Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

English

জেতার বিশ্বাস নিয়েই বিশ্বকাপে যাচ্ছেন তামিম

জেতার বিশ্বাস নিয়েই বিশ্বকাপে যাচ্ছেন তামিম
তামিম ইকবাল, ছবি: সংগৃহীত
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা ২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বকাপ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই শুরু হচ্ছে আরেকটি হিসেব গোনা- কে ফেভারিট? এই প্রশ্নে আপাতত কোনো ক্রিকেট পণ্ডিত বাংলাদেশের নাম রাখেননি। তবে কে বাংলাদেশকে ফেভারিট বললো আর কে বললো না-তা নিয়ে বিতর্কে যেতে রাজি নন তামিম ইকবাল। নিজের বিশ্বাসটা নিজের কাছেই তার। সেই বিশ্বাস নিয়েই তামিম বললেন- ‘দেখুন এই বিশ্বকাপে ১০টা দল খেলছে। কোনো দলই কিন্তু স্রেফ অংশগ্রহণ করার জন্যই খেলছে না সবাই যাচ্ছে জেতার জন্য। আমরাও যাচ্ছি জেতার জন্যই।’

জেতার বিশ্বাসটা যদি নিজের মধ্যেই না থাকে তবে জিতবো কেমন করে? তাই বাংলাদেশ দলকে নিয়ে অন্যরা কে কি হিসেব করলো সেটা গোনায় না ধরে নিজের আস্থা নিয়েই সামনে বাড়তে চান তামিম- ‘আমি যদি বলি যে শুধু অংশগ্রহণ করার জন্য যাচ্ছি তাহলে যাওয়ার কোনো মানেই হয় না। আমরা পারি বা না পারি, আমাদের বিশ্বাস করতে হবে যে আমরা জিততে পারি। এই বিশ্বাস নিয়েই আমাদের যেতে হবে।’

মঙ্গলবার নির্বাচকরা যখন বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করে সংবাদ সম্মেলন থেকে বেরিয়ে আসছিলেন তামিম ইকবাল তখন মিরপুরের সেন্টার উইকেটে ব্যাটিং অনুশীলনে ব্যস্ত। শেষের দিকে ধুমধাম কিছু ছক্কা হাঁকিয়ে বিশ্রাম নিতে ড্রেসিংরুমে ফিরলেন। বাউন্ডারি লাইনের কাছে এসে গ্লাভস-প্যাড খুলে রাখছিলেন।

-তামিম কংগ্রাচুলেসন!

নাটুকে ভঙ্গিতে চমকে উঠে তামিমের স্বস্তি- ‘দলে আছি তাহলে আমি!’ মুখে দুষ্টামির হাসি নিয়ে ড্রেসিংরুমের পথে হাঁটা দিলেন।

বুধবার আরেকবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন তামিম। এবার গল্পের সময়টা আরও বাড়লো।

-কেমন হলো বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দল?

এই প্রশ্নে নির্বাচকদের হয়েই ব্যাট করলেন তামিম- ‘ আমার মনে হয় যেই স্কোয়াডই দেয়া হোক না কেন, যেই খেলোয়াড়কে নেয়া হোক বা কেন, সবারই কিছু না কিছু যদি-কিন্তু থাকবেই। কিছু পছন্দ-অপছন্দ তো থাকবেই। এটাই নিয়ম। আমার মনে হয় এখন দলে কে থাকা উচিত ছিল বা কে থাকলে ভালো হতো, এই আলোচনা না করে যেই ১৫ জনকে নির্বাচিত করা হয়েছে তাদের পুরোপুরি সমর্থন করা। অমুকের জায়গায় অমুক থাকলো ভালো হতো, এমনসব প্রশ্ন এখন তুললে, যারা সুযোগ পেয়েছে তারা মন ছোট করবে। আমরা চার বছর অপেক্ষা করেছি বিশ্বকাপের জন্য। এখন আমাদের সবার উচিত হবে পুরো দলের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি করা।’

২০০৭ সাল থেকে বিশ্বকাপ খেলছেন তামিম ইকবাল। এটি হতে যাচ্ছে তার চতুর্থ বিশ্বকাপ। ২০০৭ সালের বিশ্বকাপের মাঠেই তামিম ইকবালকে প্রথম চিনেছিল ক্রিকেট বিশ্ব। ভারতের বিরুদ্ধে তার সেই মারকুটো হাফসেঞ্চুরিতেই ঘোষিত হয়েছিলো নতুন এক তারকার জন্ম কাহিনী। সেদিনের তরুণ তামিম ইকবাল এখন পরিণত এক ক্রিকেটার। সেই দৃষ্টিভঙ্গি নিয়েই জানালেন-‘আমি কখনো টার্গেট সেট করতে পছন্দ করি না। আমার লক্ষ্য একটাই দলের চাহিদা মেটানো। দল আমার কাছ থেকে যা চায় সেটা যেন পুরো করতে পারি।’

তামিম আপনার কাছ থেকে দল একটা জিনিষই চায়-জয়!

আপনার মতামত লিখুন :

প্রীতি ম্যাচে মেসিহীন আর্জেন্টিনা

প্রীতি ম্যাচে মেসিহীন আর্জেন্টিনা
নিষেধাজ্ঞার কারণে প্রীতি ম্যাচে খেলতে পারছেন না মেসি, ছবি: সংগৃহীত

লিওনেল মেসিকে ছাড়াই প্রীতি ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে আর্জেন্টিনা। শুধু মেসি নন। দলে নেই সার্জিও আগুয়েরো এবং অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। তাদের অনুপস্থিতিতে আলবিসেলেস্তের আক্রমণভাগে নেতৃত্ব দিবেন পাওলো দিবালা।

৫ সেপ্টেম্বর চিলির বিপক্ষে খেলবে আর্জেন্টিনা। পাঁচ দিন পর মোকাবেলা করবে মেক্সিকোকে। এই দুই প্রীতি ম্যাচকে সামনে রেখে ২৭ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে কোচ লিওনেল স্কালোনি।

সম্প্রতি শেষ হওয়া কোপা আমেরিকা চলাকালে দক্ষিণ আমেরিকা ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বেফাঁস মন্তব্য করে ছিলেন মেসি।

সে অপরাধে আন্তর্জাতিক ফুটবলে তিন মাসের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন আর্জেন্টাইনে এ ফুটবল জাদুকর। একারণেই দল থেকে ছিটকে গেছেন বার্সার প্রাণভোমরা।

অক্টোবরে জার্মানির বিপক্ষে একটি প্রীতি ম্যাচ ও বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের একটি ম্যাচও মিস করবেন মেসি।

প্রীতি ম্যাচের আগে বার্সার হয়ে লা লিগায় প্রথম ম্যাচ মিস করেছেন মেসি। ম্যাচে অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে অবশ্য ১-০ গোলে হেরে যায় তার দল। কাফ ইনজুরি কাটিয়ে এখন একা একা অনুশীলন করছেন তিনি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, সতীর্থদের সঙ্গে অনুশীলন করতে প্রস্তুত এখন মেসি।

 

ভুয়া হুমকিতে কোহলিদের নিরাপত্তা জোরদার

ভুয়া হুমকিতে কোহলিদের নিরাপত্তা জোরদার
উইন্ডিজ সফররত ভারতীয় ক্রিকেটারদের জন্য বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা, ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় ক্রিকেট দলের ওপর সন্ত্রাসী হামলা হতে পারে। এমন আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। তাদের ভাষ্য, পুরো খবরটাই আসলে ভুয়া। ক্রিকেটাররা কোনো ধরনের হুমকির মধ্যে নেই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে খবর ছড়িয়ে পড়েছে তা পুরোপুরি ধোঁকাবাজি।

শোনা যায়, ১৬ আগস্ট শুক্রবার বেনামি এক ইমেইল পায় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। তাতে জানানো হয়, ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফররত ভারতীয় ক্রিকেট দলের ওপর সন্ত্রাসী হামলা হতে পারে। সঙ্গে সঙ্গে তারা ইমেইলটি পাঠিয়ে দেয় আইসিসিকে। ইমেইলের একটি কপি পায় বিসিসিআইও।

শনিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পরিস্থিতি অবহিত করে বিসিসিআই। যোগাযোগ করে অ্যান্টিগাস্থ ভারতীয় দূতাবাসের সঙ্গে। খবর দেওয়া হয় মহারাষ্ট্রের ডিরেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (ডিজিপি) ও মুম্বাই পুলিশকেও। সঙ্গে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অ্যান্টিগায় অবস্থানরত ভারতীয় ক্রিকেটারদের।

ইমেইল প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বিসিসিআই জানায়, ইমেইলে ভারতীয় ক্রিকেটারদের মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়েছে। তবে তা সত্য নয়। এটা ধাপ্পাবাজি ছাড়া আর কিছুই নয়।

ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে ইতোমধ্যে টি-টুয়েন্টি ও ওয়ানডে সিরিজ জিতে নিয়েছে অধিনায়ক বিরাট কোহলির দল। এখন দুদল মোকাবেলা করবে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে।

অ্যান্টিগায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ভারতের মধ্যে প্রথম টেস্ট শুরু হচ্ছে ২২ আগস্ট।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র