সাংবাদিককে তুলে নেওয়ার ঘটনায় ক্ষমা চাইলেন শোভন

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
ঢাবি সাংবাদিক সমিতিতে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাবি সাংবাদিক সমিতিতে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের দুই সহ-সভাপতির মারামারির ঘটনা ভিডিও করায় এক সাংবাদিককে গাড়িতে তুলে ভিডিও ডিলিট করার অভিযোগ ওঠে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। ওই সাংবাদিকের নাম নুর হোসেন ইমন। তিনি দৈনিক ইনকিলাবের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি। সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতিতে এসে ক্ষমা প্রার্থনা ও দুঃখ প্রকাশ করেন শোভন।

এ সময় শোভন বলেন, 'আমরা সবসময় সাংবাদিকদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখতে চাই। কিন্তু অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে কিছু ঘটনা ঘটে যায়। যেটার দায় আমরা এড়াতে পারি না।'

তিনি বলেন, 'ওই সাংবাদিক ভিডিও করার সময় কিছু উশৃঙ্খল কর্মী ছিল যারা একটা দুর্ঘটনা ঘটাতে পারত। পরে আমি তাৎক্ষণিক তাকে গাড়িতে উঠিয়ে নিলাম। পরে শুনলাম সে সাংবাদিক। কিন্তু ভিডিও ডিলিটের বিষয়ে আমি জানতাম না। বরঞ্চ তাকে সেভ করার জন্যই গাড়িতে তুলে নিয়েছিলাম। পরে অবশ্যই তাকে নিরাপদভাবে পৌঁছে দিই।'

ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, 'এবারের মতো আমি আপনাদের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। ভবিষ্যতে এমন ঘটনা ঘটলে আমি এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।'

এ সময় শোভন সাংবাদিক সমিতির সকল সদস্যদের সঙ্গে হ্যান্ডশেক করেন। সাংবাদিকদের ফোন ধরেন না এমন অভিযোগের কথা স্বীকার করে তিনি ফোনে সাংবাদিকদের মোবাইল নাম্বার সেভ করে নেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আবির রায়হান, সাধারণ সম্পাদক মাহদী আল মুহতাসিম নিবিড় সহ সাংবাদিক সমিতির অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সভাপতি আবির রায়হান বলেন, 'ছাত্রলীগ সভাপতির দুঃখ প্রকাশ করার পর আর কিছু বলার থাকে না। তবে এরকম আর কোনো ঘটনা ঘটলে আমরা শক্ত পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হব।'

আপনার মতামত লিখুন :