Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ভারত-ইংল্যান্ড ফাইনাল দেখছেন ফ্লিনটফ

ভারত-ইংল্যান্ড ফাইনাল দেখছেন ফ্লিনটফ
মরগানদের নিয়ে আশাবাদী অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

১৪ জুলাইয়ের অপেক্ষায় অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ। এখনই লর্ডসের ফাইনালে ভারত ও ইংল্যান্ডকে দেখতে পাচ্ছেন তিনি। ইংল্যান্ডের সাবেক এই তারকা অলরাউন্ডার আগাম জানিয়ে দিলেন এবারের বিশ্বকাপ ফাইনালে টস করতে নামবেন এউইন মরগান ও বিরাট কোহলি!

ইনজুরির কাছে হার মেনে একটু আগেই অবসর নেওয়া ফ্লিনটফ অবশ্য বাস্তবতার নিরিখেই জানালেন, এগিয়ে আছে দুই দেশ। বলছিলেন, ‘আগেরবার শুরুতে ছিটকে গেলেও এবার ইংল্যান্ড ভাল খেলবে। আমার মনে হচ্ছে ইংলিশদের সঙ্গে ফাইনালটা হবে ভারতের। দেখুন, গত ২ বছরে এই দুটো দল শুধু উন্নতিই করছে না, হারিয়েছে প্রতিটি দলকেই।’‌

৪১ বছর বয়সী ফ্লিনটফ আরো বলছিলেন, ‘ভারতের দিকে যদি তাকাই-ওরা দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড আর অস্ট্রেলিয়া যে কোন পরিবেশেই দাপটে খেলছে। ইংল্যান্ডের পরিবেশে কোহলি-ধোনিদের খেলতে কোন সমস্যা হবে না। তবে প্রত্যেক ম্যাচেই ভাল খেলতে হবে, তাহলেই ফাইনালে ওঠা যাবে। এবার ইংল্যান্ড ও ভারতের ফাইনালে ওঠা উচিত।’‌

নিজ দেশে বিশ্বকাপ। চাপ সামলে ঠিকমতো খেলতে পারবে তো ইংল্যান্ড? অতীতে ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতার কোন রেকর্ডই যে নেই দলটির। এক সময়ের তারকা ক্রিকেটার অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ বলছিলেন, ‘‌চাপ কাটিয়ে উঠতে না পারলে বিশ্বকাপ জেতা যাবে না। ইংল্যান্ডের সামনে ভাল সুযোগ রয়েছে এবার। যদিও কাজটা সহজ নয়। ভারত ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড রয়েছে। আবার আফগানিস্তানের মতো ছোট দলকেও অবজ্ঞা করার সুযোগ নেই। গত ৫টি বিশ্বকাপে এমন উত্তেজনা ছিল না। দারুণ লড়াইয়ের একটি বিশ্বকাপ অপেক্ষায় আছে।’‌

ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনা প্রসঙ্গে আশাবাদী ফ্লিনটফ। ১৪১ ওয়ানডে খেলা এই সাবেক ক্রিকেটার জানাচ্ছিলেন, ‘দেখুন, আমাদের দলটির ওপেনিংয়ে আছেন জেসন রয় আর ডেভিড বেয়ারস্টো। মিডল অর্ডারে ক্রিস ওকস, বেন স্টোকস, মঈন আলি আর লিয়ম প্লাঙ্কেট। এরপরই এউইন মরগান, জস বাটলার আর জো রুট। একাদশের দশজন ক্রিকেটারই ব্যাট হাতে কিছু একটা করার যোগ্যতা রাখেন। গত কয়েক বছরে অনেক উন্নতি করেছে ওরা। আবার বোলিং লাইন আপটাও ভয়ঙ্কর।’‌

সব মিলিয়ে এবারের বিশ্বকাপ শেষ মরগানের হাতেই ট্রফি দেখতে পাচ্ছেন ফ্লিটনফ! তার আগে অবশ্য ৩০ মে, বৃহস্পতিবার বিশ্বকাপ মিশন শুরু হচ্ছে ইংল্যান্ডের। শুরুতেই প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা।

আপনার মতামত লিখুন :

বিশ্বকাপে নয়, অবসর ভাবনা পেছাল গেইলের

বিশ্বকাপে নয়, অবসর ভাবনা পেছাল গেইলের
আরো কিছুদিন খেলতে চাইছেন ক্রিস গেইল

ইংল্যান্ডে পা রাখার আগেই অবসরের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তিনি। জানিয়েছিলেন বিশ্বকাপ খেলেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে গুডবাই জানাবেন। কিন্তু পিছিয়ে গেল ক্রিস গেইলের অবসর। বিশ্বকাপ ময়দানে নয়, ভারতের বিপক্ষে সিরিজ শেষেই সরে দাঁড়াতে চান ‘ইউনিভার্সাল বস’ খ্যাত এই ক্রিকেটার।

আগামী ৩ আগষ্ট থেকে ৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে সিরিজ খেলবে ভারত। তিনটি টি টুয়েন্টি, তিনটি ওয়ানডে ও দুটো টেস্ট ম্যাচ। এই সিরিজেই চোখ গেইলের। নিজ দেশে মাঠে থাকতে চান তিনি।

গেইল বলছিলেন, ‘দেখুন, বিশ্বকাপেই সবশেষ হয়ে যাচ্ছে না। আরও কয়েকটি ম্যাচ খেলেই আমি অবসর নেব। ভারতের বিপক্ষে একটি টেস্ট ম্যাচ খেলতে চাই। তারপর ভারতের সঙ্গে অবশ্যই ওয়ানডে সিরিজ খেলব। তবে টি-টোয়েন্টি খেলব না। এটাই আমার পরিকল্পনা।’

তার এই ঘোষণার পরই ওয়েস্ট ইন্ডিজের মিডিয়া ম্যানেজার ফিলিট স্পনার জানিয়ে রাখলেন, ‘ক্রিস গেইল ভারতের বিরুদ্ধেই শেষ সিরিজটা খেলবে।’ এর অর্থ বিশ্বকাপ শেষেও উইন্ডিজের জার্সিতে দেখা মিলবে ৩৯ বছর বয়সী এই মারকুটে ব্যাটসম্যানের।

সন্দেহ নেই ভারতের বিপক্ষে সিরিজের পর ক্যারবীয় জাতীয় দলকে গুডবাই বলবেন ১০৩ টেস্টে ৪২.১৯ গড়ে ৭২১৫ রান করা গেইল। ২৯৪ ওয়ানডে ম্যাচ খেলে ১০৩৪৫ রান করা এই লিজেন্ডের দল অবশ্য বিশ্বকাপে ভাল করতে পারেনি। অবশ্য এখনো সেমি-ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা কিছুটা হলেও টিকে আছে।

সেই সম্ভাবনা টিকিয়ে রাখতে হলে বৃহস্পতিবার বিশ্বকাপ লড়াইয়ে ভারতকে হারাতেই হবে ক্যারিবীয়দের।

ভারত ম্যাচে ভালো কিছু হবে, ইনশাল্লাহ: মেহেদী মিরাজ

ভারত ম্যাচে ভালো কিছু হবে, ইনশাল্লাহ: মেহেদী মিরাজ
আরেকটি জয়ের অপেক্ষায় মেহেদী হাসান মিরাজ

একটা চ্যালেঞ্জ শেষ না হতেই, সামনে আরেক চ্যালেঞ্জ! বিশ্বকাপ আসলে এমনই!

তবে প্রতি ম্যাচে নতুন চ্যালেঞ্জের সামনে দাড়ানো বাংলাদেশ মোটেও পিছু হটছে না। অমুক দল অনেক শক্তিশালী-তাদের হারানো যাবে না, এমন সনাতনী কোনো চিন্তাই নেই বাংলাদেশ দলের কোনো খেলোয়াড়ের মাথায়। এই বিশ্বকাপের প্রতিটি দলকেই বাংলাদেশ হারানোর ক্ষমতা রাখে, সেই ধাঁচের ক্রিকেট খেলার যোগ্যতা আছে এই দলের-আর এই বিশ্বাস বাকিদের চেয়ে  সবচেয়ে বেশি আস্থা দলের ১৫ ক্রিকেটারের। মেহেদী মিরাজ তাদেরই একজন।

বার্মিংহ্যামে এসে পৌছেছে বাংলাদেশ দল মঙ্গলবার দুপুরেই। তবে কোনো অনুশীলন নেই। পুরোদুস্তর ছুটির মেজাজে আছেন ক্রিকেটাররা। সেই ফাঁকে টিম হোটেলের সামনে মেহেদী মিরাজ বাংলাদেশের মিডিয়াকে সময় দিলেন। বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সাফল্য এবং সামনের পথ নিয়ে সম্ভাবনার কথাও উঠে এলো সেই কয়েক মিনিটের সেই ক্রিকেট গল্পে।

২ জুলাই বার্মিংহ্যামের এজবাস্টনে বাংলাদেশ লড়বে ভারতের বিপক্ষে।

সেই ম্যাচ প্রসঙ্গে মেহেদী হাসান মিরাজ বললেন-ভারত ম্যাচে চাপের কিছু নেই। প্রক্রিয়া ঠিক রেখে সামনে বাড়তে পারলে এই ম্যাচ থেকেও সাফল্য নিয়ে ফিরবে বাংলাদেশ দল। বিস্তারিত ব্যাখায় মিরাজ জানান-‘ বিশ্বকাপের প্রতিটা ম্যাচেই তো চ্যালেঞ্জ। আমাদের দলটা এখন খুব ভালো ক্রিকেট খেলছে। শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা এসব বড়ো এবং অভিজ্ঞ দলগুলো পয়েন্ট তালিকায় আমাদের নিচে আছে। আমরা এখনো পয়েন্ট তালিকার পাঁচ নম্বরে। ভারত ম্যাচে চাপের কিছু নেই। আগের ম্যাচগুলো যেভাবে খেলেছি, এই ম্যাচও সেভাবেই খেলবো। যে তিনটি ম্যাচ জিতেছি আমরা সেই প্রক্রিয়াটা পরের দুই ম্যাচেও বজায় রাখতে হবে। জিততেই হবে, না জিতলে বাদ অথবা সেমিফাইনালে উঠতে হবে-এমন ভাবে চিন্তা করে আমরা চাপ নিচ্ছি না। শুধু ভাবছি প্রক্রিয়াটা ঠিক রাখতে হবে। ভাগ্যেরও কিছু সহায়তা প্রয়োজন। আল্লাহ যদি রহম করে তবে ইনশাল্লাহ অবশ্যই ভালো কিছু করবো আমরা।’

ভারত তো স্পিনের বিপক্ষে সবসময় দক্ষ। এমন দলের সঙ্গে বাংলাদেশের স্পিনারদেরও নিশ্চয়ই বাড়তি চ্যালেঞ্জ  নিয়ে নামতে হবে?

এই প্রসঙ্গে মিরাজ বললেন-‘ আমরা যদি ভারতের বিপক্ষে জিততে পারি তবে সেটা আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া হবে। তখন পরের ম্যাচের জন্য কাজটা আরো সহজ হয়ে যাবে। ভারত ম্যাচে স্পিনারদের ভুমিকাও ভালো ভাবে পালন করার চ্যালেঞ্জ তো আছেই। ম্যাচের মাঝের ওভারগুলো তে যেন নিয়ন্ত্রণ আমরা রাখতে পারি সেই চেষ্টাই করতে হবে।’

সেই চেষ্টার জোরেই তো ৭ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট পাওয়া বাংলাদেশের চোখে এখন বিশ্বকাপের শেষ চারের সবুজ স্বপ্ন!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র