চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী, শেষ ম্যাচে নায়ক জুনায়েদ সিদ্দিকী

শিরোপা পুনরুদ্ধার করল রাজশাহী

জয়ের ঘ্রাণ আগেরদিনই পেয়েছিল রাজশাহী। ম্যাচের শেষদিনের সকালে সেই জয়ের ‘ভোজ’ পেলো তারা। ম্যাচ জিতলো ৬ উইকেটে। সেই সঙ্গে ওয়ালটন ২০তম জাতীয় ক্রিকেট লিগের চ্যাম্পিয়ন পদ্মাপাড়ের দল। ম্যাচ জিততে শেষ ইনিংসে রাজশাহীর সামনে ২৮৪ রানের টার্গেট দাড় করায় বরিশাল বিভাগ। তৃতীয়দিন ২ উইকেট হারিয়ে ১৮২ রান তুলে নেয় রাজশাহী। ম্যাচ জিততে চতুর্থ এবং শেষদিনে তাদের প্রয়োজন দাড়ায় মাত্র ১০২ রানের। সকালের প্রথম সেশনেই সেই রান তুলে রাজশাহী শিরোপা জয়ের আনন্দে ভাসে।

রাজশাহীর অল ইর্ম্পোটেন্ট এই ম্যাচে ব্যাট হাতে জয়ের নায়ক জুনায়েদ সিদ্দিকী। দ্বিতীয় ইনিংসে ১২০ রানে অপরাজিত ছিলেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। প্রথম ইনিংসেও জুনায়েদের ব্যাট হেসেছিলো ৭৮ রানের আলো ঝলময় ইনিংসে।

লিগের শেষ ম্যাচে জয়ের সুবাদে পয়েন্ট তালিকায় সবার উপরে পৌছে গেল রাজশাহী। ছয় ম্যাচ শেষে তাদের পয়েন্ট ৩৪.৮১। দুটি জয় এবং বাকি চারটি ম্যাচ ড্র করেছে রাজশাহী। সকালে রাজশাহীর এই জয়ের খবর শুনে বগুড়ায় মন ভেঙ্গে যায় রংপুর বিভাগের। খুলনার বিপক্ষে সেই ম্যাচে জয়ও যে তখন তাদের শিরোপার জন্য যথেস্ট নয়। রাজশাহী যখন নিজ মাঠে ৬ উইকেটের জয়ের আনন্দে ভাসছে, তখন বগুড়ায় খুলনার বিপক্ষে ম্যাচ জিততে ২৯৫ রানের পিছু ছুটছিলো রংপুর বিভাগ। জিতলেও শিরোপা জেতার সুযোগ নেই-এটা জানার পর রংপুর ম্যাচের বাকি সময়ে কেমন উৎসাহ নিয়ে খেলে সেটাই ছিলো দেখার বিষয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/08/1541659921362.jpg

টার্গেট মাত্র ১০২ রান। হাতে জমা ৮ উইকেট। চতুর্থদিন এই টার্গেটে নিজ মাঠে রাজশাহী ছিলো ম্যাচের টপ ফেভারিট। জুনায়েদ সিদ্দিকী ও অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম অমি তৃতীয় উইকেট জুটিতে ১৪৯ রান যোগ করে রাজশাহীর জয়ের কাজকে সহজ করে তোলেন। সকালে ৬৪ রান করে জহুরুল যখন আউট হলেন তখন ম্যাচ জয় থেকে ৩২ রান দুরে দাড়িয়ে রাজশাহী। ফরহাদ হোসেন সিঙ্গেল ডিজিটে আউট হয়ে রাজশাহীর শিবিরে খানিকটা টেনশন বাড়িয়ে দেন। কিন্তু অপরপ্রান্তে জুনায়েদ সিদ্দিকী ব্যাট হাতে দৃঢ়তা দেখান। ১৮১ বলে তার হার না মানা ১২০ রান রাজশাহীকে জয় এনে দেয়। লিগে এটি জুনায়েদ সিদ্দিকীর দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। ম্যাচের জয়সূচক রানটা আসে জুনায়েদের ব্যাট থেকে। তানভীর ইসলামের বলে জুনায়েদ সিদ্দিকী নিজের ইনিংসের ১৭ নম্বর বাউন্ডারি হাঁকাতেই রাজশাহীর ডাগআউট মিছিলের ভঙ্গিতে মাঠে ঢুকে পড়ে উল্লাসে মেতে উঠে। জয়ের আনন্দে দিশেহারা দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: বরিশাল ১ম ইনি: ৯৭/১০ (৩৮.২ ওভারে, আল আমিন ২৫, মোসাদ্দেক ২২, মোহর শেখ ৫/২৪, শফিকুল ৩/২০, ফরহাদ রেজা ২/৪২)। রাজশাহী ১ম ইনি: ১৬০/১০ (৪৪ ওভারে, জুনায়েদ সিদ্দিকী ৭৮, জহুরুল ২৫, ফরহাদ রেজা ৩২* কামরুল ইসলাম ২/৭১, মনির ৫/১৪, সোহাগ গাজী ২/২৯)। বরিশাল ২য় ইনি:৩৪৬/১০ (১০৫.৩ ওভারে, শাহরিয়ার নাফীস ৩৩, ফজলে মাহমুদ ২৩, আল আমিন ৯৭, নুরুজ্জামান ৪৫, শামসুল ৫৬, তানভীর ৩২, ফরহাদ রেজা ৪/৫৯, মোহর শেখ ৩/৯৪)। রাজশাহী ২য় ইনি: ২৮৪/৪ (৭৬ ওভারে, মিজানুর ৩০, সাব্বির হোসেন ৪৯, জুনায়েদ ১২০*, জহুরুল ৬৪, সাব্বির রহমান ৪*, তানভীর ইসলাম ২/৬৪)। ফল: রাজশাহী ৬ উইকেটে জয়ী। ম্যাচসেরা: জুনায়েদ সিদ্দিকী।

খেলা এর আরও খবর