Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

ট্রফির সঙ্গে অনেক কিছুই পেলেন অধিনায়ক মাশরাফি

ট্রফির সঙ্গে অনেক কিছুই পেলেন অধিনায়ক মাশরাফি
টাইগার ক্যাপ্টেন মাশরাফি বিন মর্তুজা
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

ঠিক যা যা চেয়েছিলেন এই টুর্নামেন্ট থেকে তার সবকিছুই পেলেন অধিনায়ক মাশরাফি। বাংলাদেশ ক্রিকেটের অনেক সাফল্যের সঙ্গে লেখা তার নাম। প্রথমবারের মতো বহুজাতিক কোনো ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ট্রফি জয়ী বাংলাদেশি অধিনায়ক হিসেবেও সৌভাগ্যটা তারই।

আয়ারল্যান্ডের তিনজাতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে খেলতে যাওয়ার আগে মাশরাফি বলেছিলেন-‘বিশ্বকাপের জন্য এটা হবে আমাদের প্রস্তুতি।’ তো সেই প্রস্তুতিটা এতোই ভালো হলো যে এখন বিশ্বকাপের মতো কঠিন টুর্নামেন্টকে খুব কঠিন কিছু মনে হচ্ছে না তার। তবে ট্রফি জয়ের দিনেও বিশ্বকাপ বাস্তবতা ঠিকই মনে করে দিলেন অধিনায়ক- ‘বিশ্বকাপের মাঠের উইকেট হবে আরো রানের উইকেট। সেখানকার কন্ডিশন হবে আরো কঠিন। তবে হ্যাঁ এই টুর্নামেন্ট থেকে আমরা ট্রফি জেতার সঙ্গে যা পেয়েছি তার নাম আত্মবিশ্বাস। বিশ্বকাপের লড়াইয়ে এই আত্মবিশ্বাসটাই আমাদের অনেক কাজে লাগবে।’

মাশরাফি জানেন বিশ্বকাপের প্রায় প্রতিটি ম্যাচে সাফল্য পেতে হলে দুটি বিষয় আবশ্যিক। আগে ব্যাটিং করলে স্কোরবোর্ডে বড় সঞ্চয় জমা করতে হবে। আর পরে ব্যাটিং করলে বড় রান তাড়া করে ম্যাচ জিততে হবে।

পরে ব্যাটিং করে ম্যাচ জেতার ভালো অভ্যাসটা অন্তত আয়ারল্যান্ডের এই টুর্নামেন্ট থেকে পেয়ে গেলো বাংলাদেশ। মাশরাফি সেই প্রসঙ্গে বলছিলেন-‘দেখুন যে কোনো টুর্নামেন্টে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হওয়া সহজ বিষয় নয়। আমরা এবার সেটা করে দেখাতে পেরেছি। পুরো দলের আত্মবিশ্বাস এতে অনেক বাড়বে। তাছাড়া বড় রান করে বাংলাদেশ যে ম্যাচ জিততে পারে, সেই বিশ্বাস, সেই শক্তি আমরা এই টুর্নামেন্ট থেকে নিয়ে যাচ্ছি।’

শুক্রবারের বৃষ্টিবাধায় পড়া ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তোলে ১৫২ রান। কিন্তু বৃষ্টিতে ম্যাচের ওভার করে যাওয়ায় ডার্কওয়ার্থ লুইস মেথেড অনুযায়ী বাংলাদেশের টার্গেট বেড়ে যায় অনেক। ২৪ ওভারে করতে হবে ২১০ রান। ওভার প্রতি প্রায় ৮ রানের বেশি। যে কোনো হিসেবে এটা কঠিন টার্গেট।

কিন্তু সেই কঠিন টার্গেটই ৫ উইকেট অক্ষত এবং ৭ বল বাকি থাকতেই টপকে যায় বাংলাদেশ। এই ম্যাচ জয়ের কৃতিত্ব দলের সবাইকে ভাগ করে দিলেন অধিনায়ক-‘ব্যাটিংয়ের শুরুটা আমাদের চমৎকার হয়েছে। সৌম্য মারকুটে ভঙ্গিতে ব্যাট করেছে। মুশফিক ও মিঠুন মাঝে কার্যকর ইনিংস খেলেছে। আর শেষের দিকে মাহমুদউল্লাহ ও মোসাদ্দেক দুর্দান্ত ফিনিশিং দিয়েছে।’

শুরু, মাঝে এবং শেষে-ব্যাটিংয়ের তিন স্তরে দুর্দান্ত পারফরমেন্স দেখিয়ে বাংলাদেশ এই ম্যাচ জিতেছে।

ট্রফি হাতে নিয়ে বিজয় মঞ্চে উল্লাসের জন্য পুরো দলকে ডেকে নিয়ে এলেন মাশরাফি। ট্রফি উঁচিয়ে জানালেন-ধন্যবাদ দল, এই সাফল্যের আমাদের বড্ড প্রয়োজন ছিলো।

আপনার মতামত লিখুন :

ভাঙল জোকোভিচের শিরোপা স্বপ্ন

ভাঙল জোকোভিচের শিরোপা স্বপ্ন
শেষ চারে হেরে হতাশ জোকোভিচ, ছবি: সংগৃহীত

শিরোপা জয়ের স্বপ্নই দেখেছিলেন নোভাক জোকোভিচ। কিন্তু ভাগ্য সহায় হয়নি। তাই শিরোপা তো দূরে থাক সিনসিনাটি মাস্টার্সের ফাইনালেই উঠা হয়নি এ সার্বিয়ান তারকার। প্রতিপক্ষ দানিল মেদভেদেভের কাছে অঘটনের শিকার হয়ে ১৬ গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী এ মেগাস্টার বিদায় নিলেন টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল থেকে।

শেষ চারের লড়াইয়ে প্রথম সেট ৬-৩ গেমে জিতে এগিয়ে ছিলেন বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর তারকা। কিন্তু পরের দুই সেটে খেই হারিয়ে ফেলেন জোকোভিচ। ৬-৩ ও ৬-৩ গেমে হার মানেন নবম বাছাই রুশ প্রতিপক্ষের কাছে।

অঘটনের এ জয়ে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচের টিকিট পেয়ে গেছেন মেদভেদেভ। আসরে পুরুষদের একক ইভেন্টের শেষ ম্যাচে তার প্রতিপক্ষ আরেক অনাকাঙ্ক্ষিত ফাইনালিস্ট ডেভিড গোফিন।

১৬তম বাছাই এ বেলজিয়ান তারকা সেমিফাইনালে ৬-৩ ও ৬-৪ গেমে ফ্রান্সের রিচার্ড গ্যাসকুয়েটকে ধরাশায়ী করে প্রথম বারের মতো পৌঁছে গেছেন এটিপি মাস্টার্স ১০০০ টুর্নামেন্টের ফাইনালে।

এ আসর থেকে বিদায় নেওয়ায় ২৬ আগস্ট থেকে শুরু হতে যাওয়া ইউএস ওপেন নিয়েই এখন মনোযোগী হবেন জোকোভিচ।

 

সাকিবের সঙ্গে বিরোধ! মাহমুদউল্লাহ বললেন-আমরা এখনো বন্ধু!

সাকিবের সঙ্গে বিরোধ! মাহমুদউল্লাহ বললেন-আমরা এখনো বন্ধু!
সাকিব ইস্যুতে মুখ খুললেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ -ফাইল ছবি

ঘটনাটা বিশ্বকাপের সময়কার।

কার্ডিফে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটিং মোটেও পছন্দ করার মতো কিছু ছিলো না। ৩০ ওভারে ব্যাট করতে নেমে মাহমুদউল্লাহ সেই ম্যাচে করেছিলেন ৪১ বলে ২৮ রান। ম্যাচের ৪৫  নম্বর ওভারের শেষ বলে আউট হন। জয়ের জন্য বিশাল রান তাড়া করার জন্য সেসময় একটু দ্রুতগতিতে ব্যাট চালানোর প্রয়োজন ছিলো। কিন্তু মাহমুদউল্লাহর শামুক গতির ব্যাটিং, তাও আবার ইনিংসের একেবারে শেষের দিকে এসে-বিস্ময় ছড়ানোর মতোই তথ্য!

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১০৬ রানে হারের সেই ম্যাচে মাহমুদউল্লাহর ধীর গতির ব্যাটিংয়ের তীব্র সমালোচনা করেন সহ-অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। প্রকাশ্যে নয়। টিম মিটিংয়ে। পরের ম্যাচের একাদশ গঠন নিয়ে সহ-অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের মতামত চাওয়া হলে তিনি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে বাদ দিতে বলেন।

অবশ্য সাকিবের সেই মতামত কানে নেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। আর তাই দল নির্বাচনে তার মতামত গুরুত্ব না পাওয়ায় সাকিবও জানিয়ে দেন- দল নির্বাচন পরিকল্পনায় পরের ম্যাচগুলোতে যেন তাকে না রাখা হয়।

সাকিবের অভিযোগ-অভিমান সবকিছুই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সেই ৪১ বলে ২৮ রানের স্লো ব্যাটিং নিয়ে। 

টিম বৈঠকে সাকিবের এই অভিমানী সিদ্ধান্তের কথা মিডিয়ায়ও জানা জানি হয়ে যায়। যদিও বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট বারবারই অস্বীকার করে আসছে সাকিব-মাহমুদউল্লাহর মধ্যে এমন কিছুই ঘটেনি। তবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও সেই অভিযোগ সরাসরি অস্বীকার করলেন, এমন কিছু নয়। বললেন-‘আসলে বিষয়টা যেভাবে আসা উচিত ছিলো সেভাবে আসেনি। ভিন্নভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।’

রোববার, ১৮ আগস্ট মাহমুদউল্লাহ ফিটনেস অনুশীলনে একাই এসেছিলেন। সেখানেই সাকিবের সঙ্গে তার সাম্প্রতিক বিরোধের প্রসঙ্গ উঠতে মাহমুদউল্লাহ যা বললেন তার পুরোটাই এমন-‘আমার মনে হয় ঐ ধরনের নিউজ নিয়ে কথাবার্তা না বলাই ভালো। আমি এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে চাইছি না। শুধু একটা জিনিষ বলতে চাই, কিছু কিছু জিনিষ যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, সম্ভবত সেভাবে কিছু হয়নি বা ঘটেনি। ওসব ব্যাপারের উপস্থাপনটা হয়তো ভিন্নভাবে হতে পারতো। আমার মনে হয় না কোনো টিমমেটের সঙ্গে আমার কোনো গন্ডগোল বা কিছু হয়েছে। ও (সাকিব) এখনো আমার খুব ভালো বন্ধু। ড্রেসিংরুমে আপনারা চাইলে আসতে পারেন। আমরা কিভাবে কথা বলি। একজন একেক জনের সঙ্গে কিভাবে মজা করি। ভালো ভাবে সময় কাটাই সেটা দেখার জন্য আপনাদের (সাংবাদিকরা) সব সময় স্বাগত জানাই। ছোট হোক বড় হোক আমরা সবাই খুব ভালোভাবে থাকি। সবার সঙ্গে যেন ভালোভাবে থাকতে পারি সেজন্য আমি আমার দিক থেকে শতভাগ চেষ্টা করে যাচ্ছি। এবং দলের জন্য যেন ভালো খেলতে পারি।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র