Alexa

বাকৃবি’র হোটেলে পচা খাবার

বাকৃবি’র হোটেলে পচা খাবার

ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) ক্যাম্পাসে বিভিন্ন হোটেলে রমজানে মিলছে পচা, বাসি ও দুর্গন্ধযুক্ত খাবার। অভিযোগ আছে, এসব খাবার খেয়ে অনেক শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের জব্বারের মোড়ের দুটি হোটেলের বিরুদ্ধে পচা ও বাসি খাবার খাওয়ানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী হাসিবুল হাসান হাসিব অভিযোগ করে বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘সেহেরির সময় সজিব হোটেল থেকে আমরা কয়েকজন মুরগি, গরু ও ডাল কিনে হলে নিয়েছিলাম। পরে রুমে এসে প্যাকেট খুলে দুর্গন্ধ পাওয়া যায়। দোকানদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আম দেওয়ায় ডাল টক হতে পারে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এছাড়া আগের দিনের রান্না করা মুরগিও বিক্রি করছে তারা। আমরা বাসি খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছি।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/23/1558553610282.jpg
বাকৃবির হলে পচা খাবার/ ছবি: সংগৃহীত

 

কয়েকজন শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, হলগুলোর ডাইনিং বন্ধ থাকায় ক্যাম্পাসের ভেতরের হোটেলগুলোতেই খাবার খেতে হয়। ক্যাম্পাসের মদিনা, বিসমিল্লাহ, ভাই ভাই, মিলন, চাঁদনিসহ প্রায় প্রতিটি হোটেলেই বাসি ও পচা খারাব সরবরাহ করা হয়। ক্যাম্পাসের মধ্যে নোংরা পরিবেশে নিম্নমানের খাবার প্রস্তুত ও বিক্রি করা হয়। কিন্তু প্রশাসনের অবহেলা ও সুষ্ঠু নজরদারির অভাবে হোটেল মালিক, কর্মচারীদের স্বেচ্ছাচারিতা দিন দিন বাড়ছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সজিব হোটেলের মালিক রুবেল হোসেন অভিযোগ স্বীকার করে বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘ওই রাতে আমাকে না জানিয়েই হোটেল কর্মচারীরা টক ডাল বিক্রি করেছিল। আমার এখানে আগে কখনও এমন ঘটনা ঘটেনি, ভবিষ্যতেও ঘটবে না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. আজহারুল হক বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘হোটেলগুলোর খাবারের মান উন্নয়ন ও ভেজাল ঠেকাতে রমজানের শুরুতে আমরা অভিযান চালিয়েছিলাম। পরবর্তীতেও এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। যে হোটেলগুলোর বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে তাদের বিরুদ্ধে শিগগিরই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পাশাপাশি হোটেলে মূল্য তালিকা টাঙাতে সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।’

আপনার মতামত লিখুন :