Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

English

শেকড়ের টানে পর্যটন মেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে ভিড়

শেকড়ের টানে পর্যটন মেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে ভিড়
বাংলাদেশ সরকারের ট্যুরিজম বোর্ড সহ ১২টি স্টল দেয়া হয় এই মেলায়, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
কলকাটা ডেস্ক
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

কলকাতায় সম্পন্ন হলো তিন দিনব্যাপী ৩১তম ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ফেয়ার।

রোববার (১৪ জুলাই) সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে আয়োজিত মেলায় ভিন্ন স্বাদের পর্যটনের সম্ভার নিয়ে হাজির হয়েছিলো বাংলাদেশ।   

দেশটির মিনিস্ট্রি অফ সিভিল এভিয়েশন অ্যান্ড ট্যুরিজমের ডেপুটি সেক্রেটারি অঞ্জনা খান মজলিস বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, এখানকার বেশিরভাগ মানুষ বাংলাদেশ সম্বন্ধে সেভাবে জানেন না। বাংলাদেশে দর্শনীয় স্থান কি কি আছে বা কোথায় কোথায় ঘোরা যায়, সেই বিষয়গুলো আমারা জানাচ্ছি। পাশাপাশি আমাদের কালচার যেমন ভাষা আন্দোলন, নববর্ষ উদযাপন এমনকি আমাদের ইলিশ এসব বিষয়ে কলকাতার মানুষ আগ্রহ বোধ করছে। জানার পর প্ল্যানিং করছে কি ভাবে আসবে বাংলাদেশে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/14/1563102301190.jpg
বাংলাদেশকে আরও কাছে থেকে জানতে অনেকে ঘুরতে আসতে চেয়েছেন 

 

এখানে ১২ জন ট্যুর অপারেটর এসেছে আমরা তাদের কাছে পাঠিয়ে দিচ্ছি। পাশাপাশি এখানকার বেশিরভাগ মানুষের শেকড় বাংলাদেশে, ফলে অনেকের পৈতৃক ভিটে আছে দেশে। তারা বাংলাদেশকে যেমন দেখতে চায় সঙ্গে নিজেদের জন্মস্থানও দেখতে চায়। সেই ভাবেই আমাদের প্যাকেজগুলো করে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছে অনেকে। ভালো লাগছে, বেশ সাড়া পাচ্ছি। পশ্চিমবঙ্গের মানুষের বাংলাদেশের প্রতি আলাদা আকর্ষণ রয়েছে, তা বেশ বোঝা যাচ্ছে।

মেলায় বাংলাদেশের প্যাভিলিয়ন সাজানো হয়েছিল দিনাজপুরের বিখ্যাত কান্তজীর মন্দিরের আদলে। প্যাভিলিয়নে ১১টি বেসরকারি স্টল ছাড়াও বাংলাদেশ সরকারের ট্যুরিজম বোর্ড সহ ১২টি স্টল স্থান পেয়েছিল। পর্যটন মেলায় কলকাতাবাসীর কাছে আকর্ষণীয় বিষয় হলো একই ভাষায়, একই গন্ধে বিদেশ ভ্রমণ। বুকিংও পেয়েছে প্রচুর। পূর্বপুরুষের ভিটেমাটি ছেড়ে ভারতে আসার পর  নতুন প্রজন্মকে সেই স্বাদ পাওয়ানোর ইচ্ছা অনেকের থাকলেও, সহযোগিতা পাচ্ছিলো না। সেই সুবিধা করে দিল বাংলাদেশ থেকে আসা ট্যুর কোম্পানিগুলো।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/14/1563102319331.jpg
বাংলাদেশের ঐতিহ্যকে তুলে ধরা হয় কলকাতাবাসীর কাছে 

 

শুক্রবার (১২ জুলাই) মেলা শুরু হয়ে শেষ হয় রোববার (১৪ জুলাই)। এবারের মেলায় ৪৩০টি স্টলে ভারতের ২৮টি রাজ্য এবং ১৪টি দেশ অংশগ্রহণ করেছিল। কলকাতাবাসীর কাছে বাংলাদেশ এক আবেগের বিষয়। সে কারণেই বাংলাদেশ সম্বন্ধে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে খোজ খবর নিচ্ছেন অনেকেই। অনেকে প্লানও করে নিয়েছে এবার পুজোর ছুটির ডেসটিনেশন বাংলাদেশ।

আপনার মতামত লিখুন :

কলকাতায় নিহত ২ বাংলাদেশির লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স রওনা দেবে রাত ২টায়

কলকাতায় নিহত ২ বাংলাদেশির লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স রওনা দেবে রাত ২টায়
নিহত দুই বাংলাদেশির পাসপোর্টের ছবি

কলকাতায় গাড়িচাপায় নিহত দুই বাংলাদেশির মরদেহ সড়ক পথে অ্যাম্বুলেন্সে করে শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে রওনা দেবে।

কলকাতায় বাংলাদেশ উপহাইকমিশনের কর্মকর্তা মোফাখখারুল ইকবাল বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, অ্যাম্বুলেন্সে করে সড়ক পথে মরদেহ দুটি ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হবে। ডেথ সার্টিফিকেট নিয়ে বাংলাদেশি নাগরিক হিসেবে শনাক্ত করে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আঞ্চলিক দপ্তরের সাথেই যোগাযোগ করে সব কার্যক্রম সম্পন্ন করা হচ্ছে। কলকাতার বাংলাদেশ উপহাইকমিশন এ বিষয়ে সব রকম সহযোগিতা করছে।

আরও পড়ুন: কলকাতায় গাড়িচাপায় ২ বাংলাদেশির মৃত্যু, ঘাতক গ্রেফতার

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) দিবাগত রাতে কলকাতার শেক্সপিয়র সরণিতে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই বাংলাদেশি নিহত হন। তারা হলেন— মহম্মদ মইনুল আলম (৩৬) ও ফারহানা ইসলাম তানিয়া (৩০)। প্রথম জনের বাড়ি বাংলাদেশের ঝিনাইদহে। অন্য জনের বাড়ি ঢাকার মোহাম্মদপুরে।

শনিবার (১৭ আগস্ট) ঘাতক গাড়ির চালককে গ্রেফতার করেছে কলকাতা পুলিশ।

কলকাতায় গাড়িচাপায় ২ বাংলাদেশির মৃত্যু, ঘাতক গ্রেফতার

কলকাতায় গাড়িচাপায় ২ বাংলাদেশির মৃত্যু, ঘাতক গ্রেফতার
ঘাতক জাগুয়ারের চালক আরসালান পারভেজ

কলকাতার সেক্সপিয়র সরণিতে মধ্যরাতে দ্রুত গতির একটি জাগুয়ারের চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা গেছেন দুই বাংলাদেশি। ঘাতক ওই জাগুয়ারের চালককে গ্রেফতার করেছে সেক্সপিয়র থানা পুলিশ।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) মধ্যরাতে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে শেক্সপিয়র সরণি ও লাউডন স্ট্রিটের সংযোগস্থলে।

কলকাতার সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা যায়, শেক্সপিয়র সরণি ধরে বিড়লা প্ল্যানেটোরিয়ামের দিক থেকে কলামন্দিরের দিকে যাওয়ার সময় প্রচণ্ড গতির একটি জাগুয়ার সজোরে ধাক্কা মারে একটি মার্সিডিজকে। এরপর জাগুয়ারটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা দুই পথচারীকে পিষে দেয়। ভেঙেচুরে যায় কংক্রিটের তৈরি কলকাতা পুলিশের একটি কিয়স্কও।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566045598521.jpg

গুরুতর জখম ওই দু’জনকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা। এ ঘটনায় গুরুতর জখম হন মার্সিডিজের চালক ও আরোহী। ঘটনার পরই গাড়ি ফেলে পালিয়ে যান জাগুয়ারের চালক।

প্রাথমিক তদন্ত শেষে পুলিশ জানিয়েছে মৃত দু’জনেই বাংলাদেশি নাগরিক। চিকিৎসা করাতে তারা গত ১৫ দিন ধরে কলকাতায় অবস্থান করছিল। তারা উঠেছিলেন ওই এলাকারই একটি হোটেলে।

নিহত দুই বাংলাদেশি হলেন—কাজি মহম্মদ মইনুল আলম (৩৬) ও ফারহানা ইসলাম তানিয়া (৩০)। প্রথম জনের বাড়ি বাংলাদেশের ঝিনাইদহে। অন্য জনের বাড়ি ঢাকার মহম্মদপুরে।

ঘাতক জাগুয়ারটি চালাচ্ছিলেন অভিজাত রেস্তরাঁ চেন আরসালানের মালিকের ছেলে আরসালান পারভেজ। এ খবর নিশ্চিত হয়েই ২২ বছর বয়সী আরসালান পারভেজকে শনিবার গ্রেফতার করে শেক্সপিয়র থানার পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেফতার আরসালান পারভেজকে শনিবার (১৭ আগস্ট) আলিপুর আদালতে তোলা হবে। এ গাড়ি দুর্ঘটনায় পুলিশ জাগুয়ারের চালকের বিরুদ্ধে আগের চেয়ে আরও কঠোর ধারায় মামলা দায়ের করেছে। প্রথমে ৩০৪ ধারায় মামলা সাজানো হয়েছিল। সেটা অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা হলেও জামিনযোগ্য ছিল।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র