‘৭ই মার্চের গুরুত্ব তরুণ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে’

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান / ছবি: বার্তা২৪

আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান / ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তরুণ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে স্ব স্ব অবস্থান থেকে কাজ করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) সকালে বিশ্বিবদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য’ শীর্ষক আলাচনা সভায় তিনি এ আহ্বান জানান।

উপাচার্য আখতারুজ্জামান বলেন, ‘এই ভাষণ বাঙালি জাতিসত্তার বিকাশ ও স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদশ প্রতিষ্ঠায় অনন্য অবদান রেখেছে। এই ভাষণের মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিরীহ ও নিরস্ত্র বাঙালিকে সশস্ত্র মুক্তিযাদ্ধা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ শুধু ১৯৭১ সালে বাঙালি জাতিকেই অনুপ্রাণিত করেছিল তা নয়, এই ভাষণ যুগে যুগে বিশ্বের সকল অবহেলিত ও বঞ্চিত জাতিগোষ্ঠীক অনুপ্রেরণা জাগাতে থাকবে। এ কারণে এই ভাষণকে ইউনেস্কো মেমরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড রেজিস্টারে অন্তর্ভুক্ত করেছে।'

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো এনামউজ্জামানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম।

এছাড়া সিনেট সদস্য অধ্যাপক এম এ বারীসহ মুক্তিযাদ্ধা প্রাতিষ্ঠানিক ইউনিট কমান্ড, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন, কারিগরি কর্মচারী সমিতি, তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী সমিতি ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।

এদিকে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকালে রোকেয়া হলের ৭ মার্চ ভবন চত্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :