বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের ফাঁসি কার্যকর!

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
প্রতীকী ফাঁসি কার্যকর, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

প্রতীকী ফাঁসি কার্যকর, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যাকারী পলাতক ছয় খুনির প্রতীকী ফাঁসি কার্যকর করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু)।

মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) বিকাল ৫টায় পূ্র্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে টিএসসির পায়রা চত্বরে এ ফাঁসি কার্যকর করা হয়। এরপর শুরু হয় চলচ্চিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনা সভা।

কর্মসূচির উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল চৌধুরী শোভন, ছাত্রলীগ ও ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন এবং ছাত্রলীগের অন্যান্য শাখার নেতাকর্মীরা।

এ সময় ঢাবি উপাচার্য আখতারুজ্জামান বলেন, '১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে হত্যা করা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর চেতনা ছিল উদার, মানবিকএবং অসম্প্রদায়িকতা কেন্দ্রিক। তিনি ঢাবিকে আবর্তন করে ১৯৪৮ থেকে ১৯৭১ অবধি তার চেতনার প্রতিফলন ঘটিয়েছিলেন। আর মুক্তিযুদ্ধে দেশ স্বাধীনের মাধ্যমে সে চেতনা, দর্শনের চূড়ান্ত বহিঃপ্রকাশ ঘটে। আমি আশা করব সরকার শিগগিরই বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দেশে এনে ফাঁসি দেবে।'

এরপর উপস্থিত অতিথিরা পলাতক খুনিদের প্রতীকী ফাঁসির সাজানো মঞ্চের দিকে অগ্রসর হন এবং একে একে পলাতক ছয় খুনি- আব্দুল মাজেদ, রাশেদ চৌধুরী, মোসলেম উদ্দিন, নূর চৌধুরী, আব্দুর রশীদ ও শরিফুল হম ডালিমের এর প্রতীকী ফাঁসির দড়িতে ঝোলান।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বের দায়িত্বে ছিলেন- ডাকসুর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী। একই সঙ্গে তিনি অনুষ্ঠানটি আয়োজন ও সম্পাদনার দায়িত্বেও ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :