আবাহনীর চারে চার, ওয়াসিম জাফর ম্যাচ সেরা



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
ব্যাট হাতে আবাহনীর ক্রিকেটার ওয়াসিম জাফর, ছবি: সংগৃহীত

ব্যাট হাতে আবাহনীর ক্রিকেটার ওয়াসিম জাফর, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ম্যাচটা জিততে আবাহনীকে লম্বা সময় পর্যন্ত খেলতে হয়েছে, ৪৮.৩ ওভার। ব্যস কষ্ট বলতে ওটুকুই। বাকি সবকিছু আবাহনীর জন্য বেশ সহজই ছিলো ম্যাচে। ৫ উইকেটের এই জয়ে আবাহনী লিগে তাদের টানা চার ম্যাচের সবকটিতেই জিতলো। চারে চার। শতভাগ জয়ের রেকর্ড নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে গেলবারের চ্যাম্পিনয়রা।

ফতুল্লায় আবাহনীর জয়ে ব্যাট হাতে জয়ের কাজ সহজ করে দেন ওয়াসিম জাফর। ভারতের এই ক্রিকেটার ১০৬ বলে ৭৬ রান করেন। বাউন্ডারি হাঁকান মাত্র ৪টি। পুরো ম্যাচের একমাত্র হাফ সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব তারই।

ফতুল্লার স্লো এবং স্পিন সহায়ক উইকেটে সকালের সেশনে শাইনপুকুরের ব্যাটিং ভালো হয়নি। শুরুর তিন ব্যাটসম্যান ব্যর্থ হলে মিডল অর্ডারে তৌহিদুল হৃদয় ব্যাট হাতে প্রতিরোধ গড়েন। কিন্তু লম্বা সময় উইকেটে টিকে থেকেও তৌহিদুল ৭৪ বলে ৩৯ রান করে ফিরেন। নাজমুল ইসলাম অপুর স্পিনে কাটা পড়েন তিনি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/19/1552996855089.jpg

দলের স্কোর যে ২০৩ রানে পৌঁছলো। সেজন্য ধন্যবাদটা আফিফ হোসেন ধ্রুবর পাওনা। ৫৭ বলে ৪৮ রান করেন আফিফ। ৬ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় আফিফ এই রান করেন। মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত বল হাতে আবাহনীর সেরা পারফর্মার। ৪১ রানে ৩ উইকেট পান তিনি।

জয়ের জন্য ২০৪ রানের টার্গেটের পেছনে ছুটতে নেমে আবাহনীর জয়ের কাজটা সহজ হয়ে যায় মূলত ওপেনিং জুটিতেই। দলীয় ৬২ রান তুলে বিচ্ছিন্ন হন ওপেনার সৌম্য সরকার। চলতি লিগে এটা সৌম্যের প্রথম ম্যাচ। ৫৭ বলের মোকাবেলায় ৩৩ রান করেন এই বাঁহাতি। নাজমুল হোসেন শান্তর ব্যাট থেকে আসে ৫২ বলে ৪২ রানের ইনিংস।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: শাইনপুকুর ২০৩/৯ (৫০ ওভারে, আফিফ ৪২, তৌহিদুর ৩৯, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ৩/৪১)। আবাহনী: ২০৬/৫ (৪৮.৩ ওভারে, ওয়াসিম জাফর ৭৬, সৌম্য ৩৩, নাজমুল ৪২, মুনিম সরকার ২১*, শরিফুল ৩/৪৪)। ফল: আবাহনী ৫ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: ওয়াসিম জাফর।