Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

গরম ও স্পিন নিয়ে অপেক্ষায় এশিয়া কাপ!

গরম ও স্পিন নিয়ে অপেক্ষায় এশিয়া কাপ!
দুবাইয়ে অনুশীলনে সাকিব
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

যে কোন টুর্নামেন্ট শুরুর আগে এখন সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টি নিয়ে আলোচিত হয় তা হল কন্ডিশন। পরিবেশ-পরিস্থিতি কেমন? আবহাওয়া কেমন? পারিপাশ্বিকতাই বা কেমন? উইকেটের গঠন চরিত্র কেমন? কারা এখনো বেশি সুবিধা পাবে; ইত্যকার বিষয়ের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেয়ার একটা বড় বিষয় থাকে।

সেই বড় বিষয়টা যেন এবার বেশি ‘বড়’ না হয় সেজন্যই বাংলাদেশ বেশ আগেভাগেই আরব আমিরাত পৌছেছে। দল নিয়ে অনুশীলনও করেছে। রাতের আলোতেও অনুশীলনে নিজেদের ঝালিয়ে নিয়েছে বাংলাদেশ। দল হিসেবে আরব আমিরাতের এই কন্ডিশন বাংলাদেশ দলের জন্য একেবারে নতুন। এই দলের কয়েকজন খেলোয়াড়ের আরব আমিরাতের মাটিতে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের বর্তমান দলটি এই প্রথম সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাটিতে খেলতে গিয়েছে। আর অনুশীলনের প্রথমদিন থেকে যে বিষয়টা দলের খেলোয়াড়রা বাড়তি যন্ত্রণা হিসেবে পাচ্ছেন তা হল আমিরাতের গরম। তাপমাত্রা কোনদিনই ৩৭ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নিচের নামছে না! এই যন্ত্রণা শনিবার ১৫ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচের দিন আরও বাড়ছে। দুবাইয়ের আবহাওয়া দপ্তর জানাচ্ছে সেদিন তাপমাত্রা থাকবে সর্বোচ্চ ৪৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস!

পারলে আইস জ্যাকেট নিয়ে খেলতে হবে ক্রিকেটারদের। দুবাইয়ের এই অসহনীয় গরমের ব্যাপারে দলের বাকিদের আগে থেকেই সাবধান করে দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ ও তামিম ইকবাল। এখানকার এই কন্ডিশনে ক্রিকেট খেলার অভিজ্ঞতা এই দুজনের আছে বেশ। একে তো প্রচন্ড গরম, সঙ্গে বাতাসে আর্দ্রতা-ক্রিকেটের জন্য মোটেও উপযুক্ত বা মন ভাল করার মতো পরিবেশ এই মুহূর্তে নেই দুবাইয়ের এশিয়া কাপে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের উইকেট সাধারণত ব্যাটিং উপযোগীই হয়ে থাকে। তবে প্রতি ম্যাচেই এখানে তিনশ’ ছাড়ানো স্কোর হবে-এমন সুবোধ চিন্তা না করাই ভাল। পরিসংখ্যান জানাচ্ছে আমিরাতের উইকেটে ওয়ানডে ক্রিকেটে তিনশ ছাড়ানো স্কোর খুব একটা নেই। দুবাই স্টেডিয়াম এবং আবুধাবীর শেখ আবু জায়েদ স্টেডিয়াম; এই দুই স্টেডিয়ামেই এবার এশিয়া কাপের সবগুলো ম্যাচের আয়োজন হবে। এই দুই স্টেডিয়ামে সাকুল্যে মাত্র পাঁচটি ম্যাচে দলীয় স্কোর তিনশ ছাড়িয়েছে। আর তাই এখানকার উইকেটে রান বন্যার অপেক্ষায় থাকলে ঠকতে হবে। 

তবে আমিরাতের উইকেটে যা আছে তা দেখে স্পিনারদের চোখ চকচকে হয়ে উঠতেই পারে। প্রচন্ড গরম আবহাওয়া মোটেও পেস বোলারদের সহায়ক নয়। ৫০ ওভার বোলিং কোটা পুরো করার জন্য প্রায় সবদলই স্পিনারদেরই বেশি ব্যবহার করার পরিকল্পনা করছে। আর তাই টুর্নামেন্টের শীর্ষ চার দল ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা এবারের এশিয়া কাপের দল সাজিয়েছে একগাদা স্পিনারদের নিয়ে। আফগানিস্তান টুর্নামেন্টে এসেছে স্পিন শক্তি বাড়িয়ে। আমিরাতের দুই স্টেডিয়ামের ওয়ানডে ম্যাচের পরিসংখ্যান স্পিনারদের গুনগানই গাইছে। যে দুই স্টেডিয়ামে এবার এশিয়া কাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে সেখানে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির শীর্ষ তিনজনের মধ্যে দুজনই স্পিনার!

আপনার মতামত লিখুন :

নেইমারের দাম ২৫০ মিলিয়ন ইউরো!

নেইমারের দাম ২৫০ মিলিয়ন ইউরো!
নেইমারকে পেতে চলছে রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোর লড়াই, ছবি: সংগৃহীত

নেইমারকে দলে টানতে চেষ্টার কোনো ত্রুটি রাখছে না রিয়াল মাদ্রিদ। হাল ছেড়ে দেইনি বার্সেলোনাও। চলছে তাদের মধ্যে রশি টানাটানি। দুদল কোনো ভাবেই প্যারিস সেন্ট জার্মেইকে (পিএসজি) খুশী করতে পারছে না।

নেইমারকে পেতে আর্থিক ভাবে লোভনীয় প্রস্তাব দিয়েছে রিয়াল। বার্সার সাবেক এ তারকা ফরওয়ার্ডের জন্য ১০০ মিলিয়ন ইউরো খরচ করতে রাজি তারা। এখানেই শেষ নয়, সঙ্গে তিনজন ফুটবলারকেও দিতে চায় সান্টিয়াগো বার্নাব্যু শিবির। দিতে চায় গ্যারেথ বেল, কেইলর নাভাস ও হামেস রদ্রিগেজকে।

কিন্তু এতো কিছুতেও কোচ জিনেদিন জিদানের ক্লাব গলাতে পারেনি প্যারিসের জায়ান্ট ক্লাবটির কর্তৃপক্ষের মন। মানে তাদের এমন অবাক করা প্রস্তাবও ফিরিয়ে দিয়েছে পিএসজি।

এ মৌসুমে নেইমারকে ধারে দলে ভেড়াতে চায় বার্সেলোনা। পরের মৌসুমে স্থায়ীভাবে ব্রাজিলিয়ান এ তারকা স্ট্রাইকার কিনতে ইচ্ছুক ১৫০ মিলিয়ন ইউরোতে। কিন্তু পিএসজি এ প্রস্তাবটাও ফিরিয়ে দিয়েছে। নেইমারের বিনিময়ে তারা চায় ২৫০ মিলিয়ন ইউরো।

এ দিকে শোনা যাচ্ছে, রিয়ালে না যেতে নেইমারকে অনুরোধ করেছে বার্সা। এমনকি তাকে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাবের সঙ্গে কোনো ধরনের যোগাযোগ করতে নিষেধ করেছে ন্যু ক্যাম্প শিবির। যদিও গুঞ্জন আছে, বার্সার চেয়ে রিয়ালের কাছেই নেইমারকে বিক্রি করতে ইচ্ছুক পিএসজি।

২০১৭ সালের আগস্টে ট্রান্সফার মার্কেটে বিশ্বরেকর্ড গড়ে ২২২ মিলিয়ন ইউরোতে বার্সা ছেড়ে পিএসজিতে পাড়ি জমান নেইমার। বনে যান বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবলার।

ফের বাংলাদেশের মেয়েদের পোস্টে ৬ গোল

ফের বাংলাদেশের মেয়েদের পোস্টে ৬ গোল
ভারতের আক্রমণ সামাল দিতেই ব্যস্ত ছিল বাংলাদেশের মেয়েরা

ব্যর্থতার বৃত্তেই বন্দী বাংলাদেশের মেয়েরা। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেও সেই একই ফল। এবারও হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়ল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ২১ নারী হকি দল। ভারতের সাই হকি একাডেমির মেয়েরা দ্বিতীয় ম্যাচেও ৬-০ গোলে হারাল স্বাগতিকদের।

মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবারও দুর্দান্ত খেলে আরেকটি অনায়াস জয় তুলে নিয়েছে ভারতের মেয়েরা।

৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত হবে ওমেন্স জুনিয়র এএইচএফ কাপ। এই লড়াইয়ের আগে ঘরের মাঠে প্রস্তুতি পর্বে ভারতের সাই জাতীয় হকি একাডেমির নারী দলের সঙ্গে লড়ছে মেয়েরা। ৬ ম্যাচের সিরিজ খেলবে দুই দল।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566480599483.jpg

বড় ব্যবধানে হারলেও এই ম্যাচে অনেকটা গোছানো খেলা উপহার দিয়েছেন স্বাগতিক দলের মেয়েরা। তারপরও দল প্রথমার্ধেই হজম করে ৪ গোল। দ্বিতীয়ার্ধে দুটি। সফরকারীদের হয়ে মনিশা চাওতিয়ান করেছেন দুই গোল। একটি করে গোল তুলে নেন সাক্ষী, গায়ত্রী কৃঞ্চা, লালরুয়াতফেলি মেসাবি ও লোতিয়া মেরি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566480614361.jpg

২৩ আগস্ট, শুক্রবার সন্ধ্যা সাতটায় সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ২১ নারী দল ও ভারতের সাই হকি একাডেমির মেয়েরা। ম্যাচটি দেখতে মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সভাপতি এয়ার চীফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত বিবিপি, ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি।

সিরিজের শেষ তিনটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ২৫, ২৬ ও ২৭ আগস্ট।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র