Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

রাবি’র চিকিৎসা কেন্দ্রে অত্যাধুনিক মেশিন, মিলছে উন্নত সেবা

রাবি’র চিকিৎসা কেন্দ্রে অত্যাধুনিক মেশিন, মিলছে উন্নত সেবা
রাবি’র চিকিৎসা কেন্দ্রে অত্যাধুনিক মেশিন/ ছবি: বার্তা২৪
সাইফ সাইফুল্লাহ
রাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) চিকিৎসা কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের উন্নত সেবা দিতে বসানো হয়েছে অটোমেশন যন্ত্র। এছাড়াও ডেন্টাল, প্যাথলজি, ফিজিওথেরাপি ইউনিটের জন্য বিভিন্ন অত্যাধুনিক যন্ত্র এবং এক্সরে ও আল্ট্রাসনো মেশিন কেনা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রথমে শিক্ষার্থীরা ওই অটোমেশন যন্ত্রে স্মার্ট কার্ড পাঞ্চ করে প্রয়োজনীয় তথ্য দেবেন। পরে কোন রোগের চিকিৎসা করাতে চান সেটা উল্লেখ করে বাটন চাপলে চিকিৎসকের নাম, কক্ষ নম্বর ও শিক্ষার্থীর পরিচয়সহ অটোমেটেড একটি টোকেন দেওয়া হবে। ওই টোকেন নিয়ে সরাসরি নির্ধারিত কক্ষে গেলে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর চিকিৎসক প্রেসক্রিপশন লিখে ফার্মাসির সার্ভারে পাঠিয়ে দেবেন। পরে শিক্ষার্থীরা সেখান থেকে প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ওষুধ নিয়ে নেন। ফলে চিকিৎসা কেন্দ্রের সেবা নিয়ে উচ্ছ্বসিত রোগীরা।

সরেজিমনে দেখা গেছে, চিকিৎসা কেন্দ্রের বিভিন্ন কক্ষ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত, বসানো হয়েছে নতুন যন্ত্র। মূল চিকিৎসা কেন্দ্রের পাশের পরিত্যক্ত ভবনটি সংস্কার করে দ্বিতীয় ইউনিট খোলা হয়েছে। এখানে অত্যাধুনিক ডেন্টাল ইউনিট, প্যাথলজি ও আধুনিক ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। এক্স-রে ইউনিটে ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন (৫০০ এমএ) এবং ডিজিটাল প্লান্টের সাথে এক্স-রে মেশিনও যুক্ত করা হয়েছে।

এছাড়া চিকিৎসা কেন্দ্রে নতুনভাবে যুক্ত হয়েছে আলট্রাসনো, অত্যাধুনিক ইসিজি ও ফিজিওথেরাপি ইউনিট। ফিজিওথেরাপি ইউনিটে এসডব্লুউডি, ইউএসটি, ইলেক্ট্রিক ফ্রাকশন, টেনস ও ওয়াক্স থেরাপিসহ কয়েক ধরণের সেবা পাচ্ছেন রোগীরা। প্যাথলজি ইউনিটে পূর্বে সীমিত পরিসরে রোগের পরীক্ষা হলেও বর্তমানে এর সক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে। প্যাথলজিতে এইচবিওয়ানসি, লিপিড প্রোফাইল টেস্ট, সিরাম বিলিরুবিনসহ বিভিন্ন পরীক্ষা করা হচ্ছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/13/1542121088685.jpg

চিকিৎসা কেন্দ্রের জন্য কার্ডিয়াক সুবিধা সম্পন্ন নতুন একটি আধুনিক অ্যাম্বুলেন্স আনা হয়েছে। ফলে সার্বক্ষণিক দু’টি অ্যাম্বুলেন্সে রোগীদের সেবা দেওয়া হচ্ছে। আউটডোরের পাশাপাশি পূর্ণাঙ্গ ইমার্জেন্সি ইউনিট করা হয়েছে। রোগীদের প্রায় ৮০ ধরনের ওষুধ ও ইনজেকশন বিনামূল্যে দেওয়া হচ্ছে।

চিকিৎসা নিতে আসা ফয়সাল আহমেদ নামের এক শিক্ষার্থী বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘প্রথম দিকে এখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হতো। এখন ডেন্টাল, প্যাথলজি, ফিজিওথেরাপির মতো চিকিৎসার আধুনিক সরঞ্জাম থাকায় আমরা কাঙিক্ষত সেবা পাচ্ছি।’

মাইশা নামে অপর এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ইউনিট আধুনিকায়ন করায় এখন উন্নত সেবা পাওয়া যায়। আগে অনেক ঝামেলা পোহাতে হলেও এখন চিকিৎসা নিতে কোনো ঝামেলা নেই।’

চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান চিকিৎসক ডা. তবিবুর রহমান শেখ বার্তা২৪.কম’কে বলেন, ‘সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সহায়তায় মেডিকেল সেন্টারটিকে অত্যাধুনিক কনসালটেশন ও ডায়গনস্টিক সেন্টার হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করছি। অটোমেশনের আওতায় সব শিক্ষার্থীর চিকিৎসা সংক্রান্ত রেকর্ড, চিকিৎসকের অ্যাটেনডেন্স,  ওষুধ দেয়ার পরিমাণসহ সব রেকর্ড অটোমেশন মেশিনে থাকবে। বিভিন্ন ইউনিটের সক্ষমতা বাড়ায় চিকিৎসা নিতে আসা শিক্ষার্থীদের ভিড় লেগেই থাকে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আউটডোরে শিক্ষার্থীদের পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসাসেবা দেয়ার জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হবে। পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসাকেন্দ্র গড়ে তুলতে একটি অর্গানোগ্রাম প্রস্তুত করা হয়েছে। এর আওতায় ৯ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, ইমার্জেন্সির জন্য ৬ জন মেডিকেল অফিসার, ৬ জন টেকনোলজিস্ট ও ৪ জন নার্স নিয়োগ করা হবে। এটি দেড় বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটে অনুমোদন করা হয়। এখন ইউজিসি’র অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। অর্গানোগ্রাম অনুমোদন পেলে মেডিকেল সেন্টারের সক্ষমতা কয়েকগুণ বাড়বে।’

আপনার মতামত লিখুন :

ম্যান্ডেলার জন্মবার্ষিকীতে রাবিতে আলোচনা সভা

ম্যান্ডেলার জন্মবার্ষিকীতে রাবিতে আলোচনা সভা
ম্যান্ডেলার জন্মবার্ষিকীতে রাবিতে আলোচনা সভা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

আফ্রিকার বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলনের নেতা নেলসন ম্যান্ডেলার শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) বিকেল ৫টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ভবনের ফোকলোর গ্যালারিতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্র ফেডারেশন এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

সংগঠনটির সভাপতি রাশেদ রিমনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাব্বত হোসেন মিলনের সঞ্চালনায় সভায় আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও ফোকলোর বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. আমিরুল ইসলাম কনক।

আলোচনা সভায় আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, 'পৃথিবীতে দুটি নাম মানুষ সবচেয়ে বেশি জানে। তার একটি হলো নেলসন ম্যান্ডেলা। তিনি ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রথম রাষ্ট্রপতি। গণতন্ত্র ও সামাজিক ন্যায়ের প্রতীক হিসেবে তিনি অনেকগুলো পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৯০ সালে ভারত সরকার প্রদত্ত ভারত রত্ন পুরস্কার ও ১৯৯৩ সালে নোবেল শান্তি পুরস্কার লাভ তাদের মধ্যে অন্যতম।'

আমিরুল ইসলাম কনক বলেন, 'পৃথিবীর অনেকেই সংগ্রাম করে, নেতা হয় বা রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পায়। কিন্তু ক্ষমতা পাওয়ার পরপরই তাদের নিজেদের আচরণে পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু নেলসন ম্যান্ডেলা এমন একজন নেতা যিনি দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েও তার আচরণে কোনো পরিবর্তন দেখা যায়নি।'

এছাড়া আলোচনা সভায় নেলসন ম্যান্ডেলার আদর্শে উজ্জীবিত হওয়ার আহ্বান জানান বক্তারা।

রাবির ৩ বিভাগের বিরুদ্ধে অযৌক্তিক ফি আদায়ের অভিযোগ

রাবির ৩ বিভাগের বিরুদ্ধে অযৌক্তিক ফি আদায়ের অভিযোগ
ছবি: সংগৃহীত

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) তিন বিভাগে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অযৌক্তিক ফি আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এর মধ্যে ভূগোল এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে রশিদ ছাড়াই টাকা নেওয়া হচ্ছে। আর বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ‘অপ্রয়োজনীয়’ কয়েকটি খাতে টাকা নেওয়া হচ্ছে।

এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমের কাছে অভিযোগ করেন তিন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। তবে বিভাগগুলোর কর্তৃপক্ষ বলছে, শিক্ষার্থী ও বিভাগের উন্নয়নেই টাকা ব্যবহার করা হয়।

জানা গেছে, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগে মাস্টার্সে ভর্তি কার্যক্রম চলছে। এ জন্য শিক্ষার্থীদের ব্যাংকে ২ হাজার ৯৮০ ও ১৪০ টাকা জমা দিতে হচ্ছে। এছাড়া, রশিদ ছাড়াই বিভাগের প্রতি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে সাড়ে চার হাজার টাকা করে আদায় করা হচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ- বিভাগে ভর্তির ফরম কেনার জন্য সাড়ে চার হাজার দিতে হচ্ছে। তবে টাকা আদায়ের কোনো রশিদ দেওয়া হচ্ছে না। ফলে কোন খাতে টাকা নেওয়া হচ্ছে তা বুঝতে পারছেন না। এমনকি এ বিষয়ে শিক্ষার্থদেরও কিছু বলছে না।

বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মো. রেজাউর রহমান বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে যে টাকা নেওয়া হয়, তা শিক্ষার্থীদের এবং বিভাগের উন্নয়নের কাজে ব্যবহার করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিল থেকে দেওয়া টাকায় তেমন কিছুই হয় না। আর বিভাগের সিদ্ধান্তেই রশিদ দেওয়া হয় না।’

অন্যদিকে বাংলা বিভাগের তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষে পরীক্ষার জন্য মোট ৩ হাজার ৩০০ টাকা ব্যাংকে দিতে হচ্ছে। বাংলা সমিতির জন্য ৮০০ টাকা। সাহিত্যিকী নামক রিভিউ জার্নাল, সেমিনার লাইব্রেরির উন্নয়ন, বাংলা গবেষণা সংসদ ও মুক্তিযুদ্ধের কবিতা বই বাবদ ৩০০ টাকা, পরীক্ষা পরিচালনা ফি ও দরিদ্র তহবিল ফি বাবদ ২০০ টাকা, কম্পিউটার ল্যাব ফি ৪০০ এবং উন্নয়ন তহবিলের জন্য ৫০০ টাকা গুণতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, বিশেষ করে বাংলা সমিতি, সাহিত্যিকী জার্নাল এবং মুক্তিযুদ্ধের কবিতা বইয়ের জন্য অপ্রয়োজনে টাকা দিতে হচ্ছে। যার ফলে ফরম ফিলাফের জন্য বাড়তি চাপ পড়ছে।

বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক পিএম সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সাহিত্যিকী জার্নাল শিক্ষার্থীদের গবেষণামুখী করবে। মুক্তিযুদ্ধের কবিতা এখন শিক্ষার্থীদের সিলেবাসভুক্ত। বিভাগের উন্নয়ন এবং নানা আয়োজন-উৎসবের জন্য বাংলা সমিতির টাকা নেওয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের টাকা শিক্ষার্থীদের কাছেই ফিরে যাচ্ছে।’

এদিকে, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে মাস্টার্সে ভর্তির জন্য ৬০০ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা বলছেন, এর জন্য শিক্ষার্থীদের কোনো রশিদ দেওয়া হয় না। রশিদ না দেওয়ায় তারা টাকা ব্যয়ের উৎস সম্পর্কে জানতে পারেন না।

বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক এসএম এক্রাম উল্যাহ বলেন, ‘টাকা জমার সমস্ত তথ্য বিভাগে জমা থাকে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনো রশিদ বই দেয় না। তাই আমরাও রশিদ দিই না।’

এ বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এমএ বারী বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘টাকা যেখানেই, যে কারণেই নেওয়া হোক, অবশ্যই রশিদ দিতে হবে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র