গ ও ওড়িশা উপকূলে অবস্থান করছে। শুক্রবার নাগাদ বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপটি তৈরি হলে বৃষ্টি বাড়বে। ওড়িশা ও অন্ধ্র তুলনামূলকভাবে বেশি বৃষ্টি পাবে। পশ্চিমবঙ্গসহ বিহার, ঝাড়খণ্ডও বৃষ্টি হবে।

 

অভিযোগ প্রমাণ হলে সানি হারাতে পারেন এমপি পদ

অভিযোগ প্রমাণ হলে সানি হারাতে পারেন এমপি পদ
পাঞ্জাবের গুরুদাসপুর আসনে নির্বাচিত এমপি সানি দেওল

ভারতে সদ্য সমাপ্ত হওয়া লোকসভা নির্বাচনে পাঞ্জাবের গুরুদাসপুর আসন থেকে জয়ী হয়েছেন বিজেপি প্রার্থী তথা বলিউড তারকা সানি দেওল। এমপি পদে শপথ নেওয়ার পর থেকে তাঁর সংসদ সদস্য পদ ঘিরে শুরু হয়েছে জটিলতা।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, অভিনেতা সানির বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের বরাদ্দের চেয়ে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয়ের অভিযোগ উঠে এসেছে । তবে এই অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে সানি দেওলের জেতা আসনও হারাতে হতে পারে।    


 
ভারতের নির্বাচন কমিশনের নিয়মনুযায়ী, এবারের লোকসভা নির্বাচনে প্রত্যেক প্রার্থী প্রচারের জন্য সর্বোচ্চ ৭০ লক্ষ রুপি পর্যন্ত ব্যয় করতে পারবে। সেখানে সানি দেওল নিজের নির্বাচনী প্রচারে ৮৬ লক্ষ রুপি  খরচ করেছেন। নির্বাচন কমিশনের নজরদারি কমিটির কাছে একাধিক অভিযোগও জমা পড়েছে। অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে, অভিযুক্ত সংসদ সদস্যর ক্ষেত্রে কড়া পদক্ষেপ নিতে পারে নির্বাচন কমিশন।

এমনকি, জয়ী প্রার্থীকে বরখাস্ত করে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীকে জয়ী হিসেবে ঘোষণা করার ক্ষমতাও রয়েছে কমিশনের হাতে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/20/1561032884410.jpg

প্রসঙ্গত, এবারের নির্বাচনের দিন ঘোষণার অনেক পরে পাঞ্জাবের গুরুদাসপুর আসনে অভিনেতা সানি দেওলকে প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করে বিজেপি। নির্বাচনের অন্তিম পর্যায়ে এসে নাম ঘোষণার ফলে সানির জয় নিয়ে সন্দিহান ছিলেন দেশের বহু রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ। কিন্তু তাঁদেরকে কার্যত ভুল প্রমাণ করে পাঞ্জাব প্রদেশ কংগ্রেসের প্রধান সুনীল জাখরকে ৮০ হাজারেরও বেশি ব্যবধানে হারিয়ে জয়ী হন সানি দেওল।  আগে ঐ আসনে বিজেপির আসনে ভোটে জিতেছিলেন অভিনেতা তথা রাজনীতিবিদ বিনোদ খান্না। তাঁর মৃত্যুর পর এই আসনে নতুন মুখ দরকার ছিল বিজেপির। এই আসনে কে প্রার্থী হতে পারেন, তা নিয়ে জল্পনার মধ্যেই সানি দেওলের নাম ঘোষণা করেছিল বিজেপি।  

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র