সুপার ওভারে চিটাগংয়ের জয়

রোমাঞ্চকর জয় পেল চিটাগং

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম

সুপার ওভারে গড়ানো ম্যাচে শেষ হাসি হাসলো চিটাগং ভাইকিংস। টার্গেট ছিলো মাত্র ১২ রানের। ৬ বলে ১২ রান। দুটো ছক্কা হলেই ম্যাচ শেষ! কিন্তু ৬ বলে ১১ রানের বেশি তুলতে পারেনি খুলনা টাইটানস। ১ রানে সুপার ওভার জিতে আনন্দে মেতে উঠলো চিটাগং ভাইকিংস।

সুপার ওভারের শেষ বলে ম্যাচ জিততে খুলনার প্রয়োজন ছিলো ৩ রানের। কিন্তু রোবি ফ্রাইলিঙ্কের করা দুর্দান্ত শেষ বলটা ব্যাটেই লাগাতে পারেননি পল স্টালির্ং। কোন মতে একটা বাই রান নেন। দ্বিতীয় রানটা অসম্ভব ছিলো। সেটা নিতে গিয়ে রান আউট হন তিনি। ১ রানে সুপার ওভারে ম্যাচ জিতে মুশফিক রহিমের দল।

শেষদিকে এসে এই ম্যাচের পরতে পরতে নাটকীয়তার দেখা মিলে। খুলনা টাইটানসের ১৫১ রানের জবাবে চিটাগং ভাইকিংস বেশ ভালভাবেই ম্যাচে ছিলো। মুশফিক রহিম যেভাবে ব্যাটিং করছিলেন তাতে মনে হচ্ছিলো নিশ্চিত জয়ের পথেই আছে চিটাগং। কিন্তু ১৮ নম্বর ওভারে এসে কার্লোস ব্রাথওয়েট দ্বিতীয় বলেই মুশফিক রহিমকে আউট করেন। এই উইকেটই ম্যাচের মোড় ফের ঘুরিয়ে দিলো খুলনার দিকে। ক্রমেই চিটাগংয়ের জন্য শেষের টার্গেট কঠিন হতে লাগলো।

শেষ ১২ বলে চাই ২৩ রান। জুনায়েদ খান ১৯ নম্বর ওভারে মাত্র ৪ রান দিয়ে চিটাগংয়ের কাজটা আরো কঠিন করে দেন। ম্যাচ জিততে শেষ ওভারে চিটাগংয়ের চাই ১৯ রানের বিশাল টার্গেট। তিন ছক্কায় শেষ ওভারে সেই টার্গেটের একেবারে কাছেও পৌছে যায় চিটাগং। কিন্তু শেষ বলে প্রয়োজনীয় ১ রান নিতে পারেনি। আগের দুই বলে দুই ছক্কা হাঁকানো ফ্রাইলিঙ্ক ম্যাচের শেষ বলে রান আউট হয়ে যান। স্কোরবোর্ডে তখন দু’দলের স্কোর সমান। ম্যাচ টাই। নিয়ম অনুযায়ী ফল নির্ধারনের জন্য ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে।

সুপার ওভারে আগে ব্যাট করে চিটাগং ভাইকিংস ১ উইকেট হারিয়ে ১১ রান তোলে। খুলনা সেই রানের জবাবে করে মাত্র ১০ রান। একেই বলে পয়সা উসুলের ম্যাচ!

চলতি বিপিএলে যাও একটা ম্যাচ জেতার সুযোগ তৈরি হয়েছিলো খুলনা সামনে। সেই সুযোগ দেখা দিয়েও মিলিয়ে গেল! টানা চার ম্যাচের চারটিতেই হেরে খুলনা বিপিএলে এখনো পয়েন্ট শূণ্য। আর তিন ম্যাচে দুই জয় নিয়ে চিটাগংয়ের এবারের শুরুটা বেশ ভালই হয়েছে।

টসে হেরে ব্যাট করতে নামা খুলনা টাইটানসের ইনিংস শেষে একটু আক্ষেপ রয়েই গেলো, ১৫১ রানের স্কোরটা আরেকটু বড় হতে পারতো! শেষের পাঁচ ওভারে যেভাবে ব্যাট হাতে শাসন করার কথা ছিলো, সেটা করতে পারেনি খুলনা। হাতে উইকেট জমা কিন্তু শেষের পাঁচ ওভারে তাদের যোগাড় হলো মাত্র ৪০ রান। ১৮ নম্বর ওভারে স্পিনার সানজামুল ইসলাম টানা দুই বলে ব্রাথওয়েট ও মাহমুদউল্লাহ’র উইকেট তুলে নিলে স্কোরবোর্ডে খুলনার রানের স্বাস্থ্য খুব বেশি সবল হতে পারেনি। তারপরও ১৫১ রানের স্কোরে খুলনা স্বস্তি খুঁজছে, এই প্রথম শুরুর দিকের পাঁচ ব্যাটসম্যানের সবাই অন্তত ডাবল ফিগারে যেতে পেরেছে।

তবে কে জানতে উভয় দলের ১৫১ রানের এই ম্যাচ শেষ পর্যন্ত এত টানটান উত্তেজনা জিইয়ে রাখবে?

সংক্ষিপ্ত স্কোর: খুলনা টাইটানস: ১৫১/৬ (২০ ওভারে, স্টার্লিং ১৮, জুনায়েদ ২০, মালান ৪৫, মাহমুদউল্লাহ ৩৩, ব্রাথওয়েট ১২, নাজমুল হোসেন শান্ত ৬, আরিফুল ৯*, মাইদুল ৪*, সানজামুল ২/৩৭, নাঈম ১/১৬)। চিটাগং ভাইকিংস: ১৫১/৮ (২০ ওভারে, শাহজাদ ১০, ডেলপোর্ট ১৭, ইয়াসির আলী ৪১, মুশফিক ৩৪, মোসাদ্দেক ১২, ফ্রাইলিঙ্ক ২৩, ব্রাথওয়েট ২/৩০, শরিফুল ২/৩১)। ফল: ম্যাচ টাই, সুপার ওভারে ১ রানে চিটাগং ভাইকিংস জয়ী। ম্যাচসেরা: রোবি ফ্রাইলিঙ্ক।

খেলা এর আরও খবর

অঘটন! ফেদেরারের বিদায়!!

দুর্দান্ত ছন্দে ছিলেন রজার ফেদেরার। অনেকটা হেসে খেলেই জায়গা করে নিয়েছিলেন সেরা ষোলতে! কিন্তু কে জানতো এখানেই থ...