জবিতে শিক্ষার্থীদের উচ্ছেদ অভিযান

জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় গেট উন্মুক্ত করে,  ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় গেট উন্মুক্ত করে, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) দেয়াল ঘেঁষে গড়ে ওঠা ফুটপাতের বিভিন্ন অবৈধ স্থাপনা এবং দ্বিতীয় গেটের সামনে অবস্থিত লেগুনা স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে গেট উন্মুক্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়ে 'প্রশাসনের কালো হাত, ভেঙে দাও গুঁড়িয়ে দাও' স্লোগানে মিছিল বের করে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। মিছিল শেষে ক্যাম্পাসের দ্বিতীয় গেটের সামনে অবস্থিত লেগুনা স্ট্যান্ড এবং জবির দ্বিতীয় গেট উন্মুক্ত করে শিক্ষার্থীরা। এ সময় ২৫টির ও বেশি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়।

এ সময় ২৫টির ও বেশি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়

 

এর আগে গত রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) জবি শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় গেটের লেগুনা স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে গেট উন্মুক্ত করে দিয়েছিলো। লেগুনা স্ট্যান্ড অপসারণ ও দ্বিতীয় গেট উন্মুক্ত করে দেয়ার বিষয়ে আশ্বাস দিয়েছিলো প্রশাসন। কিন্তু রোববার রাতেই আবার দ্বিতীয় গেট বন্ধ করে দেয়া হয় এবং আগের মতো লেগুনা স্ট্যান্ড বসতে দেখা যায়। এ কারণেই আজ আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের আহ্বায়ক রাইসুল ইসলাম নয়ন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের আশ্বাস দিলেও তা বাস্তবায়ন করতে তারা বরাবরের মতই উদাসীন । তাই আমরা নিজ উদ্যোগ নিয়ে এই উচ্ছেদ অভিযান বাস্তবায়ন করেছি। একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটে কোনভাবেই লেগুনা স্ট্যান্ড থাকতে পারে না। আমরা নিজেদের ক্যাম্পাসকে নিজেরাই পরিষ্কার রাখতে কাজ করছি।

দ্বিতীয় গেটকে 'ওয়াসি গেট' নামকরণ করার দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা

 

উচ্ছেদ অভিযান শেষে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধি দল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে দেখা করে এক সপ্তাহের ভেতর লেগুনা স্ট্যান্ড সম্পূর্ণভাবে তুলে দিয়ে দ্বিতীয় গেট সংস্কার করে পুরোপুরি অবমুক্ত করার দাবি জানান। এছাড়াও তারা দ্বিতীয় গেটকে 'ওয়াসি গেট' নামকরণ করার দাবি জানান।

 বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে লিখিত দাবি জানানো হয়

 

উল্লেখ্য, গত ২২ জুলাই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) ছাত্রলীগের সম্মেলন চলাকালে হিটস্ট্রোকে মারা যান জবি ইংরেজি বিভাগের ২০১৫-১৬ সেশনের শিক্ষার্থী এস এম ওয়াসী। তার মৃত্যুকে স্মরণীয় করে রাখতে এ দাবি জানান সাধারণ শিক্ষার্থীরা। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, 'আমরা এ বিষয়ে প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছি। আগামী সাত দিনের মধ্যে আমরা সকল অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে দিয়ে দ্বিতীয় গেট উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।'

আপনার মতামত লিখুন :