রাত পোহালেই জাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন

জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

রাত পোহালেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদ-২০১৯ এর নির্বাচন। উপাচার্যের বৈধতাকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে চলমান শিক্ষক আন্দোলনের মুখে এবারের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ফলে উপাচার্য চেয়ার ও সরকার ঘোষিত মেগা প্রজেক্টকে কেন্দ্র করে উন্মাদনার নতুন মাত্রা সৃষ্টি করেছে আসন্ন নির্বাচন।

নির্বাচনে দুইটি প্যানেলে ১৫ টি পদের বিপরীতে মোট ৩০ জন প্রার্থী রয়েছেন। এছাড়া ৫৯০ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্লাবে সকাল ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে।

শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে সভাপতি, সহ-সভাপতি, কোষাধ্যক্ষ, সম্পাদক ও যুগ্ম সম্পাদক পদে একজন করে এবং নির্বাহী পরিষদের সদস্য পদে ১০ জনসহ মোট ১৫টি পদে এ নির্বাচন হবে।

এর আগে গত ৯ জানুয়ারি নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের অধ্যাপক এ কে এম আবুল কালাম।

আওয়ামী লীগের একাংশ নিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম সমর্থিত শিক্ষকরা ‘বঙ্গবন্ধু আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’ নামে একক প্যানেল দিয়েছে। অপরদিকে, আওয়ামী লীগের একাংশ, বিএনপি ও বামপন্থি শিক্ষকদের নিয়ে গঠিত হয়েছে ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ নামের আরেকটি প্যানেল।

সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ প্যানেল থেকে সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার, সহ-সভাপতি পদে রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক কৌশিক সাহা, সম্পাদক পদে ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক মো. সোহেল রানা, যুগ্ম সম্পাদক পদে ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক লাইজু নাসরীন, কোষাধ্যক্ষ পদে প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মো. মনোয়ার হোসেন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন।

এছাড়া সদস্য পদে রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক মাহবুব কবির, সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক মো. শামসুল আলম, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ফরিদ আহমদ, দর্শন বিভাগের অধ্যাপক মো. মনজুর ইলাহী, পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ হাফিজুর রহমান, ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক সুকল্যাণ কুমার কুণ্ডু, অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন, নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস, পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মো. জামাল উদ্দীন (রুনু) এবং ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. নজরুল ইসলাম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অপরদিকে, ‘বঙ্গবন্ধু আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’ প্যানেল থেকে সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মো. আব্দুল মান্নান চৌধুরী, সহ-সভাপতি পদে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক যুগল কৃষ্ণ দাশ, সম্পাদক পদে সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক বশির আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে পাবলিক হেলথ অ্যান্ড ইনফরমেটিকস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. তাজউদ্দিন শিকদার, কোষাধ্যক্ষ পদে ইন্সটিটিউট অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশনের অধ্যাপক মো. মোতাহার হোসেন নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এছাড়া একই প্যানেলে সদস্য পদে প্রার্থী হয়েছেন পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ এ মামুন, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক পৃথ্বিলা নাজনীন নীলিমা, নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক রাশেদা আখতার, নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক মো. আমিনুল ইসলাম (দুর্জয়), পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক মো. মুজিবুর রহমান, প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সোহেল আহমেদ, অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আয়শা সিদ্দিকা (রাশু), প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মো. কামরুল হাসান, চারুকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এম. এম ময়েজ উদ্দীন এবং ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহফুজা খাতুন।

নির্বাচনে সহকারী নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করবেন নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আকতার মাহমুদ এবং ইনস্টিটিউট অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশনের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম।

নির্বাচনের বিষয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক এ কে এম আবুল কালাম বার্তা২৪.কমকে বলেন, 'আমরা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত আছি। এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষ থেকে তেমন কোনো অভিযোগ পাইনি। নির্বাচন ঘিরে প্রার্থী এবং ভোটারদের মধ্য উন্মাদনা দেখতে পাচ্ছি। ফলে আশা করছি সকলের সহযোগিতায় একটা সুন্দর নির্বাচন বিশ্ববিদ্যালয়কে উপহার দিতে পারব।' 

 

আপনার মতামত লিখুন :