১১৬ বল হাতে রেখেই প্রোটিয়াদের হাসিমুখ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
ডি কক-হাশিম আমলার ব্যাটিংয়ে প্রোটিয়ারা পেলো অনায়াস জয়

ডি কক-হাশিম আমলার ব্যাটিংয়ে প্রোটিয়ারা পেলো অনায়াস জয়

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্যাটে-বলে দাপটে হেসে-খেলে জয়! আফগানিস্তানকে নিয়ে রীতিমতো খেলল দক্ষিণ আফ্রিকা। যে দলটি বিশ্বকাপ শুরুর আগে হুঙ্কার দিয়েছিল, তারাই এখন দিশেহারা। বড় ব্যবধানে একের পর এক ম্যাচ হেরে কোনঠাসা যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশটি। বিশ্বকাপের লড়াইয়ে এবার প্রোটিয়ারাও উড়িয়ে দিয়েছে আফগানদের।

কার্ডিফ ওয়েলস স্টেডিয়ামে শনিবার ডাকওয়ার্থ ও লুইস ম্যাথডে ৯ উইকেটে ম্যাচ জিতে নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ১১৬ বল বাকী থাকতেই ধরা দিয়েছে দাপুটে জয়।

দিবা-রাত্রির এই ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৩৪.১ ওভারে ১২৫ রানে অলআউট আফগানিস্তান। জবাব দিতে নেমে অবশ্য ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৪৮ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার লক্ষ্য দাঁড়ায় ১২৭ রান। সেই টার্গেট ২৮.৪ ওভারে ১ উইকেটে হারিয়ে তুলে নেয় প্রোটিয়ারা। এটিই এবারের বিশ্বকাপে তাদের প্রথম জয়।

মামুলি সংগ্রহটা তুলে নিতে কোন বেগই পায়নি দক্ষিণ আফ্রিকা। দুই ওপেনার হাশিম আমলা ও কুইন্টন ডি কক অনায়াসে রান তুলেছেন। যে উইকেটে সংগ্রাম করেছেন আফগান ব্যাটসম্যানরা সেখানে সাবলীল ছিলেন দু'জন। প্রথম উইকেট জুটিতে তারা যোগ করেন ১০৪ রান। ৭২ বলে ৬৮ রান করে ফেরেন কক।

এরপর আন্দিলে ফেলুকোয়ায়োকে নিয়ে বাকীটা পথ পাড়ি দেন হাশিম আমলা। তিনি অপরাজিত থাকেন ৪১ রানে। ফেলুকোয়ায়োর ব্যাটে ১৭।

এর আগে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা মন্দ ছিল না আফগানদের। আফগানিস্তান ৫.৫ ওভারে ৩৩ রান করার পরই প্রথম দফায় নেমে আসে বৃষ্টি। খেলা বন্ধ থাকে ২৫ মিনিট। এরপরই ফেরেন হজরতউল্লাহ জাজাই (২২)। নুর আলি জাদরান ফেরেন ৩২ রানে।

২০ ওভার শেষে আফগানদের রান যখন ২ উইকেটে ৬৯ তখন ফের নেমে আসে বৃষ্টি। এক ঘণ্টা ১৫ মিনিট পর খেলা শুরু হলে বৃষ্টি আইনে কমে ম্যাচ দাঁড়ায় ৪৮ ওভারে। তারপরই পথ হারায় আফগানরা। ৭০ রানে ৬ উইকেট চলে যায়। এরপর একাই কিছুক্ষণ লড়লেন রশিদ খান। ২৫ বলে তিনি করেন ৩৫ রান।

দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে ইমরান তাহির নেন ২৯ রানে ৪ উইকেট। ক্রিস মরিস ১৩ রান খরচায় তুলেন তিন উইকেট। ম্যাচের সেরা ঘূর্ণি বলের জাদুকর ইমরান তাহির!

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

আফগানিস্তান: ৩৪.১ ওভারে ১২৫/১০ (জাজাই ২২, জাদরান ৩২, রহমত ৬, শাহিদি ৮, আসগর ০, নবি ১, ইকরাম ৯, নাইব ৫, রশিদ ৩৫, হামিদ ০, আফতাব ০*; রাবাদা ১/৩৬, ফেলুকোয়ায়ো ২/১৮, মরিস ৩/১৩, ইমরান ৪/২৯)।
দক্ষিণ আফ্রিকা: (লক্ষ্য ৪৮ ওভারে ১২৭) ২৮.৪ ওভারে ১৩১/১ (আমলা ৪১*, ডি কক ৬৮, ফেলুকোয়ায়ো ১৭*; নাইব ১/২৯)
ফল: ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৯ উইকেটে জয়ী দক্ষিণ আফ্রিকা
ম্যাচসেরা: ইমরান তাহির

আপনার মতামত লিখুন :