Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের দুঃখ প্রকাশ

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের দুঃখ প্রকাশ
বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এস এম ইমামুল হক, ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বরিশাল
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক ঘটনার প্রেক্ষিতে তার বক্তব্যের বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এস এম ইমামুল হক।

পাশাপাশি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল একাডেমিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে চলমান রাখার স্বার্থে সকল শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।

শুক্রবার (২৯ মার্চ) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ অফিসের উপপরিচালক (চ. দা.) স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রেরিত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বক্তব্যটি হুবহু তুলে ধরা হলো, 'জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ২০১১ সালে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পর থেকে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় দক্ষিণ বঙ্গের উচ্চশিক্ষার একটি সমৃদ্ধ ও সর্ববৃহৎ বিদ্যাপীঠ হিসেবে তার একাডেমিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

তবে বিগত ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিবেটিং সোসাইটি কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠানে আমার প্রদত্ত বক্তব্যের একটি বাক্যকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে কিছু ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে।

আমি এ বিষয়ে দ্ব্যর্থহীনভাবে বলতে চাই যে, আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে রাজাকার সম্বোধন করিনি বরং যারা মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপনের অনুষ্ঠানে বাধা সৃষ্টি করতে চায়, তাদের এহেন কার্যক্রম রাজাকার সাদৃশ্য মর্মে মন্তব্য করেছি। উক্ত শব্দটি আমি কোনভাবেই আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদেরকে উদ্দেশ্য করে বলিনি।

এরপরেও যদি আমার উক্ত বক্তব্যে কোন শিক্ষার্থী মানসিকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে থাকে, তবে তার জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। পাশাপাশি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল একাডেমিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে চলমান রাখার স্বার্থে আমি সকল শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা কামনা করছি।’

আপনার মতামত লিখুন :

ধর্মভিত্তিক দলের ব্যাপারে ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান শোভনের

ধর্মভিত্তিক দলের ব্যাপারে ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান শোভনের
ঢাবি সিনেট, ছবি: বার্তা২৪

ধর্মভিত্তিক দল যাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে না পারে, সেজন্য ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান জানিয়েছেন ছাত্রলীগের সভাপতি ও সিনেট সদস্য রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। এসব দলকে নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি।

বুধবার (২৬ জুন) নওয়াব নবাব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক বাজেট সিনেট অধিবেশনে ছাত্রপ্রতিনিধি হিসাবে তিনি এ প্রস্তাব দেন।

বিকেলে উপাচার্য আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়। অধিবেশনে ছাত্রপ্রতিনিধির বক্তব্যে এই সিনেট সদস্য বলেন, ডাকসু নির্বাচনে কিছু ধর্মভিত্তিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিল। আমি সিনেট অধিবেশনে এটি বন্ধের জোর দাবি জানাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ধর্মভিত্তিক দলের রাজনীতি ও নির্বাচন করার বৈধতা নেই। কিন্তু গত ২৩ মার্চ অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন (ইশা) অংশগ্রহণ করে। এতে প্রশ্নবিদ্ধ হয় নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনের দাবি ছিল তারা স্বতন্ত্রভাবে অংশগ্রহণ করেছিল, কোনো দল থেকে না।

সিনেট অধিবেশনে শোভনের প্রস্তাব- লাইব্রেরির অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বিশ্ববিদ্যালয়কে পূর্ণাঙ্গ আবাসিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে প্রতিষ্ঠা করা, ক্যানটিনে খাবারের মান বৃদ্ধি করা, অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের জন্য বাস বৃদ্ধি ও পুরাতন বাসগুলোর সংস্করণ, প্রক্টরিয়াল টিমকে আরও প্রশিক্ষিত করা, তাদের জন্য আরও গাম্ভীর্জপূর্ণ পোশাকের ব্যবস্থা করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের কাজ অটোমেশনের আওতায় নিয়ে আসা, শিক্ষার্থীদের নির্দিষ্ট আইডেন্টিটির ব্যবস্থা করা, ঢাবির হাসপাতালের মান উন্নয়ন করা ইত্যাদি।

শোভন বলেন, ২০২০ সাল বঙ্গবন্ধুর জম্মশতবার্ষিকী পালন উপলক্ষে সরকারের বছরব্যাপী বাংলাদেশজুড়ে কর্মসূচি থাকবে। সে হিসাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও মার্চ মাসজুড়ে কর্মসূচি হাতে নেওয়া যায় কি-না, সে ব্যাপারে ভাবতে হবে। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়তি সলিমুল্লাহ মুসলিম ও ফজলুল হক মুসলিম হলে ভাস্কর্য স্থাপন করা যেতে পারে। 

আরও পড়ুন: ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর

ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর

ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর
ঢাবির বাজেট অধিবেশন, ছবি: বার্তা২৪.কম

গবেষণা ক্ষেত্রে বরাদ্দ বৃদ্ধি, ওয়েব সাইটকে আধুনিকায়ন, লাইব্রেরীর অবকাঠামেগত উন্নয়ন, ক্যাম্পাসকে ছিনতাইয়ের কবল থেকে রক্ষায় সিসি টিভির আওতায় নিয়ে আসা সহ সিনেটে বেশ কিছু প্রস্তাব উপস্থাপন করেছেন ডাকসু সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানী।

বুধবার (২৬ জুন) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব নবাব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বার্ষিক বাজেট অধিবেশনে এসব প্রস্তাব করেন তিনি।

এ সময় ছাত্রপ্রতিনিধি হিসাবে গোলাম রাব্বানী বলেন, 'দীর্ঘ আটাশ বছরের অচলায়তন ভেঙে ডাকসু নির্বাচন দেওয়ার জন্য উপাচার্য মহোদয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।'

প্রসঙ্গত ডাকসু থেকে নির্ধারিত পাঁচ জন প্রতিনিধি সিনেটে সদস্য হিসএবে ছাত্রপ্রতিনিধি হয়ে কথা বলতে পারেন।

গোলাম রাব্বানী যেসব প্রস্তাবনা করেন-

গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি; ওয়েব সাইটকে আপডেট রাখা; লাইব্রেরির অবকাঠামোতমগত উন্নয়ন; ডাকসুর বহুতল ভবন নির্মাণ; ছিনতাই রোধে পুরো ক্যাম্পাসকে সিসি ক্যামেরায় নিয়ে আসা;পরিচ্ছন্ন কর্মীদের কাজের তদারকি বাড়ানোর জন্য পরিচয় লিস্ট সহকারে প্রকাশ এবং প্রত্যেক হলে কেয়ারটেকার নির্ধারণ।

এছাড়া রাব্বানী সাত কলেজ ইস্যু নিয়ে কথা বলেন। এটির দ্রুত সমাধানের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

আরও পড়ুন: ঢাবির বাজেট ৮১০ কোটি ৪২ লাখ টাকা

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র