৩ দিনেও উদ্ধার হয়নি খুলনা মেডিকেলের নিখোঁজ ছাত্র

খুলনা মেডিকেল কলেজের নিখোঁজ ছাত্র আল-মাহমুদ সাকিব, ছবি: সংগৃহীত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, খুলনা, বার্তা২৪.কম

খুলনা মেডিকেল কলেজের ৫ম বর্ষের মেধাবী ছাত্র আল-মাহমুদ সাকিব গত তিনদিন ধরে নিখোঁজ আছেন। নিখোঁজ সাকিব অপহরণ হয়েছে নাকি আত্মগোপনে আছেন, তা বোঝা যাচ্ছে না। তার পরিবারের সদস্যরাও খোঁজ না পেয়ে উদ্বিগ্ন।

জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে সাকিব নিখোঁজ হয়। নিখোঁজ আল মাহমুদ সাকিবের পিতা মো: আজম হোসেন পাটোয়ারী একজন প্রকৌশলী। তার গ্রামের বাড়ি লক্ষ্মীপুর সদরের উত্তর কাঞ্চন নগর এলাকায়। বর্তমান ঠিকানা চট্টগ্রামের নন্দনকানস্থ টিএন্ডটি কলোনিতে। সাকিব চট্টগ্রামের ফৌজদার ক্যাডেট কলেজ থেকে ২০১২ সালে এসএসসি এবং ২০১৪ সালে এইচএসসি পাশ করেন। তিন ভাই-বোনের মধ্যে তার দুবোন এবং ভাইয়ের মধ্যে তিনি একা। ২০১৯-এর নভেম্বরে এমবিবিএস ফাইনাল পরীক্ষা দেয়ার কথা আল মাহমুদ সাকিবের।

রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা পর্যন্ত তার খোঁজ মেলেনি। তবে সাকিবকে খুঁজে বের করতে সর্বাত্মক চেষ্টা করছে পুলিশ। বিকেলে সাকিবের পরিবারের সদস্যরা থানায় খোঁজ নিতে আসলে তার খোঁজ না পেয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/10/1549809245617.jpg

গত শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) নিখোঁজ সাকিবের মামা মোঃ ইসমাইল হোসেন সুমন বাদী হয়ে খুলনার সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় একটি জিডি করে। জিডিতে উল্লেখ করা হয়, বৃহস্পতিবার দুপুরে খুমেকের হোস্টেল থেকে বন্ধুর সাথে দেখা করার উদ্দেশ্যে বের হয় সাকিব। কিছুক্ষণ পর রুমমেট ছাত্রের কাছে ফোনে ল্যাপটপ, একটি ট্যাব ও তিনটি মোবাইল ফোন জসিম নামে এক ছেলের কাছে দেয়ার জন্য বলে। রাত ১০টার দিকে জসিম পরিচয় দিয়ে একজন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে ল্যাপটপ, ট্যাব ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। এরপর থেকে খুমেক’র ছাত্র আল মাহমুদ সাকিব ও জসিম দুজনেরই নম্বর বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর থেকে সাকিবের কোনো খোঁজ মেলেনি।

সোনাডাঙ্গা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মমতাজুল হক বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'থানায় সাধারণ ডায়রি করার পর সাকিবকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। আমরা সাকিবের চলাচল, কোথায় যেত, কাদের সাথে মিশতো, কোথায় যেতে পারে এসব কিছু কাজ করছি। আজও সাকিবের বাবা খোঁজ নিতে এসেছেন। আমরা সাকিবকে উদ্ধারের চেষ্টা করছি।'

সাকিবের রুমমেট কে-২৫ ব্যাচের ছাত্র সোহান বলেন, 'আমরা একই রুমে থাকি। বৃহস্পতিবার বিকেলে সাকিব ভাই রুম থেকে বের হয়ে যান। রাত ৯টার দিকে আমাকে জসিম নামে এক ব্যক্তির মোবাইল নম্বর (০১৮৮৪৮২২৭৬০) দিয়ে বলে-জসিম যাচ্ছে তার কাছে তিনটি মোবাইল ল্যাপটপ ও ট্যাব দিয়ে দেয়ার জন্য। আমার আসতে দেরি হবে। আমি তার কথা মত খুমেক হাসপাতালের সামনে গিয়ে জসিম নামের উক্ত ব্যক্তিকে ঐগুলো দিয়ে আসি। এরপর ৯টা ৫৬ মিনিট থেকে জসিম ও আল মাহমুদ সাকিবের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।'

খুলনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ মোঃ আব্দুল আহাদ বলেন, 'হোস্টেল থেকে মেধাবী ও সদালাপী সাকিব নিখোঁজ হওয়ায় কলেজ কর্তৃপক্ষ উদ্বিগ্ন। আমরাও সাকিবের সন্ধান জানার চেষ্টা করছি।'

উল্লেখ্য, সাকিব ধার্মিক ছিল। লেখাপড়া ও সহ শিক্ষামূলক কার্যক্রমেও সে ছিল অন্যদের থেকে বেশ আলাদা বেশি মেধাবী। কলেজ কর্তৃক আয়োজিত বিভিন্ন বিতর্ক প্রতিযোগিতায়ও সে শিক্ষকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করত।

ক্যাম্পাস এর আরও খবর