Alexa

তিন সেঞ্চুরির ম্যাচে শেষ হাসি রূপগঞ্জের

তিন সেঞ্চুরির ম্যাচে শেষ হাসি রূপগঞ্জের

লিজেন্ডসদের জয়ের নায়ক নাঈম শেখ

একেই বলে সেয়ানে সেয়ানে লড়াই।

এক দল করলো ৩৫৭ রান। অন্য দল থামলো এসে ৩৩৪ রানে। সবমিলিয়ে ম্যাচে সেঞ্চুরি হলো তিনটি। দুদলের মিলিয়ে স্কোরবোর্ডে জমা ৬৯১ রান! বাউন্ডারি হলো ৫৮টি। ছক্কা ১৮টি। বিকেএসপির মাঠে রান উৎসবের এই ম্যাচ শেষ পর্যন্ত ২৩ রানে জিতলো লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ।

এই ম্যাচে বোলাররা পুরোপুরি বেচারা হয়ে রইলেন! ব্যাটকে মুগুর বানিয়ে বল পেটালেন ব্যাটসম্যানরা। রূপগঞ্জের ওপেনিং জুটিতে যোগ হলো ১৭.২ ওভারে ১৩২ রান। এই শক্ত ভিত্তির ওপর বিশাল স্কোর দাড় করালো লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। ওপেনার নাঈম শেষ ১০৮ বলে চলতি লিগে নিজের প্রথম সেঞ্চুরি করলেন। ৬ ছক্কা ও ৮ বাউন্ডারিতে নাঈমের ১২২ রানের সেঞ্চুরি সাহস যোগালো অভিজ্ঞ নাঈম ইসলামকেও। মাত্র ৯৮ বলে তার ব্যাটেও ১০৮ রানের ঝলমলো সেঞ্চুরির হাসি। এই দুজনের সেঞ্চুরির উপর চড়ে রূপগঞ্জের স্কোরবোর্ড রানে ফুলে ফেঁপে উঠলো ৭ উইকেটে ৩৫৭ রানে। চলতি লিগে এটি এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ স্কোর।

আটজন বোলার ব্যবহার করেও রূপগঞ্জের রান ফোয়ারা আটকাতে পারেনি শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব।

জবাব দিতে নামা শাইনপুকুরের শুরুটাই হলো ব্যাটিং বিস্ফোরণে! মাত্র ১৩.৪ ওভারে প্রথম উইকেট জুটিতে রান ১০৪! বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে ছক্কা-চারের ঝড় উঠছে যেন। ওপেনার সাব্বির হোসেন ৮৭ বলে ১০০ রান করে ফিরলেন।

ম্যাচের বাকি সময়টা তৈাহিদুল হৃদয়ের ব্যাটিং আনন্দে ভাসলো। খুব যে মারকুটো ইনিংস খেললেন তৌহিদুল হৃদয়, তা কিন্তু নয়। ৮১ বলে ৮৩ রানের ইনিংসে বাউন্ডারি মাত্র ৬টি, ছক্কা ১টি। তবে যতক্ষণ উইকেটে ছিলেন ততক্ষণ যেন ম্যাচ জয়ের জন্য প্রায় অসম্ভব এক টার্গেটের পেছনে ছুটছিলো শাইনপুকুর। দলকে ৩০০ রানে পৌছে দিয়ে তৌহিদুল যখন ফিরলেন তখন ম্যাচ জিততে শাইনপুকুরের প্রয়োজন ২৫ বলে ৫৮ রান। বল ও রানের সেই ব্যবধান দলের শেষের দিকের ব্যাটসম্যানরা পার করতে পারেননি।

৪৯ ওভারে শেষ হয় শাইনপুকুরের স্বপ্ন ছড়ানো রান তাড়া!

সংক্ষিপ্ত স্কোর: লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ: ৩৫৭/৭ (৫০ ওভারে, আজমীর ৪৮, নাঈম শেখ ১২২, নাঈম ইসলাম ১০৮, হামিদুল ২/৪৫, সুজন হাওলাদার ২/৭৫, দেলোয়ার ২/৬৭)। শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব: ৩৩২/১০ (৪৯ ওভারে, সাব্বির হোসেন ১০০, তৈাহিদুল হৃদয় ৮৩, সোহরাওয়ার্দি শুভ ৩৪, নাবিল ৩/৫১, আসিফ ২/৬৬)। ফল: লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ২৩ রানে জয়ী। ম্যাচ সেরা: নাঈম শেখ।

আপনার মতামত লিখুন :