Alexa

নিজস্ব ‘ক্রিকেট ফর্মূলায়’ বিশ্বাসী গেইল

নিজস্ব ‘ক্রিকেট ফর্মূলায়’ বিশ্বাসী গেইল

ভক্ত-সমর্থকদের জন্যই ক্রিকেট খেলেন ক্রিস গেইল

তার ক্রিকেট ক্যারিয়ারের দিকে এক নজর আগে।

১০৩ টেস্টে ৭২১৪ রান। ১৫ সেঞ্চুরির মধ্যে দুটি ট্রিপল সেঞ্চুরি। ২৮৯ ওয়ানডেতে ১০ হাজারের ওপর রান। সেঞ্চুরি ২৫টি। এর মধ্যে ডাবল সেঞ্চুরি আছে একটি। আর টি-টুয়েন্টিতে তো তাকে নাম ইউনিভার্সেল বস্! এই ফরম্যাটের ক্রিকেটে যা করেছেন তার ধারে কাছে নেই কেউ। ক্যারিয়ারের ৩৮৪ টি টি-টুয়েন্টিতে রান ১২ হাজারের ওপরে। সেঞ্চুরি ২১টি।

বয়স ৩৯। এবার নিয়ে খেলবেন পাঁচটি বিশ্বকাপ। এমন রেকর্ড যার সেই ক্রিকেটারের কি আর নতুন করে নিজেকে প্রমাণের কিছু আছে?

না নেই। আর সে কারণেই ক্রিস গেইল নিজেও বলছেন-‘কারো কাছে আমার নিজেকে প্রমাণ করার কিছু নেই। আমি ক্রিকেট খেলি আমার ভক্ত-সমর্থকদের জন্য। কয়েক বছর আগে আমার মনে হয়েছিলো অনেক হয়েছে, আর কতো খেলবো। নিজেকে প্রমান করার মতো তো আর কিছু নেই। তখনই ভক্ত-সমর্থকরা জোর দাবি করে জানিয়েছিলো-না এখনই যেও না! মুলত সেই ভক্ত-সমর্থকদের জন্যই আমি আজো খেলে চলেছি।’

ক্রিকেটের সঙ্গে গেইলের সেই পথচলা থেমে যাবে এবারের বিশ্বকাপের পরেই-‘ কোনোকিছুই তো আর চিরদিন টিকে না। আমি আশা করছি এবারের বিশ্বকাপে আমি আমার ফ্যানদের আনন্দ দিতে পারবো। বিশ্বকাপ জেতার জন্য চেষ্টা চালাবো। নিজেকে সেই উদ্দীপনায় উজ্জ্বীবিত করছি।’

১৯৯৯ সালের ১১ সেপ্টেম্বর ওয়ানডে ক্রিকেটে ক্রিস গেইলের অভিষেক। ২০ বছর ধরে আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট খেলে চলেছেন। পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছেন। এত লম্বা সময় ধরে ক্রিকেট এবং এতোগুলো বিশ্বকাপ খেলার কথা কখনোই চিন্তা করেননি গেইল। সেই প্রসঙ্গে বললেন-‘এত বছর ধরে ক্রিকেট খেলবো কখনো ভাবিনি। সময় যেন ডানায় ভর করে উড়ে গেলো! এই যে এতোগুলো বিশ্বকাপ খেলবো, সেটাও কখনো চিন্তা করিনি। কিন্তু সেটাই ঘটলো। পেছনের বছরগুলোতে কঠিন পরিশ্রম আমার কাজে লেগে লেগেছে।’

নিজের ক্রিকেটকে একটু ভিন্নমাত্রায় নিয়ে গেছেন ক্রিস গেইল। নিজস্ব একটা ‘ক্রিকেট ফর্মূলা’ বানিয়েছেন। সেটাই অনুসরণ করেন। তার খেলার স্টাইল খুব বেশি কারো সঙ্গে মিলে না। এমনকি ফিটনেস ঠিক রাখার জন্যও গেইলের কৌশল বাকিদের চেয়ে ভিন্ন।

জানাচ্ছিলেন-‘আমি অনেক সময় জিমনেসিয়ামে ব্যায়াম-ট্যায়াম করি না। ফিটনেসের জন্য ম্যাসাজ নেই। অথবা যোগ ব্যায়াম করি। প্রচুর সময় নেই বিশ্রামে কাটাতে। যাতে করে ম্যাচের দিন ফ্রেস হয়ে মাঠে নামতে পারি। মাঠে নিজেকে ফিট রাখতে হলো আমাকে কি করতে হবে-সেটা আমার ভালোই জানা।’

ব্যাটিং নিয়ে ক্রিস গেইল তার বিশ্লেষণে বলেন-‘প্রত্যেক ক্রিকেটারের নিজস্ব একটা ফর্মূলা থাকে। বিরাট কোহলির জন্য যা খাটতে বা কাজে লাগতে পারে সেটা আমার জন্য নাও লাগতে পারে। সবার উচিত নিজস্ব ফর্মূলায় স্থির থাকা।’

ব্যাটিং নিয়ে ক্রিস গেইলের ফর্মূলাটা খুবই পরিচিত-‘বল উইকেটে পড়লো, ব্যাট চালাও, বল গ্যালারিতে, ছক্কা!’

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপেও সেই ফর্মূলার গেইলের দেখা মিলছে তাহলে?

আপনার মতামত লিখুন :