Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

জাবির শৃঙ্খলা বিধিতে নতুন ধারা: স্বাধীন মত প্রকাশে বাধা

জাবির শৃঙ্খলা বিধিতে নতুন ধারা: স্বাধীন মত প্রকাশে বাধা
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ছবি: বার্তা২৪.কম
জাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ছাত্র-ছাত্রীদের শৃঙ্খলা সংক্রান্ত অধ্যাদেশ হালনাগাদ করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) প্রশাসন। সংশোধিত অধ্যাদেশে যুক্ত হওয়া নতুন দুটি ধারা, যা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। নতুন এই ধারা দুটিকে ‘নিবর্তনমূলক’ বলে অ্যাখ্যা দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। পাশাপাশি শিগগিরই এ ধারা বাতিলের দাবিও জানিয়েছেন তারা।

নতুন দুটি ধারা হলো- অধ্যাদেশের ৫ এর (ঞ) উপধারায় বলা হয়েছে, কোনো ছাত্র/ছাত্রী অসত্য এবং তথ্য বিকৃত করে বিশ্ববিদ্যালয় সংক্রান্ত কোনো সংবাদ বা প্রতিবেদন স্থানীয়/জাতীয়/আন্তর্জাতিক প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক সংবাদ মাধ্যমে বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ ও প্রচার বা উক্ত কাজে সহযোগিতা করতে পারবে না।

এছাড়া ৫ এর (থ) উপধারায় বলা হয়েছে, কোনো ছাত্র/ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো ছাত্র/ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীর উদ্দেশ্যে টেলিফোন, মোবাইল ফোন, ই-মেইল, ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোনো অশ্লীল বার্তা বা অসৌজন্যমূলক বার্তা প্রেরণ অথবা উত্যক্ত করবে না।

অধ্যাদেশ মতে, ধারা দুটির ব্যতয় ঘটলে তা বিশ্ববিদ্যালয়ের চোখে ‘অসদাচরণ’ বলে গণ্য হবে। এজন্য লঘু শাস্তি হিসেবে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা, সতর্কীকরণ এবং গুরুতর শাস্তি হিসেবে আজীবন বহিষ্কার, বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার, সাময়িক বহিষ্কার ও পাঁচ হাজার টাকার বেশি জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের দাবি, স্বাধীনভাবে মত প্রকাশে হস্তক্ষেপ করতেই ধারা দুটি যুক্ত করা হয়েছে। ধারা দুটিতে উল্লেখিত ‘অসত্য, তথ্য বিকৃত’ এবং `অশ্লীল’ বা ‘অসৌজন্যমূলক’ বার্তা প্রেরণ অথবা উত্যক্ত করার’ সংজ্ঞা নির্ধারণ করবেন কে? ফলে স্বাধীন সাংবাদিকতা বাঁধার মুখে পড়বে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালে উচ্চ আদালত এক রায়ের পর্যবেক্ষণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা বিধিকে ‘দুর্বল ও সেকেলে’ উল্লেখ করে তা হালনাগাদের পরামর্শ দেয়। শৃঙ্খলা বিধির প্রয়োজনীয় সংশোধন ও পরিমার্জন করতে ওই বছরের ১৬ মে তৎকালীন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আবুল হোসেনকে সভাপতি করে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়। ওই কমিটির হালনাগাদ করা শৃঙ্খলা বিধি বিশেষ সিন্ডিকেট সভায় অধ্যাদেশ হিসেবে অনুমোদন করা হয়।

এ বিষয়ে জাবি সিনেট সদস্য ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য শৃঙ্খলা সংক্রান্ত অধ্যাদেশের ধারা ৫(ঞ) এবং (থ) উপধারা দুটি বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৯ (চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা ও বাক স্বাধীনতা) এবং অনুচ্ছেদ ৪০ (পেশা বৃত্তির স্বাধীনতা) এর পরিপন্থী । বিশ্ববিদ্যালয় মুক্ত চিন্তার বিকাশ এবং লালন-পালনের যথাযথ স্থান। এই উপধারা দুটি ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে ভীতি ও শঙ্কার তৈরি করবে, যা শুভকর নয় । এছাড়া ক্যাম্পাসে কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্মীদের কাজের ক্ষেত্র সংকুচিত করবে এবং সাংবাদিকরা নিগ্রহের স্বীকার হতে পারেন।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাসান আল মাহমুদ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘সম্পূর্ণ অসৎ উদ্দেশ্যে বিধি দুটি যুক্ত করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতি, দুর্বৃত্তপনার বিরুদ্ধে সাংবাদিকরা সবসময় সোচ্চার। সাংবাদিকদের কণ্ঠ রোধ করতেই এই উদ্যোগ। অবিলম্বে এটি বাতিল করতে হবে।’

অন্যদিকে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাবি শাখার দফতর সম্পাদক হাসান জামিল স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি শিক্ষার্থীর স্বার্থ বিরোধী ও নিবর্তনমূলক ধারা বাতিলের আহ্বান জানানো হয়েছে। এছাড়া ভবিষ্যতে এ ধরনের কোনো আইন তৈরি করা হলে তা কঠোরভাবে প্রতিহত করার ঘোষণাও দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যায়ন বিভাগের সাবেক সভাপতি সহকারী অধ্যাপক উজ্জ্বল কুমার মণ্ডল বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘যেখানে রাষ্ট্রের বিধিমালা রয়েছে সেখানে আবার নতুন করে আইন তৈরি করার প্রয়োজন হয় না। এটা কারা করেছে জানি না, এটা করা ঠিক হয়নি। তাছাড়া ধারা দুটির কোনো নির্দিষ্ট সংজ্ঞা নেই, ফলে যে যার মতো করে অপব্যবহার করতে পারে। এমন ধারা তৈরি করার আগে সংশ্লিষ্ঠদের সাথে আলোচনা করা উচিৎ ছিল।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের সাথে যোগাগের চেষ্টা করা হলে তিনি অসুস্থ থাকায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

তবে বিশ্ব উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মো. আমির হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘নতুন বছরের প্রবেশিকা অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে তাড়াহুড়া করে শৃঙ্খলা বিধি পাস করা হয়েছে। তবে যদি এ বিষয়ে কারও কোনো বক্তব্য থাকে তবে সেটা অবশ্যই বিবেচনা করা হবে।’

আপনার মতামত লিখুন :

ধর্মভিত্তিক দলের ব্যাপারে ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান শোভনের

ধর্মভিত্তিক দলের ব্যাপারে ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান শোভনের
ঢাবি সিনেট, ছবি: বার্তা২৪

ধর্মভিত্তিক দল যাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে না পারে, সেজন্য ঢাবি সিনেটকে কঠোর হওয়ার আহবান জানিয়েছেন ছাত্রলীগের সভাপতি ও সিনেট সদস্য রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। এসব দলকে নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি।

বুধবার (২৬ জুন) নওয়াব নবাব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক বাজেট সিনেট অধিবেশনে ছাত্রপ্রতিনিধি হিসাবে তিনি এ প্রস্তাব দেন।

বিকেলে উপাচার্য আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়। অধিবেশনে ছাত্রপ্রতিনিধির বক্তব্যে এই সিনেট সদস্য বলেন, ডাকসু নির্বাচনে কিছু ধর্মভিত্তিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিল। আমি সিনেট অধিবেশনে এটি বন্ধের জোর দাবি জানাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ধর্মভিত্তিক দলের রাজনীতি ও নির্বাচন করার বৈধতা নেই। কিন্তু গত ২৩ মার্চ অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন (ইশা) অংশগ্রহণ করে। এতে প্রশ্নবিদ্ধ হয় নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনের দাবি ছিল তারা স্বতন্ত্রভাবে অংশগ্রহণ করেছিল, কোনো দল থেকে না।

সিনেট অধিবেশনে শোভনের প্রস্তাব- লাইব্রেরির অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বিশ্ববিদ্যালয়কে পূর্ণাঙ্গ আবাসিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে প্রতিষ্ঠা করা, ক্যানটিনে খাবারের মান বৃদ্ধি করা, অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের জন্য বাস বৃদ্ধি ও পুরাতন বাসগুলোর সংস্করণ, প্রক্টরিয়াল টিমকে আরও প্রশিক্ষিত করা, তাদের জন্য আরও গাম্ভীর্জপূর্ণ পোশাকের ব্যবস্থা করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের কাজ অটোমেশনের আওতায় নিয়ে আসা, শিক্ষার্থীদের নির্দিষ্ট আইডেন্টিটির ব্যবস্থা করা, ঢাবির হাসপাতালের মান উন্নয়ন করা ইত্যাদি।

শোভন বলেন, ২০২০ সাল বঙ্গবন্ধুর জম্মশতবার্ষিকী পালন উপলক্ষে সরকারের বছরব্যাপী বাংলাদেশজুড়ে কর্মসূচি থাকবে। সে হিসাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও মার্চ মাসজুড়ে কর্মসূচি হাতে নেওয়া যায় কি-না, সে ব্যাপারে ভাবতে হবে। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়তি সলিমুল্লাহ মুসলিম ও ফজলুল হক মুসলিম হলে ভাস্কর্য স্থাপন করা যেতে পারে। 

আরও পড়ুন: ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর

ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর

ঢাবি ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার প্রস্তাব রাব্বানীর
ঢাবির বাজেট অধিবেশন, ছবি: বার্তা২৪.কম

গবেষণা ক্ষেত্রে বরাদ্দ বৃদ্ধি, ওয়েব সাইটকে আধুনিকায়ন, লাইব্রেরীর অবকাঠামেগত উন্নয়ন, ক্যাম্পাসকে ছিনতাইয়ের কবল থেকে রক্ষায় সিসি টিভির আওতায় নিয়ে আসা সহ সিনেটে বেশ কিছু প্রস্তাব উপস্থাপন করেছেন ডাকসু সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানী।

বুধবার (২৬ জুন) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব নবাব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বার্ষিক বাজেট অধিবেশনে এসব প্রস্তাব করেন তিনি।

এ সময় ছাত্রপ্রতিনিধি হিসাবে গোলাম রাব্বানী বলেন, 'দীর্ঘ আটাশ বছরের অচলায়তন ভেঙে ডাকসু নির্বাচন দেওয়ার জন্য উপাচার্য মহোদয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।'

প্রসঙ্গত ডাকসু থেকে নির্ধারিত পাঁচ জন প্রতিনিধি সিনেটে সদস্য হিসএবে ছাত্রপ্রতিনিধি হয়ে কথা বলতে পারেন।

গোলাম রাব্বানী যেসব প্রস্তাবনা করেন-

গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি; ওয়েব সাইটকে আপডেট রাখা; লাইব্রেরির অবকাঠামোতমগত উন্নয়ন; ডাকসুর বহুতল ভবন নির্মাণ; ছিনতাই রোধে পুরো ক্যাম্পাসকে সিসি ক্যামেরায় নিয়ে আসা;পরিচ্ছন্ন কর্মীদের কাজের তদারকি বাড়ানোর জন্য পরিচয় লিস্ট সহকারে প্রকাশ এবং প্রত্যেক হলে কেয়ারটেকার নির্ধারণ।

এছাড়া রাব্বানী সাত কলেজ ইস্যু নিয়ে কথা বলেন। এটির দ্রুত সমাধানের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

আরও পড়ুন: ঢাবির বাজেট ৮১০ কোটি ৪২ লাখ টাকা

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র