হুমায়ূন আহমেদ স্মরণে মুহসীন হলে বিতর্ক প্রতিযোগিতা

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
আন্তঃহল বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে ঢাবির হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল ডিবেটিং ক্লাব, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

আন্তঃহল বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে ঢাবির হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল ডিবেটিং ক্লাব, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ স্মরণে ‘৪র্থ হুমায়ূন আহমেদ আন্তঃহল বিতর্ক প্রতিযোগিতার’ আয়োজন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল ডিবেটিং ক্লাব।

তিনদিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ১৮টি আবাসিক হলের বিতার্কিকরা।

শুক্রবার (৩০ আগস্ট) সকাল ৯টায় শুরু হবে এর উদ্বোধনী পর্ব। রোববার (১ সেপ্টেম্বর) পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শেষ হবে এই আয়োজন। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন হুমায়ূন আহমেদের পরিবার পরিজনসহ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ডাকসু নেতৃবৃন্দরা।

অনুষ্ঠানের সার্বিক আয়োজন নিয়ে কথা হয় হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হল ডিবেটিং ক্লাবের সভাপতি ও সেক্রেটারির সঙ্গে। ডিবেটিং ক্লাবের সভাপতি মাহবুবুর রহমান মিথুন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল থেকে প্রতিবছরই চেষ্টা করা হয় এই ধরনের ভিন্নধর্মী বিতর্ক কার্যক্রম পরিচালনা করা। তবে আমাদের সবচেয়ে বড় আয়োজন হলো হুমায়ূন আহমেদ স্মারক বিতর্ক প্রতিযোগিতা, যেটা মুহসীন হলের ঐতিহ্যকে ধারণ করে।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/30/1567109075509.jpg

তিনি আরও বলেন, ‘হাজী মুহম্মদ মুহসীন হলের অন্যতম একটা আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হলো হুমায়ূন আহমেদ। কারণ, তিনি এই হলেরই আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলেন। তাঁর স্মৃতিকে ধারণ করে তরুণ প্রজন্মকে এই আয়োজনের মাধ্যমে সাহিত্যের সঙ্গে পরিচয় করে দেওয়াই আমাদের উদ্দেশ্য।’

মুহসীন হল ডিবেটিং ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম সাহেদিন বলেন, ‘বাংলা সাহিত্যে হুমায়ূন আহমেদের বড় অর্জন হলো পাঠক সৃষ্টির ক্ষেত্রে তার স্বতন্ত্রতা। তাঁর বইয়ের মাধ্যমে তিনি পাঠক সমাজে এক ধরনের আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। যার কারণে আজও তরুণ সমাজ হুমায়ূন আহমেদের প্রতি বিশেষ নজর দেয়। আর এই বিশেষ মানুষটি যেহেতু এই হলেরই ৪৬৪ নং কক্ষে ছিলেন এবং এখানে বসেই তার অমর দুটি রচনা সম্পূর্ণ করেছেন। সেই স্মৃতিকে ধারণ করেই আমরা এই বিতর্কের আয়োজন করেছি।’

উল্লেখ্য, কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী থাকাকালীন হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হলেই থাকতেন। আজও তাঁর স্মৃতি সম্বলিত সেই ৪৬৪ নং কামরাটি এখানে বিদ্যমান রয়েছে। এই কক্ষে থেকেই তিনি লিখেছেন তার দুটি অমর গ্রন্থ 'নন্দিত নরকে' এবং 'শঙ্খনীল কারাগার'।

আপনার মতামত লিখুন :