জিতলেই ফাইনাল, বাংলাদেশের সামনে আজ ভারত প্রাচীর!

এম. এম. কায়সার, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
ছবি: বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন

ছবি: বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন

  • Font increase
  • Font Decrease

আকাশ আর পাতাল!

দুই দলের শক্তিসাফল্য, পরিসংখ্যান পেছনের লড়াইয়ের হিসেব মেলালে যে উত্তর বেরিয়ে আসছে, তাই লেখা প্রথম লাইনে!

নারীদের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবলে বাংলাদেশ-ভারতের বুধবারের (২০ মার্চ) সেমিফাইনালে পরিষ্কার হট ফেভারিট ভারত। নেপালের বিরাট নগরে বাংলাদেশ সময় দুপুর ৩টা ১৫ মিনিটে এই সেমিফাইনাল শুরু হবে। ভারত নিজেও জানে তারা এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন ট্রফিই জিততে এসেছে। বাকিরা লড়াই করুক রানার্সআপ ট্রফির জন্য! এই টুর্নামেন্টে পেছনের পরিসংখ্যান স্বয়ংক্রিয় ভাবে সেই মর্যাদাই দিচ্ছে। নারীদের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের এটি পঞ্চম আসর। এর আগের যে চারটি টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়েছে তার সবগুলোর ফাইনালে খেলেছে ভারত।

ভাবছেন এই আর কি? তাহলে শুনুন সেই চার ফাইনলে প্রতিবারই জিতেছে ভারত। অর্থাৎ এই টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত ভারত ছাড়া আর কোন দলই শিরোপা জেতেনি। সেই ভারতকেই এবার সেমিফাইনালে মোকাবেলায় নামছে বাংলাদেশ।
যে দলের প্রতিবারই ফাইনালে খেলা এবং চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অভূতপূর্ব রেকর্ড আছে; তেমন শক্তিশালী দলের বিপক্ষে নকআউট ম্যাচে লড়াই চাট্টিখানি কথা নয়।

তবে সাফের এই শক্তিশালী পরিসংখ্যান যদি ভারত বুধবারের সেমিফাইনালে হট ফেভারিটের মর্যাদা দেয়; তবে সামান্য আশা এবং আত্মবিশ্বাসী হওয়ার একটা উপায় বাংলাদেশেরও আছে। এখন পর্যন্ত এই টুর্নামেন্টে সবমিলিয়ে ভারত খেলেছে ২১টি ম্যাচ। জিতেছে ২০ ম্যাচে। ড্র করেছে মাত্র একটিতে। সেই ড্র হওয়া ম্যাচে ভারতের প্রতিপক্ষ ছিলো বাংলাদেশ!

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/20/1553053563041.jpg

সেই অর্থে বলা যায় সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে শক্তিমান ভারতের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে ভাল ফলাফল করা দল হলো বাংলাদেশ। আজকের সেমিফাইনালে সেখান থেকেই অনুপ্রেরণা ও বাড়তি প্রেষণা পেতে পারে বাংলাদেশ।

স্বপ্ন আছে অনেক দুরের যাওয়ার। তবে বাস্তবতাও মেনেই বাংলাদেশ কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটন বলছেন, ‘ভারত অনেক অভিজ্ঞ দল। বয়সেও আমাদের দলের চেয়ে বেশি। শারীরিকভাবেও শক্তিশালী তারা। মাঠে ওদের দলের শক্তিশালী দিকটা হলো মাঝমাঠ থেকে আক্রমণভাগ। এই ম্যাচে আমরা আন্ডারডগ হিসেবেই খেলবো। তবে মনে রাখবেন ফুটবলের অতীত বলছে অনেক সময় আন্ডারডগ দলই ম্যাচে প্রভাব দেখিয়ে খেলে।’

সেমিফাইনালে বাংলাদেশ দলের কাছ থেকে সেই প্রভাবী ফুটবলই আশা করছেন কোচ ছোটন। নকআউট ম্যাচে জিততে হলে গোল করতে হবে। আর ম্যাচ জয়ের সেই পরিকল্পনা নিয়েই কোচ জানালেন, ‘আমাদের আক্রমণভাগে চারজনের একটা জোট থাকবে। নেপালের ম্যাচে স্বপ্নার ওয়ার্ক লোড একটু বেশি ছিলো। তবে এই ম্যাচে কৃষ্ণা ও সানজিদা থাকবে তার সঙ্গে আক্রমণভাগে। সংঘবদ্ধ আক্রমণে যাবে মেয়েরা। আমরা জয়ের জন্যই মাঠে নামবো। আশা করছি মেয়েরা তাদের সর্বোচ্চ দিয়েই এই ম্যাচে লড়বে।’

ম্যাচে আক্রমণ এবং ডিফেন্স উভয় ফরমেট ঠিক রেখেছে বাংলাদেশ। আক্রমণে গেলে ৪-২-৪ ছন্দে। আর রক্ষণে নামলে ৪-৪-২ এর ফর্মেশন।

আপনার মতামত লিখুন :