Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

‘সাকিব বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা’

‘সাকিব বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা’
ধারাবাহিক সাফল্যে নতুন উচ্চতায় সাকিব আল হাসান- ছবি:আইসিসি
স্পোর্টস ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

রেকর্ডে মোড়ানো দাপটে এক হার না মানা সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন সাকিব আল হাসান। পৌঁছে গেছেন ওয়ানডে ক্রিকেটের ছয় হাজার রানের ক্লাবে। মাহমুদউল্লাহর পর  বিশ্বকাপে টানা দুই ম্যাচে পেলেন সেঞ্চুরি। সুবাদে চলতি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক এখন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৭ উইকেটে জয়ের ম্যাচে বল হাতে ২ উইকেট নেন সাকিব। পরে ব্যাট হাতে ৯৯ বলে ১৬ চারে ১২৪ রানের অনন্য এক ইনিংস খেলেন ম্যাচের এ নায়ক।

তাই সাকিবের বন্দনায় মেতেছে সারা ক্রিকেট দুনিয়া। ভারতের সাবেক পেসার ইরফান পাঠান সাকিবের স্তুতি গেয়ে টুইটারে লিখেছেন- ‘দক্ষিণ আফ্রিকাকে ধরাশায়ী করেছে বাংলাদেশ। এখন আবার দাপটের সঙ্গে উইন্ডিজের বিপক্ষে রান তাড়া করে জিতল। দলকে জেতানোর জন্য নিঁখাত পারফরম্যান্স উপহার দিয়েছেন সাকিব।’

ভারতের সাবেক ক্রিকেটার এবং ধারাভাষ্যকার আকাশ চোপড়া সাকিবকে প্রশংসার বন্যায় ভাসিয়ে দিয়ে টুইটারে পোস্ট দিয়েছেন, ‘সাকিবের আগুনে ব্যাটিং-র ওপর ভর করেই ৭ উইকেটের বড় জয় ছিনিয়ে নিয়েছে মাশরাফি বাহিনী। চমৎকার খেলেছেন সাকিব। কোনো সন্দেহ নেই তিনি বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা ক্রিকেটার। তাদের খেলা দেখে আমি পুলকিত। কী দুর্দান্ত জয়!’

সাকিবের ভ’য়সী প্রশংসা করে শহীদ আফ্রিদিও টুইট করেছেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যোগ্য দল হিসেবেই জিতেছে বাংলাদেশ। সাকিব ও লিটন অসাধারণ খেলেছেন।’

সঙ্গে টাইগার সমালোচকদের কড়া ভাষায় জবাব দেন পাকিস্তানের কিংবদন্তি এ ক্রিকেটার, ‘বিশ্বকাপের মতো ক্রিকেটের মহাযজ্ঞে শক্তিশালী দলই খেলার সুযোগ পায়। এখানে আসার আগে সবাই তাদের যোগ্যতার প্রমাণ রেখেছে। প্রিয় দলের জন্য তারা নিজেদের সেরাটা নিগড়ে দিতে সবসময় উন্মুখ থাকে। তাই বিশ্বকাপের কোনো টিমকে অবমূল্যায়ন করা অনুচিত।’

আপনার মতামত লিখুন :

নিউজিল্যান্ডের বর্ষসেরা হচ্ছেন বেন স্টোকস!

নিউজিল্যান্ডের বর্ষসেরা হচ্ছেন বেন স্টোকস!
এবার জন্মভূমি থেকেও পুরস্কারের হাতছানি স্টোকসের

ইংল্যান্ডের প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপ ট্রফি জয়ের মিশনে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন বেন স্টোকস। গত রোববারের অকল্পনীয় ও অভাবনীয় ফাইনালে ম্যাচসেরার পুরস্কারও জেতেন ২৮ বছরের এ মেগাস্টার। অসাধারণ সেই নৈপুণ্যের জন্য আরো পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন এ তারকা অলরাউন্ডার। খবর রটেছে, খুব শিগগিরই তিনি পাচ্ছেন নাইটহুড পদক। মানে বেন স্টোকস থেকে বনে যাচ্ছেন স্যার বেন স্টোকস। এতো গেল তার দেশের খবর।

দেশের বাইরে থেকেও একটি পুরস্কার পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বেন স্টোকসের জন্য। ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ে অবিশ্বাস্য পারফরম্যান্সের জন্য বর্ষসেরা পুরস্কারের মনোনয়ন পেয়েছেন এ তারকা ইংলিশ ক্রিকেটার। তা কোন দেশ থেকে পেলেন তিনি মনোনয়ন? উত্তরটা জানলে আপনিও অবাক হবেন! ভাবছেন কেন?

লর্ডসের শ্বাসরুদ্ধকর মহানাটকীয় ফাইনালে যাদের হৃদয় আর স্বপ্ন ভেঙে বিশ্ব শিরোপা জিতেছে ইংল্যান্ড। সেই নিউজিল্যান্ড থেকে পুরস্কারের মনোনয়ন পেয়েছেন বেন স্টোকস। মানে বর্ষসেরা নিউজিল্যান্ডার অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনিত হয়েছেন তিনি। সন্দেহ নেই খবরটা চমকে দেবে খোদ স্টোকসকেই।

ইংল্যান্ডের হয়ে ক্রিকেট খেললেও স্টোকসের জন্মভূমি কিন্তু নিউজিল্যান্ডই। ১২ বছর বয়সে ক্রাইস্টচার্চ থেকে ইংল্যান্ডে পাড়ি জমান তিনি। যে কারণেই পুরস্কারের জন্য মনোনিত হয়েছেন স্টোকস।

তার মানে, অনেক কিউই জনগণ এখনো তাকে নিজেদের ছেলে বলেই মনে করেন। অ্যাওয়ার্ডের প্রধান বিচারক ক্যামেরন বেনেট জানালেন তেমনটাই, ‘স্টোকস হয়তো ব্ল্যাক ক্যাপস শিবিরের হয়ে খেলছেন না। কিন্তু তার জন্ম ক্রাইস্টচার্চে। তার মা-বাবা এখনো এখানেই বসবাস করেন। ব্যাপারটা পরিষ্কার মাওরি সম্প্রদায়ের অনেক কিউইরা এখনো তাকে নিজেদের সন্তান বলেই মনে করেন।’

বেন স্টোকসের সঙ্গে এ পুরস্কারের জন্য মনোনিত হয়েছেন কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনও। এটা প্রমাণ করে, বিশ্বকাপের সেরা এ খেলোয়াড়কে হারিয়ে পুরস্কার জেতাটা বেশ কঠিনই হবে স্টোকসের জন্য।

জাতির কল্যাণে অবদান রাখা ‘অনুপ্রেরণাদায়ক কিউইদের’ মনোনয়ন দেন নিউজিল্যান্ডের জনগণ। যাদের জন্য দেশ গর্ব করতে পারে।

২০১০ সালে অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক জেফ্রে জন হোপের হাত ধরে শুরু এ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া। যা ১১ বছরে পা দিল এবার। এর আগে পুরস্কারটি জেতেন সাবেক নিউজিল্যান্ড রাগবি ইউনিয়ন অধিনায়ক রিচি ম্যাককো, সিনেমা নির্মাতা তাইকা ওয়াইতিতি ও মানসিক স্বাস্থ্য ক্যাম্পেইনার মাইক কিং।

মনোনয়ন পর্ব শেষ হবে সেপ্টেম্বরে। ডিসেম্বরে বিচারক প্যানেল ১০ জনের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করবেন। অকল্যান্ডে জমকালো অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিজয়ীর হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে ফেব্রুয়ারিতে।

আইসিসির সিদ্ধান্তে দিশেহারা জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটাররা

আইসিসির সিদ্ধান্তে দিশেহারা জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটাররা
আইসিসির সিদ্ধান্তে হতাশ সিকান্দার রাজা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ এখন জিম্বাবুয়ে। ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) এ সিদ্ধান্তেই বিপদ আর অনিশ্চিত ভবিষ্যতের মুখে দেশটির ক্রিকেটাররা।

বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির নিষেধাজ্ঞা শাস্তিটা মেনে নিতে পারছেন না জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটাররা। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে আয়ারল্যান্ডে থাকা দেশটির ক্রিকেটাররা নিজেদের হতাশা আর ক্ষোভ ঝাড়ছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

১২ টেস্ট, ৯৭ ওয়ানডে ও ৩২ টি-টুয়েন্টি খেলা সিকান্দার রাজা আবেগঘন এক টুইটারে প্রশ্ন রাখেন, একটি সিদ্ধান্তে অনেকের জীবন ও ক্যারিয়ার ঝুঁকির মুখে কেন?

টুইট বার্তায় সিকান্দার রাজা লেখেন, ‘কীভাবে একটা সিদ্ধান্ত একটি দলকে ক্রিকেটে আগন্তুক বানিয়ে দিতে পারে। কীভাবে একটি সিদ্ধান্ত অনেক লোককে বেকার বানিয়ে দিতে পারে। কীভাবে একটা সিদ্ধান্ত অনেক পরিবারকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। অবশ্যই এভাবে আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলতে চাইনি।’

একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়া সত্ত্বেও ক্রিকেটকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন সিকান্দার রাজা। জানেন না কীভাবে হবে তাদের রুটি–রুজির ব্যবস্থা, ‘জানি না আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার হিসেবে আমরা কোথায় খেলব। ক্লাব ক্রিকেটে খেলব নাকি আমরা কোনো ক্রিকেটই খেলতে পারব না? আমরা কী ক্রিকেট সরঞ্জামাদি পুড়িয়ে ফেলে চাকরি খুঁজব? আমি ঠিক জানি না এখন আমাদের কী করা উচিত।’

আইসিসির নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্তে হৃদয়টা ভেঙ্গে গেছে ব্রেন্ডন টেলরের। তাই ২৮ টেস্ট, ১৯৩ ওয়ানডে ও ৩৪ টি-টুয়েন্টি খেলা জিম্বাবুয়ের সাবেক এ অধিনায়ক টুইটারে এক পোস্টে লেখেন, ‘আইসিসি, আপনাদের রায় ও ক্রিকেটে জিম্বাবুয়েকে নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত হৃদয় ভেঙে দিয়েছে। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটে সরকারি কোনো হস্তক্ষেপ নেই। আমাদের চেয়ারম্যান কী একজন এমপি? শত শত সৎ লোক, খেলোয়াড়, সাপোর্ট স্টাফ, গ্রাউন্ড স্টাফ জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের কাছে চাকরির জন্য পুরোপুরি নিবেদিত।’

জিম্বাবুয়ের আরেক ক্রিকেটার সলোমন মির তো ফেসবুকে মনের কষ্ট নিয়ে ক্রিকেটের সব ধরণের সংস্করণ থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়ে ফেলেছেন।

ক্রিকেটে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের অভিযোগে জিম্বাবুয়েকে নিষিদ্ধ করেছে আইসিসি। এমনকি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোনো ধরণের কর্মকান্ডে অংশ নিতে পারবে না দেশটির কেউ। বৃহস্পতিবার লন্ডনে হওয়া বার্ষিক বৈঠকে জিম্বাবুয়েকে দেওয়া আর্থিক প্রণোদনাও বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় ক্রিকেটের এ সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র