Alexa
independent day 2019

ডাকসু: ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণে একমত সবাই

ডাকসু: ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণে একমত সবাই

ডাকসু ভবন/ ছবি: সংগৃহীত

সোহানুর রহমান, ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

সকল প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের দিকে এগুচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ বছরের ৩১ মার্চের মধ্যেই নির্বাচন সম্পন্ন করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

সেই লক্ষ্যে সিন্ডিকেট সভায় উপস্থাপনের জন্য উপাচার্য কর্তৃক নির্ধারিত ১০ কার্য দিবসের মধ্যেই গঠনতন্ত্র কমিটি তাদের প্রতিবেদন জমা দেবে বলেও জানান কমিটির আহ্বায়ক আইন বিভাগের অধ্যাপক মিজানুর রহমান।

গঠনতন্ত্র যুগোপযোগী করার জন্যে ক্রিয়াশীল ছাত্র সংগঠনগুলোর সাথে বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় সংগঠনগুলো তাদের দাবি তুলে ধরে। তবে লিখিতভাবে পরামর্শ উপস্থাপনের জন্য আগামী সোমবার (১৪ জানুয়ারি) পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে।

গঠনতন্ত্র সংশোধনের বিষয়ে ছাত্রসংগঠনগুলো আলাদা আলাদা দাবি জানালেও ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণে একমত পোষণ করেছেন সবাই।

ডাকসুর বর্তমান গঠনতন্ত্রের ৫ নং ধারার ১ নং উপধারা অনুযায়ী, সভাপতি (উপাচার্য) যে কোনো সময় নির্বাহী কোনো সদস্যকে বরখাস্ত এমনকি নির্বাহী কমিটিও বাতিল করে দিতে পারবেন।

৮ নং ধারার ১২ নং উপধারা অনুযায়ী, নির্বাচনের ফলাফল সংক্রান্ত সভাপতি কর্তৃক গৃহীত কোনো সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতের কোনো রায় কার্যকর হবে না।

এই ধারাগুলো গণতন্ত্রের পরিপন্থী উল্লেখ করে ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচনে সভাপতি ও নির্বাহী কমিটির অন্যান্য সদস্যের ক্ষমতার ভারসাম্য আনার দাবি জানিয়েছে ছাত্র সংগঠনগুলো।

গঠনতন্ত্রে ডাকসু সভাপতির ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ করা উচিত বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস। তিনি বলেন, 'সকলের ক্ষমতার ভারসাম্য হোক, সমান অধিকার নিয়ে রাজনীতি ও মতাদর্শ চর্চা করুক। এজন্য ডাকসুর ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ হোক। বর্তমান গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সভাপতির ক্ষমতা অনেকটা একক। তাই ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ হওয়া উচিত।'

ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণের যৌক্তিকতা তুলে ধরে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সভাপতি আল মেহেদী তালুকদার বলেন, 'যদি সভাপতির কাছেই একক ক্ষমতা থেকে যায়, তাহলে তো ডাকসু নির্বাচনের আর প্রয়োজন নেই। এমনটা হলে সভাপতি ও প্রশাসন যাচ্ছেতাই করতে পারবেন। এই ক্ষমতা স্বৈরাচারী। ডাকসু নির্বাচন যতটা যৌক্তিক ততোটাই অযৌক্তিক সভাপতির একক ক্ষমতা।’

এ বিষয়ে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সালমান সিদ্দিকী বলেন, 'সভাপতির বর্তমান ক্ষমতা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় পরে না। তাছাড়া, হল প্রাধ্যক্ষেরও অনেক ক্ষমতা। তাই সভাপতি ও নির্বাহী কমিটির মধ্যকার ক্ষমতা এবং হল প্রাধ্যক্ষের ক্ষমতায় ভারসাম্য আনা উচিত।'

ছাত্র ইউনিয়নের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ বলেন, 'সভাপতি ও নির্বাহী কমিটির ক্ষমতায় যদি ভারসাম্য না থাকে তাহলে সভাপতির কাছে নিরঙ্কুশ ক্ষমতা থেকে যাবে। ফলে সাধারণ ছাত্রদের দাবি পূরণ হবে না। তাই আমরা চাই, ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ করা হোক।'

বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানের কাছে ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণের যৌক্তিকতা জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'উপাচার্য সব কথা বলে না।'

ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণের দাবি বাস্তবায়ন করা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'কমিটি ভালো বুঝবে। কমিটি কাজ করুক। কোথায় কী আছে ভালো করে পর্যালোচনা করুক। কোথায় কোন ক্ষমতা আছে সেটা কমিটি দেখুক। কোথায় কী প্রয়োজন সেটা কমিটি বিবেচনায় নেবে।'

ডাকসুর সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯০ সালের ৬ জুলাই। ডাকসু নির্বাচন চেয়ে ২০১২ সালের ২১ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫ জন শিক্ষার্থী হাইকোর্টে রিট দায়ের করার পর ঐ বছরের ৮ এপ্রিল রুল জারি করেন হাইকোর্ট। রুলে ডাকসু নির্বাচন করার ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।

পরবর্তীতে আইনি জটিলতা পেরিয়ে গত বছরের সেপ্টেম্বরে ছয় মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের নির্দেশ দেন আদালত। এ আদেশ অনুযায়ী আগামী ১৫ মার্চের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে।

ক্যাম্পাস এর আরও খবর