Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের যতো ভুল (পর্ব-১)

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের যতো ভুল (পর্ব-১)
প্রত্যাশার সঙ্গে প্রাপ্তির দেখা হল না বিশ্বকাপে
এম. এম. কায়সার
স্পোর্টস এডিটর
বার্তা২৪.কম
লন্ডন
ইংল্যান্ড থেকে


  • Font increase
  • Font Decrease

৩ জয়। ৫ হার। বৃষ্টিতে বাতিল একটি ম্যাচ। বিশ্বকাপের দশ দলের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সাত নম্বরে। র‌্যাঙ্কিংয়ের সাত নম্বর দল হিসেবেই খেলতে এসেছিল বাংলাদেশ। ফিরে গেলো সেই একই অবস্থানে থেকে। অনেক সম্ভাবনা নিয়ে এবারের বিশ্বকাপ শুরু করা বাংলাদেশ ফিরছে সেমিফাইনালের আগে। মাঠের ক্রিকেটে ভাল-মন্দ দুই সময়ই দেখেছে বাংলাদেশ এই বিশ্বকাপে। ভুলও করেছে বেশ। সেই ভুলের খোঁজ এই ধারাবাহিক রিপোর্টে-

উইকেট মিস রিড:
 
ওভালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলছে বাংলাদেশ। ৬৮ বলে ৬৪ রান করে সাকিব আউট। স্কোরবোর্ডে বাংলাদেশের রান তখন ৩০.২ ওভারে ১৫১। মোহাম্মদ মিথুন ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ পঞ্চম উইকেট জুটিতে ভালই দলকে সামনে বাড়াচ্ছিলেন। ৩৪ ওভারের সময় ড্রিঙ্কস বিরতিতে এই দুজনের কাছে একটা ম্যাসেজ গেলো ড্রেসিংরুম থেকে। কোচ স্টিভ রোডস ও টিম ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজনের দেয়া সম্মিলিত একটা সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া হলো ব্যাটিংয়ে থাকা দুই ব্যাটসম্যানকে। বলা হলো-এটা সাড়ে তিনশ’র বেশি রানের উইকেট। ম্যাচ জিততে হলে অতো বড় রানের স্কোর গড়তে হবে। মিথুন ও মাহমুদউল্লাহ উইকেট তখন প্রায় সেট। কিন্তু ড্রেসিংরুম থেকে নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী দুজনেই দ্রুত রান তোলার জন্য হঠা তেড়েফুঁড়ে উঠলেন। সেই তাড়ায় দুজনেই উইকেট হারালেন। ১৯৭ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে সেই যে বিপদে পড়লো আর সেখান থেকে বেরুতে পারলো না। গুটিয়ে গেলো ২৪৪ রানে।

ওভালের সেই ম্যাচে উইকেট রিডিংয়ে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টের তথ্যটা ভুল ছিলো। ঐ উইকেটে বাংলাদেশ ২৬০ বা ২৭০ রান করতে পারলেই ম্যাচটা মুঠোয় থাকতো।
নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিংয়ের সময়েই সেই প্রমাণটা আরো স্পষ্ঠতর হলো। ২ উইকেটে সেই ম্যাচ হারের পর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মতুর্জাও মেনে নিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ড ম্যাচে ওভালের নতুন উইকেট পড়তে ভুল করেছিলো তার দল।
 
এই বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ভুলের শুরু সেখান থেকেই।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/06/1562413061816.png

মুশফিকের সেই রান আউট মিস:

রান আউটের এরচেয়ে সহজ সুযোগ আর কি হতে পারে? রানের জন্য দৌড়ালেন রস টেইলর। ননস্ট্রাইক প্রান্ত থেকে কেন উইলিয়ামসন একটু দেরিতে সাড়া দিলেন। তবুও দৌড়ালেন। মিড অন থেকে বল কুড়িয়ে তামিম দ্রুতগতিতে ছুঁড়লেন মুশফিকের দিকে। মুশফিক একটু বেশি তাড়াহুড়ো করে ফেললেন। উইকেটের পেছনে দাড়িয়ে বল ধরার চেয়ে সামনে এগিয়ে এলেন। ভুলটা সেখানেই। সেই এগিয়ে আসার সময় তার গ্লাভসের স্পর্শে উইকেট ভেঙ্গে গেলো। বল হাতে জমা হওয়ার আগেই উইকেট ভাঙ্গলেন মুশফিক! উইলিয়ামসন তখনো ক্রিজে এসেই পৌছাননি। কিন্তু ক্রিকেটীয় আইনে এটা রান আউট নয়! নিশ্চিত রান আউট মিস! ভুলের দায়ের পুরোটাই উইকেটকিপার মুশফিকের।

উইলিয়ামসনের রান তখন ৮। নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক সেই ম্যাচে শেষপর্যন্ত আউট হলেন ৪০ রানে। তার দল তখন বেশ সুসংহত অবস্থায়।

ম্যাচ শেষে অধিনায়ক মাশরাফি হারের জন্য মুশফিককে দায়ি করেননি। জানান-এমন কিছু তো খেলারই অংশ!

ফিনিসার বোলার কই?

ওভালে শেষ ৬ ওভারে ম্যাচ জিততে নিউজিল্যান্ডের চাই ২৫ রান। উইকেট বাকি মাত্র তিনটি। লেজের সারির এই ব্যাটসম্যানরা তখন কাঁপাকাপি করছে। কিন্তু সেই সুযোগটা নিতে পারলো না বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের লেজের সারির ব্যাটসম্যানদের বুকে আরো কাঁপন ধরিয়ে দিতে পারতো তেজি কোনো বোলার। কিন্তু এমন পরিস্থিতি প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের পেটে প্রজাপতির নাঁচন ধরানোর মতো জোরে কোনো বোলার কই বাংলাদেশ দলে?

দুই পাশ থেকে ফাস্ট বোলার দাড় করিয়ে এমন পরিস্থিতিতে ইয়র্কারে স্ট্যাম্প ভেঙ্গে চুরে একাকার করে দেয়ার মতো ম্যাচ ফিনিসার বোলারই যে নেই আমাদের!

রুবেল হোসেনের নাম বলছেন? এই ম্যাচে তো রুবেল হোসেন একাদশেই ছিলেন না!

আপনার মতামত লিখুন :

শ্রীলঙ্কায় গরম, তাই জাতীয় দলে শফিউল

শ্রীলঙ্কায় গরম, তাই জাতীয় দলে শফিউল
শ্রীলঙ্কা সফরে জাতীয় দলে শফিউল ইসলাম

হঠাৎ করেই জাতীয় দলে ডাক পেয়ে গেলেন শফিউল ইসলাম। আনুষ্ঠানিকভাবে সফর শুরু হওয়ার পর তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের দলে অন্তর্ভুক্ত হলেন এই পেসার। সবকিছু ঠিক থাকলে বুধবার কলম্বোতে টাইগার শিবিরে যোগ দেবেন তিনি।

কেউ ইনজুরিতে পড়েনি, তারপরও হঠাৎ কেন দলে শফিউল? এমন প্রশ্নের মুখে মঙ্গলবার গণমাধ্যমে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু জানালেন, ‘দেখুন, শ্রীলঙ্কা থেকে টিম ম্যানেজমেন্ট আরও একজন পেসার চেয়েছে। ওরা জানাল-সেখানে নাকি বেশ গরম। হাতে বিকল্প বোলার রাখতে চাইছে। দল তো ১৪ জনের ছিল। শফিউল যোগ দিলে ১৫ জনে দাঁড়াবে।’

২৯ বছর বয়সী এই পেসার ২০১৬ সালে খেলেন তার সবশেষ ওয়ানডে। ৫৬ ওয়ানডে খেলা শফিউল ২০১৭ সালের পর থেকেই আছেন জাতীয় দলের বাইরে।

ঘরোয়া ক্রিকেটে ভাল খেলে অবশ্য আলোচনাতেই ছিলেন তিনি। গত মৌসুমে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে নেন ১৯ উইকেট। এছাড়া আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে ৫৯ রানে পেয়েছেন ২ উইকেট।

শুক্রবার প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে শুরু হবে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটি। পরের দুটি ওয়ানডে ২৮ ও ৩১ জুলাই।

ওয়ানডের বাংলাদেশ দল-
তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), মাহমুদউল্লাহ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ মিঠুন, তাসকিন আহমেদ, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, সাব্বির রহমান, সৌম্য সরকার, ফরহাদ রেজা, মোসাদ্দেক হোসেন, তাইজুল ইসলাম, এনামুল হক, শফিউল ইসলাম।

ওয়ানডে ছাড়লেও টি-টুয়েন্টিতে থাকছেন মালিঙ্গা

ওয়ানডে ছাড়লেও টি-টুয়েন্টিতে থাকছেন মালিঙ্গা
ভক্তদের হতাশই করলেন লাসিথ মালিঙ্গা

অনেক দিন ধরেই লাসিথ মালিঙ্গার অবসর নিয়ে নানা গুঞ্জন উড়ে বেড়িয়েছে। শ্রীলঙ্কার নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান আসান্থা ডি মেলের পর তার অবসরের খবরটা দিয়ে ভক্তদের হতাশ করেছেন লঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে। তবে এবার খবরটা নিশ্চিত করলেন মালিঙ্গা নিজেই। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে খেলেই একদিনের ক্রিকেটকে বিদায় বলে দিচ্ছেন শ্রীলঙ্কার এ তারকা পেসার। তবে খেলে যাবেন টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট।

২৬ জুলাই শুক্রবার কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টাইগারদের বিপক্ষে খেলেই ৫০ ওভারের ক্রিকেট থেকে অবসরে চলে যাচ্ছেন মালিঙ্গা। তাই ভক্ত-সমর্থকদের গ্যালারিতে বসে নিজের বিদায়ী ম্যাচ উপভোগের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন লঙ্কান এ তারকা ক্রিকেটার, ‘শুক্রবার শেষবারের মতো আমাকে ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে দেখবেন আপনারা। যদি পারেন, দয়া করে ম্যাচটি দেখতে আসবেন।’

স্ত্রী তানিয়া পেরেরার ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তা পোস্ট করে সমর্থকদের মালিঙ্গা জানান, যে অফিসিয়াল ও খেলোয়াড়রা তাকে দল থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন তাদের প্রতি তার কোনো অভিযোগ নেই।

৩৫ বছরের এ বোলার জানান, ‘নির্বাচকরা তাকে সাইডলাইনে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন দুই বছর আগে। কিন্তু সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপের মাধ্যমে জাতীয় দলে নিজের মূল্যটা প্রমাণ করতে পেরেছি।’

এবারের ওয়ানডে বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি ছিলেন মালিঙ্গা। সাত ইনিংসে নেন ১৩ উইকেট।

বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে সামনে রেখে মঙ্গলবার অনুশীলনের ফাঁকে মালিঙ্গা জানান, একদিনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেও খেলে যাবেন টি-টুয়েন্টি। তার দৃষ্টি এখন ২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে।

মালিঙ্গা বলেন, ‘প্রত্যাশা করি, আগামী টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে যেতে পারব।’ টুর্নামেন্টের মূল আসরে খেলার আগে বাংলাদেশের মতো লঙ্কানদেরও পার হতে হবে বাছাই পর্বের বৈতরণী।

গুঞ্জন আছে অবসরের পর অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমাবেন মালিঙ্গা। নাগরিকত্বও পেয়ে গেছেন। নতুন ঠিকানাতেই গড়বেন কোচিং ক্যারিয়ার।

২১৯ ইনিংসে ৩৩৫ উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কার তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক ২০১১ সালে টেস্ট থেকে অবসর নেওয়া মালিঙ্গা। তার আগে আছেন কেবল মুত্তিয়া মুরালিধরন (৫২৩) চামিন্দা ভাস (৩৯৯)।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে তামিম ইকবালের নেতৃত্বে এখন শ্রীলঙ্কা সফর করছে বাংলাদেশ। ২৬ জুলাই মাঠে গড়াচ্ছে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। একই ভেন্যুতে পরের দুটি ম্যাচ হবে ২৮ ও ৩১ জুলাই। 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র