‘বিশ্বকাপ দলে সবাই অটোমেটিক চয়েজ নয়’

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
আকরাম খান : বিসিবি’র টিম অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান

আকরাম খান : বিসিবি’র টিম অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান

  • Font increase
  • Font Decrease

-আকরাম ভাই, বিশ্বকাপ দল কবে ঘোষণা হবে?

‘‘অবশ্যই ২২ এপ্রিলের আগে। কয়েকজন খেলোয়াড়ের ফর্ম নিয়ে আমরা কিছুটা দুঃশ্চিন্তায় আছি। সেই এক-দুজনের ফর্ম সামনের ঘরোয়া ম্যাচগুলোতে আমরা দেখবো। সুপার লিগের কয়েকটি ম্যাচেও তারা পারফর্ম করার সুযোগ পাবে। আশা করছি বিশ্বকাপের দলটা আমরা ১৯ এপ্রিল সবাইকে জানাতে পারবো।’’

-বিশ্বকাপ দল গঠনের কোন বৈশিষ্ঠ্য বা ক্রাইটেরিয়া কি নির্ধারণ করা আছে?

আকরাম খানের পরিস্কার জবাব-‘বিশ্বকাপে সবাই কিন্তু অটোমেটিক চয়েজ নয়। আমাদের মুল পারফর্মার বিশেষ করে যারা সবচেয়ে সিনিয়র, সেই তারাই শুধুমাত্র অটোমেটিক চয়েজ। এই তালিকার বাইরে যারা আছে তারা যদি পারফর্ম করতে না পারে তবে বিশ্বকাপে তারা অটোমেটিক চয়েজ নয়।’

-তাহলে কারা অটোমেটিক চয়েজ?

সেই উত্তর জানতে খুব বেশি জ্ঞান খরচের প্রয়োজন নেই। নামগুলো প্রায় জানা সবার। মজার বিষয় হলো সেই অটোমেটিক চয়েজে থাকা অনেকেই আবার এখন পর্যন্ত চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগেও খেলেননি! তবে যারা খেলছেন তাদের মধ্যে জাতীয় দলের বেশ কয়েকজনের পারফরমেন্স নির্বাচকদের চিন্তায় রেখেছে।

বিসিবি’র টিম অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খানও সেই চিন্তার কথাই জানালেন-‘সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড কন্ডিশনে খেলে এসেছে জাতীয় দল। কন্ডিশন বিবেচনায় ক্রিকেটের জন্য নিউজিল্যান্ড বেশ কঠিন জায়গা। সেখানে খেলে আসার পর তো জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের এখানে দেশের মাটিতে ভাল খেলার, আরো ভাল পারফর্ম করার কথা। কিন্তু দুভার্গ্যজনক বিষয় হলো আমরা যে ধারণা করেছিলাম তারা সেটা করতে পারছে না। ক্রিকেটে ফর্ম অনেক বড় ও গুরুত্বপূর্ণ ইস্যূ।’

-তাহলে যে বলা হয় ফর্ম ইজ টেম্পেরারি, ক্লাস ইজ পারমানেন্ট!

আকরাম খান কোন বিতর্কে না গিয়ে নিজের ব্যাখায় বললেন-‘ওয়ানডে ক্রিকেটে ক্রিকেটারের ফর্ম না থাকলে বা রান করতে না পারলে দলের জন্য ম্যাচ জেতাটা কঠিন হয়ে দাড়ায়। সেজন্যই আয়ারল্যান্ড সফর ও বিশ্বকাপের জন্য দল গঠনে আমরা ক্রিকেটারদের ফর্মকে অনেক গুরুত্ব দিচ্ছি। যারা ফর্মে নেই তাদের ব্যাপারে আমরা অবশ্যই চিন্তিত। তবে আশা করছি ঢাকা লিগের সামনের সুপার লিগে এই ক্রিকেটাররা ফর্মে ফিরে আসবে। তারা ফর্মে ফিরলে সেটা বাংলাদেশ দলের জন্যই ভালো।’

একটা বিষয়ে আকরাম খান পরিস্কার বার্তা দিয়েছেন-‘যারা অটোমেটিক চয়েজ তালিকায় নেই, তাদের জায়গায় যদি অন্য কেউ পারফর্ম করে তবে পারফর্মারদের দলে চলে আসার সুযোগ থাকছে। নির্বাচকরাও এই ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করবেন। সেজন্যই আমরা লিগের আরো দুই তিনটা ম্যাচ দেখবো। ১১ জনের দলের তিনজন খেলোয়াড় যদি অফফর্মে থাকে তবে সেটা পুরো দলের জন্য সমস্যার তৈরি করে। তখন দলে বড় শূন্যতার সৃষ্টি হয়। বিষয়টি নিয়ে নির্বাচকদের সঙ্গে আমরা কথাবার্তা বলেছি। আর তাই বিশ্বকাপের দল ঘোষণার জন্য ঘরোয়া লিগের আরো দুই-তিনটা ম্যাচ দেখবো আমরা।’

আপনার মতামত লিখুন :