Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

প্রথমবারের মতো জাতীয় গণিত সম্মেলন শুরু

প্রথমবারের মতো জাতীয় গণিত সম্মেলন শুরু
জাতীয় গণিত সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান / ছবি: বার্তা২৪
ঢাবি করেসপনডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ গণিত সমিতি ও এএফ মুজিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে দেশে প্রথমবারের মতো শুরু হলো জাতীয় গণিত সম্মেলন।

শুক্রবার (২১ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এ এফ মুজিবুর রহমান গণিত ভবনে দুদিন ব্যাপী এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

শনিবার (২২ ডিসেম্বর) বিকেল চারটায় ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট বিতরণের মাধ্যমে সম্মেলনটি শেষ হবে। বিদায় অনুষ্ঠানে পুরস্কার বিতরণ করবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ ও এএফ মুজিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী খুশি কবির।

উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘গণিত এমন একটি বিষয় যে, এটি শুধু বিজ্ঞানের জগতেই সীমাবদ্ধ তা কিন্তু নয়। সংগীতে গণিত আছে, বাদ্যযন্ত্রে গণিত আছে, ইতিহাসে গণিত আছে। সামাজিকক ও ব্যবহারিক জীবনের সবক্ষেত্রেই এটি আছে।'

ঢাবি উপাচার্য বলেন, ‘গণিত ভীতির জন্য যেন আমাদের শিক্ষার্থী ও বাচ্চাদের আত্মহত্যা প্রবণতা না হয়। কত সহজভাবে ও সরলভাবে গণিতকে উপস্থাপন করা যায়, আমাদের বোধ হয় সেটির প্রতি নজর দেওয়া উচিত।’

সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী গণিতবিদদের উদ্দেশ্যে উপাচার্য বলেন, ‘আপনারা যারা গণিত বিশেষজ্ঞ আছেন, তাদের প্রতি আমাদের অনুরোধ, এ ধরনের সম্মেলনে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে গণিতকে সার্বজনীন করা, মানুষের জন্য সহজবোধ্য করা। আমি আশা করি, আপনারা স্কুলের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে গণিতের বিষয়ে কিছু পরামর্শ দেবেন।'

খুশি কবির তরুণ গণিতবিদদের গবেষণার কাজে নিযুক্ত হওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। এ বিষয়ে এএফ মুজিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্ববাস দেন তিনি। অধ্যাপক আব্দুল আজিজ গণিতকে সহজভাবে উপস্থাপনের জন্য তরুণ গণিতবিদ ও সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

অধ্যাপক মোবারক হোসেন বলেন, ‘গণিতকে মানুষের কাছে সহজবোধ্য করার প্রচেষ্টায় এই সম্মেলনের আয়োজন। গণিতের উন্নতি মানে বিজ্ঞানের উন্নতি। গণিতকে যত সহজ করা যাবে, এর ব্যবহার তত বৃদ্ধি পাবে।’

বাংলাদেশ গণিত সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. মোবারক হোসেনের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য দেন গণিত সমিতির সহ সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. শহীদুল ইসলাম এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সদস্য সচিব অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ বাবুল হাসান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর সকাল সাড়ে দশটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে গণিত বিষয়ক পাঁচটি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভা প্রধান ছিলেন যথাক্রমে অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন, অধ্যাপক ড. লায়েক সাজ্জাদ আনদাল্লাহ, অধ্যাপক ড. মো. হায়দার আলী বিশ্বাস, অধ্যাপক ড. মো. আব্দুস ছামাদ ও অধ্যাপক ড. মুনিবুর রহমান চৌধুরী।

সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ২০০ গবেষক ও গণিতবিদ অংশগ্রহণ করেন।

এতে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- কানাডার প্রিন্স এডওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতের অধ্যাপক ড. মো. শফিকুল ইসলাম ও অষ্ট্রেলিয়ার ইউনিভারসিটি অব টেকনোলজির অধ্যাপক ড. সুভাষ চন্দ্র সাহা।

বাংলাদেশ গণিত সমিতির ওয়েব সাইটে (www.bdmathsociety.org) প্রতিযোগিতার বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে।

আপনার মতামত লিখুন :

ধর্মভিত্তিক দলের ব্যাপারে ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান শোভনের

ধর্মভিত্তিক দলের ব্যাপারে ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান শোভনের
ঢাবি সিনেট, ছবি: বার্তা২৪

ধর্মভিত্তিক দল যাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে না পারে, সেজন্য ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান জানিয়েছেন ছাত্রলীগের সভাপতি ও সিনেট সদস্য রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। এসব দলকে নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি।

বুধবার (২৬ জুন) নওয়াব নবাব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক বাজেট সিনেট অধিবেশনে ছাত্রপ্রতিনিধি হিসাবে তিনি এ প্রস্তাব দেন।

বিকেলে উপাচার্য আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়। অধিবেশনে ছাত্রপ্রতিনিধির বক্তব্যে এই সিনেট সদস্য বলেন, ডাকসু নির্বাচনে কিছু ধর্মভিত্তিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিল। আমি সিনেট অধিবেশনে এটি বন্ধের জোর দাবি জানাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ধর্মভিত্তিক দলের রাজনীতি ও নির্বাচন করার বৈধতা নেই। কিন্তু গত ২৩ মার্চ অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন (ইশা) অংশগ্রহণ করে। এতে প্রশ্নবিদ্ধ হয় নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনের দাবি ছিল তারা স্বতন্ত্রভাবে অংশগ্রহণ করেছিল, কোনো দল থেকে না।

সিনেট অধিবেশনে শোভনের প্রস্তাব- লাইব্রেরির অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বিশ্ববিদ্যালয়কে পূর্ণাঙ্গ আবাসিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে প্রতিষ্ঠা করা, ক্যানটিনে খাবারের মান বৃদ্ধি করা, অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের জন্য বাস বৃদ্ধি ও পুরাতন বাসগুলোর সংস্করণ, প্রক্টরিয়াল টিমকে আরও প্রশিক্ষিত করা, তাদের জন্য আরও গাম্ভীর্জপূর্ণ পোশাকের ব্যবস্থা করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের কাজ অটোমেশনের আওতায় নিয়ে আসা, শিক্ষার্থীদের নির্দিষ্ট আইডেন্টিটির ব্যবস্থা করা, ঢাবির হাসপাতালের মান উন্নয়ন করা ইত্যাদি।

শোভন বলেন, ২০২০ সাল বঙ্গবন্ধুর জম্মশতবার্ষিকী পালন উপলক্ষে সরকারের বছরব্যাপী বাংলাদেশজুড়ে কর্মসূচি থাকবে। সে হিসাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও মার্চ মাসজুড়ে কর্মসূচি হাতে নেওয়া যায় কি-না, সে ব্যাপারে ভাবতে হবে। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়তি সলিমুল্লাহ মুসলিম ও ফজলুল হক মুসলিম হলে ভাস্কর্য স্থাপন করা যেতে পারে। 

আরও পড়ুন: ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর

ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর

ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর
ঢাবির বাজেট অধিবেশন, ছবি: বার্তা২৪.কম

গবেষণা ক্ষেত্রে বরাদ্দ বৃদ্ধি, ওয়েব সাইটকে আধুনিকায়ন, লাইব্রেরীর অবকাঠামেগত উন্নয়ন, ক্যাম্পাসকে ছিনতাইয়ের কবল থেকে রক্ষায় সিসি টিভির আওতায় নিয়ে আসা সহ সিনেটে বেশ কিছু প্রস্তাব উপস্থাপন করেছেন ডাকসু সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানী।

বুধবার (২৬ জুন) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব নবাব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বার্ষিক বাজেট অধিবেশনে এসব প্রস্তাব করেন তিনি।

এ সময় ছাত্রপ্রতিনিধি হিসাবে গোলাম রাব্বানী বলেন, 'দীর্ঘ আটাশ বছরের অচলায়তন ভেঙে ডাকসু নির্বাচন দেওয়ার জন্য উপাচার্য মহোদয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।'

প্রসঙ্গত ডাকসু থেকে নির্ধারিত পাঁচ জন প্রতিনিধি সিনেটে সদস্য হিসএবে ছাত্রপ্রতিনিধি হয়ে কথা বলতে পারেন।

গোলাম রাব্বানী যেসব প্রস্তাবনা করেন-

গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি; ওয়েব সাইটকে আপডেট রাখা; লাইব্রেরির অবকাঠামোতমগত উন্নয়ন; ডাকসুর বহুতল ভবন নির্মাণ; ছিনতাই রোধে পুরো ক্যাম্পাসকে সিসি ক্যামেরায় নিয়ে আসা;পরিচ্ছন্ন কর্মীদের কাজের তদারকি বাড়ানোর জন্য পরিচয় লিস্ট সহকারে প্রকাশ এবং প্রত্যেক হলে কেয়ারটেকার নির্ধারণ।

এছাড়া রাব্বানী সাত কলেজ ইস্যু নিয়ে কথা বলেন। এটির দ্রুত সমাধানের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

আরও পড়ুন: ঢাবির বাজেট ৮১০ কোটি ৪২ লাখ টাকা

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র