Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বাংলাদেশ জিতল ‘লড়াই’, অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ!

বাংলাদেশ জিতল ‘লড়াই’, অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ!
মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ আশা জাগালেও শেষরক্ষা হয়নি
এম.এম. কায়সার
স্পোর্টস এডিটর
বার্তা২৪.কম
নটিংহ্যামশায়ার
ইংল্যান্ড থেকে


  • Font increase
  • Font Decrease

৪৮ রানে হারা ম্যাচে প্রতিযোগিতা হয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে। জিততে পারতো বাংলাদেশও-এমন কিছু বললে অনেকেই হয়তো অবিশ্বাসের চোখে তাকাবেন! কিন্তু স্কোরকার্ড দেখে নয়, যারা এই ম্যাচ দেখেছে তারা নিশ্চিত জানেন ৩৮১ রানের পিছু ধাওয়া করতে নেমে এই ম্যাচে বাংলাদেশেরও সম্ভাবনা ছিল।

আসলে অস্ট্রেলিয়া শুধু এই ম্যাচ জিতল অংকের খাতায়। বাংলাদেশ যা জিতল তার নাম-লড়াই। তার নাম-সাহস! অস্ট্রেলিয়ার ৩৮১ রানের জবাবে বাংলাদেশ তুলল ৮ উইকেটে ৩৩৩।

বিশ্বকাপে নিজের প্রথম সেঞ্চুরি আনন্দ উদযাপন হয়তো মুশফিক করতে পারলেন না। তবে তার এই সেঞ্চুরি এবং গোটা ম্যাচে বাংলাদেশের সম্মিলিত ব্যাটিং আরেকবার জানিয়ে দিলো-এই বাংলাদেশ ক্রমশই বিস্মিত করছে ক্রিকেট বিশ্বকে!

অস্ট্রেলিয়ার হৃদকম্প এতদূর থেকেও ঠিক শোনা যাচ্ছিলো! ৩৮১ রান তুলেও অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটারদের টেনশন এবং সাদা চেহারা আরও ‘সাদা’ হয়ে যাওয়া ঠিকই টের পাওয়া গেলো! মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটিং নড়িয়ে দিলো অস্ট্রেলিয়ার ভিত। এবং সত্যিকার অর্থে বললে ম্যাচের একসময় অজিরা ঠিকই ‘ভীত’ হয়ে পড়েছিলো হারের ভয়ে!

হ্যাঁ স্কোরবোর্ডে ৩৮১ রান জমা করেও!

যে ক্ল্যাসিক কায়দায় মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহ রান তাড়া করছিলেন পঞ্চম উইকেটে বাংলাদেশের সেই জুটিই অস্ট্রেলিয়ার শিরদাঁড়ায় ভয়ের একটা স্রোত বইয়ে দেয়; হারের!

এই ম্যাচের শেষভাগ পুরোপুরি টি-টুয়েন্টি মেজাজের হয়ে দাঁড়ায়। ম্যাচ জিততে বাংলাদেশের শেষ ৩৬ বলে চাই ৯৩ রান। তখনো অনেক বড় টার্গেট। কিন্তু ম্যাচের আগের দিন বলা মাশরাফির সেই কথাটা যে এই বাংলাদেশ দলের সব ক্রিকেটারদের অন্তরের বিশ্বাস-‘কাজটা কঠিন, কিন্তু অসম্ভব নয়; লড়বে বাংলাদেশ।’

সত্যিকার অর্থেই লড়ল বাংলাদেশ।

অস্ট্রেলিয়ার ৩৮১ রানের পিছু তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশের শুরুটা ভালো হয়নি। ২৩ রানে ভাঙে ওপেনিং জুটি। রান আউট হয়ে ফিরেন সৌম্য সরকার। তামিম ও সাকিব দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে সেই সমস্যা কাটিয়ে উঠছিলেন। দুজনে বেশ চমৎকার কায়দায় দলের ইনিংসকে সামনে বাড়াচ্ছিলেন। সাকিব টুর্নামেন্টে আরেকটি হাফসেঞ্চুরির কাছে পৌঁছে গিয়েছিলেন। কিন্তু স্টয়নিসের একটি স্লোয়ার বুঝতে না পেরে ব্যাটের কানায় বল লাগিয়ে ক্যাচ তুলে দেন। ৪১ বলে ৪১ রান করে ফেরেন সাকিব। চলতি বিশ্বকাপের পাঁচ ম্যাচে এই প্রথম সাকিব অন্তত হাফসেঞ্চুরি নিচে আউট হলেন।

তামিম ইকবাল অবশ্য চলতি টুর্নামেন্টে নিজের হাফসেঞ্চুরি পেলেন। কিন্তু ইনিংসটা ৬২ রানের চেয়ে বেশি বড়ো করতে পারলেন না। পাঁচে ব্যাট করতে নামা লিটন দাসকে বাউন্সার দিয়েই স্বাগত জানালো অস্ট্রেলিয়া!

মিচেল স্টার্ক প্রথম বলটাই শর্ট দিলেন। বাউন্সার! লিটন মাথা নিচু করে সেই বাউন্সার এড়ানোর চেষ্টা করলেন। কিন্তু সফল হলেন না। বল সোজা গিয়ে লাগলো তার হেলমেটে। বলের ধাক্কায় লিটন তাল সামাল দিতে পারলেও হেলমেট খুলে ফেলেন। বলের ধাক্কাটা লাগে তার হেলমেটের একপাশে। মাথা ঝাঁকুনি দিতে থাকেন লিটন। কোনো সমস্যা হচ্ছে কিনা- সেটা জানার জন্য সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসক মাঠে ছুটেন। বারকয়েক লিটনকে পরীক্ষা করে চিকিৎসক যখন দেখলেন কোনো সমস্যা হয়নি। তখন আবার খেলা শুরু করেন আম্পায়াররা। তবে স্টার্কের বাউন্সারে ক্ষতিগ্রস্ত হেলমেটটা বদলে ফেলেন লিটন।

আগের ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুর্দান্ত ব্যাটিং করা লিটন দাসকে এই ম্যাচে ভালোই হোমওয়ার্ক করে নেমেছিল অস্ট্রেলিয়া। লিটন ব্যাট হাতে পাল্টা হামলা চালাতে পছন্দ করেন সেটা জেনে গেছে অস্ট্রেলিয়া। তাই শুরুতেই লিটনের আত্মবিশ্বাস যাতে নড়িয়ে দেয়া যায় সেজন্যই স্টার্ক তাকে প্রথম বলেই বাউন্সার দেন।

পরের ওভারেই অন্যপ্রান্ত থেকে প্যাট কামিন্সকেও আক্রমণে আনেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। দু’প্রান্ত থেকে নিজের দলের সেরা ফাস্ট বোলারকে বাংলাদেশের ইনিংসের মাঝপথে আক্রমণে আনার উদ্দেশ্যই হলো গতির চোটে বাংলাদেশকে সঙ্কটে ফেলা।

লিটন দাস তিন বাউন্ডারিতে এই ম্যাচেও শুরুটা ভালোই করেছিলেন। কিন্তু স্পিনার অ্যাডাম জাম্পার বলে এলবি হলেন ২০ রান তুলে। মুশফিকের সঙ্গে এসে জুটি বাঁধলেন মাহমুদউল্লাহ। এই দুজনের ব্যাটে যা মিললো তার নাম-সাহস! তার নাম- জেতার জেদ! অসম্ভব সুন্দর ব্যাটিং করেন দুজনে বাংলাদেশকে রানকে যেভাবে সামনে বাড়ালেন তাতে অস্ট্রেলিয়ার ৩৮১ রানের স্কোরকে খুব দুরের পথ মনে হচ্ছিলো না!

দুজনেই দলের ব্যাটিংকে ম্যাচের একদম গভীর পর্যন্ত নিয়ে যাবার পরিকল্পনা করলেন। দারুণভাবে তাতে সফলও হলেন। রক্ষণের সঙ্গে আক্রমণের মিশেল-ক্লাসিক ভঙ্গির এই ব্যাটিংয়ে জুটিতে যোগ হলো ১২৭ রান। তাও আবার মাত্র ১৬.১ ওভারে! মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৫০ বলে ৬৯ রান করে।

শেষের টি-টুয়েন্টির আদলে সাব্বির রহমানের জন্য মঞ্চ তৈরি তখন। চাই ২৭ বলে ৮০ রান। কিন্তু সাব্বির রহমান যে এই মহাগুরুত্বপূর্ণ সময়ে প্রথম বলেই আউট! দুই বলে দুই উইকেট তুলে নিয়ে কোল্টার-নাইল মূলত ওখানেই অস্ট্রেলিয়ার জয়টা নিশ্চিত করে দিলেন।

আগের দিন লড়াইয়ের কথা বলা মোসাফির আরেকটি কথা মনে পড়লো এদিন ম্যাচ শেষে-‘৩৩০/৩৪০ রান তাড়া করা যায়, কিন্তু প্রতিপক্ষের স্কোর ৩৭০/৩৮০ হয়ে গেলে সেটা তখন...।’

অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে তো সেটাই হলো!

আপনার মতামত লিখুন :

লর্ডসেই জেসন রয়ের টেস্ট অভিষেক!

লর্ডসেই জেসন রয়ের টেস্ট অভিষেক!
আইরিশদের বিপক্ষে টেস্ট দলে ডাক পেলেন জেসন রয়

ব্যাট হাতে আলো ছড়িয়েছেন বিশ্বকাপে। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে সংগ্রহ করেছেন ৪৪৩ রান। ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ের মিশনে রেখেছেন অগ্রণী ভূমিকা। সুবাদে এ টপ-অর্ডার ব্যাটসম্যান ডাক পেলেন টেস্ট ক্রিকেটে। তা আবার প্রথবারের মতো।

২০১৫ সালে ৮ মে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ডাবলিনে রয়ের ওয়ানডে অভিষেক। আর টি-টুয়েন্টিতে রঙিন জার্সিতে দেশের হয়ে মাঠে নামেন তার আগের বছর। বার্মিংহামে ২০১৪ সালের ৭ সেপ্টেম্বর ভারতের বিপক্ষে। কিন্তু এতো দিনেও তার লাল বলের ক্রিকেটের খেলা হয়নি।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের জন্য ঘোষিত দলে ডাক পেয়েছেন রয়। সব কিছু ঠিক থাকলে লর্ডসে হয়ে যাবে তার টেস্ট অভিষেক। তার মতো সমারসেট অলরাউন্ডার লুইস গ্রেগরিও প্রথমবারের মতো টেস্ট দলে জায়গা করে নিয়েছেন।

ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ টেস্ট উইকেট শিকারি জেমস অ্যান্ডারসনও দলে অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন। যদি চলতি মাসের শুরুর দিকে তিনি কাফ ইনজুরিতে পড়েছেন। অলরাউন্ডার বেন স্টোকস ও উইকেটরক্ষক জস বাটলার খেলছেন না আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে।

তবে দল থেকে ছিটকে গেছেন ফাস্ট বোলার মার্ক উড ও জোফরা আর্চার। দুজনেই পেশিতে টান পেয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, ডারহামের উডকে চার-ছয় সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে। রোববার ফাইনালে চোট পান তিনি। অ্যাশেজ সিরিজকে সামনে রেখে বিশ্রামে রাখা হয়েছে আর্চারকে।

২৪ জুলাই লর্ডসে আইরিশদের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট খেলবে ইংল্যান্ড। এবারই প্রথম ক্রিকেটের দীর্ঘতম সংস্করণে মুখোমুখি হচ্ছে দুদল। ১ আগস্ট থেকে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজ শুরুর আগে হোম সামারে এটাই ইংল্যান্ডের প্রথম লাল বলের ম্যাচ।

বিশ্বকাপ জয়ী অনেক ক্রিকেটার আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট থেকে বিশ্রাম পেলেও ১৬ জনের প্রাক-অ্যাশেজ অনুশীলন ক্যাম্পে রয়েছে তারা।

আয়ারল্যান্ড টেস্টে ইংল্যান্ড দল: জো রুট (অধিনায়ক), মঈন আলি, জেমস অ্যান্ডারসন, জনি বেয়ারস্টো, স্টুয়ার্ট ব্রড, ররি বার্নস, স্যাম কুরান, জো ডেনলি, লুইস গ্রেগরি, জ্যাক লিচ, জেসন রয়, ওলি স্টোন এবং ক্রিস ওকস।

প্রাক-অ্যাশেজ ক্যাম্পে ইংল্যান্ড দল: জো রুট (অধিনায়ক), মঈন আলি, জেমস অ্যান্ডারসন, জনি বেয়ারস্টো, স্টুয়ার্ট ব্রড, ররি বার্নস, জস বাটলার, স্যাম কুরান, জো ডেনলি, লুইস গ্রেগরি, জ্যাক লিচ, জেসন রয়, বেন স্টোকস, ওলি স্টোন, ক্রিস ওকস ও মার্ক উড।

খুলনার হয়ে মাঠ মাতাবেন ওয়াটসন

খুলনার হয়ে মাঠ মাতাবেন ওয়াটসন
খুলনা টাইটানসে নাম লেখালেন শেন ওয়াটসন

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন ২০১৬ সালে। তবে ক্রিকেটে ঠিকই ব্যস্ত রেখেছেন নিজেকে। খেলছেন ফ্রাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে। তার অংশ হিসেবে এবার বাংলাদেশেও আসছেন শেন ওয়াটসন। আগামী বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) খুলনা টাইটানসের হয়ে খেলবেন এই অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার।

এ বছরই বিগ ব্যাশ সরিয়ে নিয়েছেন নিজেকে। হাতে এখন অফুরন্ত সময় ওয়াটসনের। তাইতো খুলনার প্রস্তাবে হাসিমুখেই হ্যাঁ বলে দিলেন তিনি।

খুলনা টাইটানস বৃহস্পতিবার তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে সুখবরটা দিয়ে লিখেছে, ‘গর্বের সঙ্গে আপনাদের সামনে শহরের নতুন টাইটানকে উপস্থাপন করছি। অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার শেন ওয়াটসন খুলনা টাইটানসের সরাসরি বিদেশি চুক্তির একজন ক্রিকেটার হিসেবে বিপিএল ২০১৯-২০ মৌসুম খেলবেন।’

সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ডিসেম্বরে শুরু হবে বিপিএল। মাস পাঁচেক আগেই বিশ্বকাপ জয়ী অলরাউন্ডার ওয়াটসনকে দলে টানল খুলনা।

এদিকে খুলনায় নাম লিখিয়ে ৩৮ বছর বয়সী ওয়াটসনও দিলেন একটি ভিডিও বার্তা। তিনি বলেন, ‘আমি শেন ওয়াটসন। আমার কাছে দারুণ এক রোমাঞ্চকর খবর আছে। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের আসন্ন মৌসুমে খুলনা টাইটান্সের হয়ে খেলতে আসবো আমি। বিপিএলে খেলতে যারপরনাই রোমাঞ্চিত হয়ে আছি। বিপিএল এমন একটা টুর্নামেন্ট- যেখানে সবসময় খেলতে চেয়েছি। শেষ পর্যন্ত সুযোগটা হয়েই গেল।’

খুলনা গত আসরে লিগ পর্ব টপকাতে পারেনি। এবার সেই ব্যর্থতা সামলে শিরোপা জেতার জন্যই প্রস্তুত হচ্ছে!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র