Alexa

ডাকসু নির্বাচনের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন

ডাকসু নির্বাচনের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন

ডাকসু নির্বাচনের ভোটগ্রহণের জন্য আবাসিক হলগুলোতে চলছে বুথ স্থাপনের প্রস্তুতি/ ছবি: বার্তা২৪.কম

দীর্ঘ ২৮ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচন। আগামী ১১ মার্চ সোমবার অনুষ্ঠিত হবে এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। নির্বাচনের সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রশাসন। আর প্রার্থীরাও শনিবার (৯ মার্চ) দিনভর শেষ দিনের মত প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছেন। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শনিবার ভোটকেন্দ্র প্রস্তুতের জন্য ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে হল প্রশাসন। ভোটগ্রহণের জন্য হলগুলোতে শিক্ষার্থী অনুপাতে ১৫ থেকে ৫০টি পর্যন্ত বুথ স্থাপন করা হবে।

গোপন ভোটকক্ষ বা বুথগুলো মূলত হলের মিলনায়তন, টিভিরুম ও ক্যান্টিনে স্থাপন করা হবে। তাই সেই সব স্থান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নও করা হয়েছে। ভোট পরিচালনায় দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদিও আনা হয়েছে। সবমিলিয়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি প্রায় শেষের পথে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/09/1552150182897.jpg

এদিকে শেষদিনের মতো প্রচারণা চালাতে দিনব্যাপী ব্যস্ত সময় পার করেছেন নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীরা। ছাত্রলীগ ও ছাত্রদল, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ও বামজোটসহ অন্যান্য প্যানেল ও স্বতন্ত্র প্যানেলের প্রার্থীরা ক্যাম্পাস ও হলগুলোতে দিনভর প্রচারণা ও বিভিন্ন হলে প্রজেকশন মিটিং করেন।

এর আগে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশের দিন থেকে প্রতিদিন সকাল ১০ থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত প্রচারণা চালিয়েছেন তারা। প্রশাসনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, ভোটগ্রহণের ২৪ ঘণ্টা পূর্বে প্রচারণা শেষ করতে হবে। সে অনুযায়ী শনিবার রাত ১২টা প্রচারণার শেষ সময়। নিয়মানুযায়ী রোববার কোনো প্রার্থী প্রচারণা চালাতে পারবেন না।

নির্বাচনের প্রস্তুতির বিষয়ে ডাকসু নির্বাচনের প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক এস এম মাহফুজুর রহমান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘কথা একটাই, আমরা ১১ মার্চ নির্বাচন আয়োজন করবো। নির্বাচনের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন।’ 

নির্বাচনকালীন নিরাপত্তার বিষয়ে তিনি বলেন, 'নিরাপত্তার বিষয়ে প্রসাশন আগে থেকেই ব্যবস্থা নিয়ে আসছে।'

এদিকে ডাকসু নির্বাচনকে ঘিরে নিরাপত্তা জোরদার করতে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সাতটি পয়েন্টে তল্লাশি চালাবে পুলিশ। স্থানগুলো হলো- শাহবাগ, নীলক্ষেত, পলাশী, জগন্নাথ হল ক্রসিং, রুমানা ভবন ক্রসিং, দোয়েল চত্বর ও শহীদুল্লাহ হল ক্রসিং।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/09/1552150205238.jpg

এসব স্থানে রোববার (১০ মার্চ) সন্ধ্যা ৬টা থেকে সোমবার (১১মার্চ) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট ও অনুমোদিত ব্যক্তি ছাড়া কেউ প্রবেশ করতে পারবেন না। মেডিকেলগামী লোকজনদের বকশিবাজার, চাঁনখারপুল হয়ে আসার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তবে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগ তল্লাশির বাহিরে থাকবে।

শনিবার বেলা ১১টায় শাহবাগ থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপি কমিশনার বলেন, 'ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য, গণতন্ত্রের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী সব ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। দলীয় পরিচয় যাই হোক না কেন, নির্বাচনে কেউ অনিয়ম করার চেষ্টা করলে কোনো ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না।'

আপনার মতামত লিখুন :

ক্যাম্পাস এর আরও খবর