Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

মাথায় আঘাত পেলে নামানো যাবে বদলি ক্রিকেটার

মাথায় আঘাত পেলে নামানো যাবে বদলি ক্রিকেটার
সত্য শেষ বিশ্বকাপেই মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন হাশিম আমলা
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

অবশেষে সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। এখন থেকে ম্যাচে মাথায় আঘাত পাওয়া ক্রিকেটারের বদলি হিসেবে আরেকজনকে মাঠে নামানো যাবে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সব ফরম্যাট ও প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের জন্য এই নিয়ম করেছে বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা।

একইসঙ্গে স্লো ওভাররেটের নিয়ম পাল্টানো হয়েছে। স্লো ওভার রেটে এখন থেকে দলের অধিনায়ক নিষিদ্ধ হবেন না। ধারাবাহিকভাবে মারাত্মক স্লো ওভার রেটের দায় নিতে হবে দলের সব ক্রিকেটারকে। অধিনায়ক ও তার সতীর্থদের একই অঙ্কের জরিমানা হবে।

বৃহস্পতিবার রাতে লন্ডনে আইসিসির চলতি বার্ষিক সম্মেলনে এসব সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্তাব্যাক্তিরা।

অবশ্য গত কয়েক বছর ধরেই নিয়মনটি পাল্টানোর কথা ভাবছিলেন তারা। কারণ মাথায় আঘাত পেলে এরপর হাসপাতাল ঘুরে এসে সেই ক্রিকেটারটির জন্য মাঠের খেলায় ফেরা সহজ নয়। এ অবস্থায় ঘরোয়া ক্রিকেটে পরীক্ষামূলকভাবে নিয়মটি চালু করা করা হয়। এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও দেখা মিলবে এই নিয়মের।

আইসিসির এই নতুন নিয়ম সবার আগে চালু হবে অ্যাশেজে। ১ আগস্ট থেকে শুরু হবে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার এই ঐতিহ্যবাহী লড়াই। তার আগে আইসিসি জানাল- ‘মাঠের বদলি খেলোয়াড়কে অভিন্ন হতে হবে। মানে ব্যাটসম্যানের বিকল্প ব্যাটসম্যান। আবার বোলার আহত হলে তার বদলে আরেকজন বোলারকেই মাঠে নামাতে হবে। আর এজন্য ম্যাচ রেফারির অনুমোদন নিতে হবে।’

২০১৪ সালের নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট ওপেনার ফিলিপ হিউজ মাথায় চোট পেয়ে চলে গিয়েছিলেন না ফেরার দেশে। তারপরই সবাই নড়েচড়ে বসেন। হেলমেটেও নিয়ে আসা হয় পরিবর্তন। এজন্য ২০১৬-১৭ মৌসুমে ঘরোয়া ক্রিকেটে মাথায় আঘাত পাওয়া খেলোয়াড়ের বদলি নামানোর নিয়ম প্রবর্তন করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।

মাথায় আঘাত ক্রিকেটে নতুন কিছু নয়, সদ্য শেষ বিশ্বকাপেও হাশিম আমলা ও উসমান খাজার মাথার চোট নিয়ে ছেড়েছিলেন মাঠ। বিকল্প ক্রিকেটারের মাঠে নামার সুযোগ ছিল না বলে তাদের দল ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

আঘাতের ধকল কাটিয়ে মাঠে ফিরছেন স্মিথ

আঘাতের ধকল কাটিয়ে মাঠে ফিরছেন স্মিথ
নেটে ব্যাট হাতে নিজেকে ঝালিয়ে নিচ্ছেন স্টিভেন স্মিথ, ছবি: সংগৃহীত

মাঠের লড়াইয়ে ফিরতে যাচ্ছেন স্টিভেন স্মিথ। তবে প্রতিযোগিতামূলক কোনো ম্যাচে নয়। চলতি অ্যাশেজ সিরিজের অংশ হিসেবে ডার্বিশায়ারের বিপক্ষে একটি ট্যুর ম্যাচ খেলবেন বিশ্বের অন্যতম সেরা এ ব্যাটসম্যান।

ঘাড়ে বলের আঘাতের ধকল ইতোমধ্যে কাটিয়ে উঠেছেন স্টিভেন স্মিথ। এখন শতভাগ ফিট তিনি। পুরোপুরি সুস্থ হয়েই অস্ট্রেলিয়ার তারকা এ ব্যাটসম্যান রোববার নেমে পড়েছেন ব্যাটিং অনুশীলনে। সেই দুর্ঘটনার পর এই প্রথম ব্যাট হাতে বোলারদের মোকাবেলা করলেন তিনি।

ডার্বিতে তিন দিনের এ প্রস্তুতি ম্যাচ শুরু হচ্ছে বৃহস্পতিবার। ম্যাচটি খেলেই ওল্ড ট্রাফোর্ডে হতে যাওয়া চতুর্থ টেস্টে খেলার পথ সুগম করতে চান স্মিথ। ম্যানচেস্টারে টেস্ট ম্যাচটি মাঠে গড়াবে ৪ সেপ্টেম্বর।

ড্র হওয়া দ্বিতীয় ও লর্ডস টেস্টে ইংলিশ পেসার জোফরা আর্চারের ঘন্টায় ৯২ মাইল বেগে ছুড়া বাউন্সারের আঘাতে মাঠে লুটিয়ে পড়ে ছিলেন স্মিথ। রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছেড়ে ফের ব্যাট হাতে নেমে সবাইকে অবাক করে দেন। কিন্তু পরে আঘাতজনিত জটিলতা দেখা দেওয়ায় টেস্টের পঞ্চম দিন আর মাঠেই নামেননি। তার বদলে খেলেন মারনাস লাবুশেন। ছিটকে যান অ্যাশেজের চলমান তৃতীয় ও হেডিংলি টেস্ট থেকে।

১২ মাসের বল টেম্পারিং নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মাঠে ফিরেই দারুণ পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন স্মিথ। এজবাস্টনে প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসেই পান সেঞ্চুরি (১৪৪ ও ১৪২)।সঙ্গে লর্ডসে সংগ্রহ করেন ৯২ রান।

 

শ্রীলঙ্কার জালে ৭ গোল বাংলাদেশের

শ্রীলঙ্কার জালে ৭ গোল বাংলাদেশের
আরেকটি জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৫ দল

বয়সভিত্তিক ফুটবলে দাপটের সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। স্বপ্নের ফুটবল খেলছে কিশোররা। তার পথ ধরে এবার উড়িয়ে দিয়েছে শ্রীলঙ্কাকে। দ্বীপ দেশটির বিপক্ষে তুলে নিয়েছে দুর্দান্ত এক জয়।

ছেলেদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ পেয়েছে টানা দ্বিতীয় জয়। কলকাতার কল্যাণী স্টেডিয়ামে রোববার বাংলাদেশের কিশোররা ৭-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে শ্রীলঙ্কাকে। আল আমিন সরকার করেছেন পাঁচ গোল!

ভারতে চলমান এই টুর্নামেন্টে শুরু থেকে শেষ অব্দি অপ্রতিরোধ্য গতিতেই খেলে গেছে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। তবে প্রথম গোলটি পেতে অপেক্ষা করতে হয়েছে ৩২তম মিনিট পর্যন্ত। গোল উৎসবের শুরুটা করেন আল আমিন সরকার।

তারপর ৪২তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন দলের অধিনায়ক রাকিবুল ইসলাম। বিরতির আগেই আরেকটি গোল পেয়ে যায় দল। এবার ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় গোলটি তুলে নেন আল আমিন। দ্বিতীয়ার্ধে দলের পক্ষে চার নম্বর গোলটি করেন আল মিরাদ।

কিন্তু এরপরই স্রোতের বিপরীতে একটি গোল হজম করে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার গোলদাতা ইনসান মোহাম্মদ মিহরান। কিন্তু ৫৯তম মিনিটে ঠিকই আরও এগিয়ে যায় দল। এবার  পেনাল্টি থেকে গোল করে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন আল আমিন। পরে আরেকটি গোল করেন তিনি। ৬৭তম মিনিটে নিশানা খুঁজে নেন ফরোয়ার্ড রাব্বী হোসেন। ৭০তম মিনিটে শেষ গোলটি করেন আল আমিন সরকার।

এর আগে টুর্নামেন্টে ভুটানকে ৫-২ গোলে উড়িয়ে শিরোপা ধরে রাখার মিশন শুরু করে বাংলাদেশের কিশোর ফুটবলাররা। বাংলাদেশ তৃতীয় ম্যাচটি খেলবে ২৭ আগস্ট, প্রতিপক্ষ নেপাল।

দক্ষিণ এশিয়ার ৫টি দেশ খেলছে সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপে। লিগ লড়াই শেষে শীর্ষ দুই দল খেলবে ফাইনালে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র