Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মমেকে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে অচল ক্যাম্পাস

মমেকে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে অচল ক্যাম্পাস
ক্লাসরুমে তালা ঝুলিয়ে আন্দোলন করছে মমেক শিক্ষার্থীরা / ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ময়মনসিংহ


  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের (মমেক) মেয়েদের হোস্টেলের সামনে এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির প্রতিবাদে ও ক্যাম্পাসে স্থায়ীভাবে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে কলেজের একাডেমিক ভবনের প্রধান গেটসহ সকল ক্লাসরুমে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন তারা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বুধবার (১৫ মে) সন্ধ্যার দিকে এক ছাত্রী বাইরে থেকে ইফতার কিনে হোস্টেলে ফিরছিলেন। এ সময় ওই ছাত্রীকে একা পেয়ে এক যুবক তার ওপর শ্লীলতাহানীর চেষ্টা চালায়। এ অবস্থায় তিনি চিৎকার দিলেও কোনো নিরাপত্তাকর্মীর সাড়া মেলেনি।

বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ করছে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, দীর্ঘদিন যাবত ক্যাম্পাসে স্থায়ীভাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থার দাবি জানানো হলেও এ বিষয়ে প্রশাসন কর্ণপাতই করছে না। সে সুযোগে প্রায়ই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেই চলছে। এবার এর দৃশ্যমান সমাধান চাই। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা না দিতে পারলে অধ্যক্ষকে পদত্যাগ করতে হবে।

তাদের দাবিগুলো হচ্ছে- বহিরাগত ওই দ্রুত যুবককে গ্রেফতার, কলেজ হোস্টেলের গেটে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তাকর্মী, ছাত্রী হোস্টেলের গেটসহ পুরো ক্যাম্পাসে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, পর্যাপ্ত আনসার নিয়োগ ও পুলিশি টহল বাড়ানো।

এ বিষয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি দল ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনায় বসেছে কলেজ প্রশাসন।

আপনার মতামত লিখুন :

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে শিক্ষার্থীর মৃত্যু

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে শিক্ষার্থীর মৃত্যু
শনিবার সকাল থেকেই সম্মেলনে সক্রিয় ছিলেন সুলতান মোঃ ওয়াসি (লাল চিহ্নিত)/ ছবি: সংগৃহীত

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রলীগের সম্মেলনে এসে স্ট্রোক করে সুলতান মোঃ ওয়াসি নামের এক ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তিনি জবির ইংরেজি বিভাগে ১১তম ব্যাচের ২০১৫-২০১৬ সেশনের শিক্ষার্থী।

শনিবার (২০জুলাই) বিকাল সাড়ে ৫টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সুলতান মোঃ ওয়াসিকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে জবি’র সহকারী প্রক্টর মোস্তফা কামাল বার্তাটোয়োন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘ঐ শিক্ষার্থী হঠাৎ শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত ন্যাশনাল মেডিকেলে নিয়ে যাই। সেখানে ইসিজি করে কর্তব্যরত ডাক্তার বলেন, আমরা তার কোনো পালস পাচ্ছি না। পরে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাম্বুলেন্স করে তাকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠিয়েছিলাম।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সম্মেলনের শুরু থেকে ক্যাম্পাসে সুস্থ স্বাভাবিকভাবে ওয়াসিকে চলাচল করতে দেখা গেছে। হঠাৎ করেই সম্মেলন স্থলের মূল মঞ্চের সামনে স্লোগান দিতে দিতে অসুস্থ হয়ে পড়েন ওয়াসি। পরে সাথে সাথে তাকে নিয়ে জবি ক্যাম্পাসের পাশেই একটি বেসরকারি মেডিকেলে নেওয়া হয়।

এদিকে ছাত্রলীগের সম্মেলনে এসে শিক্ষার্থী মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন ঐ শিক্ষার্থীর সহপাঠীরা। তারা বলেন, ১১টার সম্মেলন শুরু হয় বিকাল ৩টায়। প্রচণ্ড গরমে অন্তত সাড়ে চার ঘণ্টা অপেক্ষায় থেকে স্লোগান দিতে থাকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। ফলে টানা সাত-আট ঘণ্টার গরম সহ্য করতে না পেরে ওয়াসি মৃত্যুবরণ করেছেন।

এদিকে, প্রচণ্ড গরমে জবির ১৩তম ব্যাচের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী রাফিত অসুস্থ হয়ে পুরান ঢাকার ন্যাশনাল মেডিকেলে ভর্তি রয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে বহিরাগতদের আনাগোনা

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে বহিরাগতদের আনাগোনা
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সম্মেলন/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ছাত্রলীগের সম্মেলনে মিছিল করছেন, স্লোগান দিচ্ছেন বহিরাগত শ্রমিক অছাত্ররা। শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাত থেকে ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের আনাগোনা দেখা যায়।

শনিবার (২০ জুলাই) সকাল থেকেই ছাত্রলীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে বিরাজ করছে বাড়তি উত্তেজনা। নিজের গ্রুপের প্রার্থীদের পরিচিতি বাড়াতে পদপ্রত্যাশীদের অনেক কর্মীই ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে মিছিল, স্লোগান দিচ্ছেন।

এদিকে, অনেক প্রার্থী নিজের ক্ষমতা জানান দিতে দলে ভিড়িয়েছেন পুরান ঢাকার সদরঘাট ও বিভিন্ন গ্যারেজে কাজ করা শ্রমিক এবং বিভিন্ন স্কুল শিক্ষার্থীদের।

ক্যাম্পাস ঘুরে যায়, এই বহিরাগতদের অনেকেই কোনো না কোনো পার্থীর টিশার্ট, টুপি পড়ে স্লোগান দিচ্ছেন। সন্দেহভাজন কয়েকজনকে পরিচয় জানতে চাইলে তারা পরিচয় না দিয়ে কোনো না কোনো প্রার্থীর নাম বলছেন।

জবি ছাত্রলীগের এক কর্মী বলেন, এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতির পরিবেশের জন্য সুখকর নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের কর্মীরা এটি প্রত্যাশা করে না। এ রকমভাবে চলতে থাকলে এটি ভবিষ্যতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের রাজনীতিতে প্রভাব ফেলবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র