Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

রায়হানের পাশে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ

রায়হানের পাশে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ
রায়হানের পাশে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। ছবি: বার্তা২৪.কম
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষের মেধাবী ছাত্র রায়হানুল ইসলামকে বাঁচাতে আর্থিক তহবিল গঠনে এগিয়ে এসেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি সর্বস্তরে কাজ করছে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরাও। নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মনিরুজ্জামান রাজিব, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মাহফুজুর রাজ্জাক অনিক, সাবেক প্রচার সম্পাদক তোফায়েল আহমেদ ও বর্তমান শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মো. রিপন চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ নয়ন মণ্ডল এবং অন্যান্য নেতাকর্মীরা টাকা সংগ্রহসহ সর্বস্তরে মনিটরিং করছেন। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘রংধনু’র স্বেচ্ছাসেবকরা তহবিল সংগ্রহে কাজ করছেন।

মনিরুজ্জামান রাজীব জানান, অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র রায়হানুল ইসলামের চিকিৎসার খরচ সংগ্রহে ময়মনসিংহের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিদের কাছ থেকে ৬৯৬৯১ টাকা এবং ত্রিশাল থেকে ২৯০০০ টাকা উঠানো সম্ভব হয়েছে।

মাহফুজুর রাজ্জাক অনিক বলেন, ‘রায়হানের চিকিৎসার অর্থ সংগ্রহের লক্ষ্যে ময়মনসিংহ শহর থেকে বেশ কয়েকটি টিম আমাদের সঙ্গে কালেকশন করেছে। ধন্যবাদ প্রত্যেকটা ভলান্টিয়ারকে যারা প্রতিনিয়ত স্বতঃস্ফূর্তভাবে অক্লান্ত শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন।’

মো. রিপন চৌধুরী বলেন, ‘মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য’ স্লোগান নিয়ে আমরা একদল স্বেচ্ছাসেবক
রায়হানুল ইসলামকে বাঁচাতে আর্থিক সহায়তার জন্য ময়মনসিংহ শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও জয়নুল আবেদীন পার্কে কাজ করছি।’

জানা গেছে, মরণব্যাধি অ্যাকিউট লিউকোমিয়া ( Acute Leukaemia) রোগে আক্রান্ত রায়হান বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে হেমাটোলজি বিভাগের ডি ব্লকে (বেড নম্বর গ্রিন ৩) চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রায়হানের বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট করতে হবে। চিকিৎসাবাবদ প্রায় ৩০ থেকে ৪০ লাখ টাকা প্রয়োজন। রায়হানুল ইসলামের বাবা একজন কৃষক। এতো টাকা তার পরিবারের পক্ষে জোগাড় করা সম্ভব নয়, তাই ছেলের চিকিৎসার জন্য সকলের কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, রায়হানের বাড়ি রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলায়। তার বাবা তালুক দামোদরপুর গ্রামের একজন কৃষক। তার বাবার পক্ষে এতো টাকা সংগ্রহ করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। মানুষের সাহায্যই এখন রায়হানের বেঁচে থাকার ভরসা।

সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা– ডাচ-বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং আইডি ০১৭৫৪৪২৫৮৪৭০, বিকাশ আইডি ০১৭৭৫১২১৭২৫।

আপনার মতামত লিখুন :

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে শিক্ষার্থীর মৃত্যু

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে শিক্ষার্থীর মৃত্যু
শনিবার সকাল থেকেই সম্মেলনে সক্রিয় ছিলেন সুলতান মোঃ ওয়াসি (লাল চিহ্নিত)/ ছবি: সংগৃহীত

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রলীগের সম্মেলনে এসে স্ট্রোক করে সুলতান মোঃ ওয়াসি নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তিনি জবির ইংরেজি বিভাগে ১১তম ব্যাচের ২০১৫-২০১৬ সেশনের শিক্ষার্থী।

শনিবার (২০জুলাই) বিকাল সাড়ে ৫টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সুলতান মোঃ ওয়াসিকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে জবি’র সহকারী প্রক্টর মোস্তফা কামাল বার্তাটোয়োন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘ঐ শিক্ষার্থী হঠাৎ শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত ন্যাশনাল মেডিকেলে নিয়ে যাই। সেখানে ইসিজি করে কর্তব্যরত ডাক্তার বলেন, আমরা তার কোনো পালস পাচ্ছি না। পরে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাম্বুলেন্স করে তাকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠিয়েছিলাম।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সম্মেলনের শুরু থেকে ক্যাম্পাসে সুস্থ স্বাভাবিকভাবে ওয়াসিকে চলাচল করতে দেখা গেছে। হঠাৎ করেই সম্মেলন স্থলের মূল মঞ্চের সামনে স্লোগান দিতে দিতে অসুস্থ হয়ে পড়েন ওয়াসি। পরে সাথে সাথে তাকে নিয়ে জবি ক্যাম্পাসের পাশেই একটি বেসরকারি মেডিকেলে নেওয়া হয়।

এদিকে ছাত্রলীগের সম্মেলনে এসে শিক্ষার্থী মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন ঐ শিক্ষার্থীর সহপাঠীরা। তারা বলেন, ১১টার সম্মেলন শুরু হয় বিকাল ৩টায়। প্রচণ্ড গরমে অন্তত সাড়ে চার ঘণ্টা অপেক্ষায় থেকে স্লোগান দিতে থাকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। ফলে টানা সাত-আট ঘণ্টার গরম সহ্য করতে না পেরে ওয়াসি মৃত্যুবরণ করেছেন।

এদিকে, প্রচণ্ড গরমে জবির ১৩তম ব্যাচের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী রাফিত অসুস্থ হয়ে পুরান ঢাকার ন্যাশনাল মেডিকেলে ভর্তি রয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে বহিরাগতদের আনাগোনা

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে বহিরাগতদের আনাগোনা
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সম্মেলন/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ছাত্রলীগের সম্মেলনে মিছিল করছেন, স্লোগান দিচ্ছেন বহিরাগত শ্রমিক অছাত্ররা। শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাত থেকে ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের আনাগোনা দেখা যায়।

শনিবার (২০ জুলাই) সকাল থেকেই ছাত্রলীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে বিরাজ করছে বাড়তি উত্তেজনা। নিজের গ্রুপের প্রার্থীদের পরিচিতি বাড়াতে পদপ্রত্যাশীদের অনেক কর্মীই ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে মিছিল, স্লোগান দিচ্ছেন।

এদিকে, অনেক প্রার্থী নিজের ক্ষমতা জানান দিতে দলে ভিড়িয়েছেন পুরান ঢাকার সদরঘাট ও বিভিন্ন গ্যারেজে কাজ করা শ্রমিক এবং বিভিন্ন স্কুল শিক্ষার্থীদের।

ক্যাম্পাস ঘুরে যায়, এই বহিরাগতদের অনেকেই কোনো না কোনো পার্থীর টিশার্ট, টুপি পড়ে স্লোগান দিচ্ছেন। সন্দেহভাজন কয়েকজনকে পরিচয় জানতে চাইলে তারা পরিচয় না দিয়ে কোনো না কোনো প্রার্থীর নাম বলছেন।

জবি ছাত্রলীগের এক কর্মী বলেন, এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতির পরিবেশের জন্য সুখকর নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের কর্মীরা এটি প্রত্যাশা করে না। এ রকমভাবে চলতে থাকলে এটি ভবিষ্যতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের রাজনীতিতে প্রভাব ফেলবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র