নিউজিল্যান্ডের বর্ষসেরা হচ্ছেন বেন স্টোকস!

স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
এবার জন্মভূমি থেকেও পুরস্কারের হাতছানি স্টোকসের

এবার জন্মভূমি থেকেও পুরস্কারের হাতছানি স্টোকসের

  • Font increase
  • Font Decrease

ইংল্যান্ডের প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপ ট্রফি জয়ের মিশনে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন বেন স্টোকস। গত রোববারের অকল্পনীয় ও অভাবনীয় ফাইনালে ম্যাচসেরার পুরস্কারও জেতেন ২৮ বছরের এ মেগাস্টার। অসাধারণ সেই নৈপুণ্যের জন্য আরো পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন এ তারকা অলরাউন্ডার। খবর রটেছে, খুব শিগগিরই তিনি পাচ্ছেন নাইটহুড পদক। মানে বেন স্টোকস থেকে বনে যাচ্ছেন স্যার বেন স্টোকস। এতো গেল তার দেশের খবর।

দেশের বাইরে থেকেও একটি পুরস্কার পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বেন স্টোকসের জন্য। ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ে অবিশ্বাস্য পারফরম্যান্সের জন্য বর্ষসেরা পুরস্কারের মনোনয়ন পেয়েছেন এ তারকা ইংলিশ ক্রিকেটার। তা কোন দেশ থেকে পেলেন তিনি মনোনয়ন? উত্তরটা জানলে আপনিও অবাক হবেন! ভাবছেন কেন?

লর্ডসের শ্বাসরুদ্ধকর মহানাটকীয় ফাইনালে যাদের হৃদয় আর স্বপ্ন ভেঙে বিশ্ব শিরোপা জিতেছে ইংল্যান্ড। সেই নিউজিল্যান্ড থেকে পুরস্কারের মনোনয়ন পেয়েছেন বেন স্টোকস। মানে বর্ষসেরা নিউজিল্যান্ডার অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনিত হয়েছেন তিনি। সন্দেহ নেই খবরটা চমকে দেবে খোদ স্টোকসকেই।

ইংল্যান্ডের হয়ে ক্রিকেট খেললেও স্টোকসের জন্মভূমি কিন্তু নিউজিল্যান্ডই। ১২ বছর বয়সে ক্রাইস্টচার্চ থেকে ইংল্যান্ডে পাড়ি জমান তিনি। যে কারণেই পুরস্কারের জন্য মনোনিত হয়েছেন স্টোকস।

তার মানে, অনেক কিউই জনগণ এখনো তাকে নিজেদের ছেলে বলেই মনে করেন। অ্যাওয়ার্ডের প্রধান বিচারক ক্যামেরন বেনেট জানালেন তেমনটাই, ‘স্টোকস হয়তো ব্ল্যাক ক্যাপস শিবিরের হয়ে খেলছেন না। কিন্তু তার জন্ম ক্রাইস্টচার্চে। তার মা-বাবা এখনো এখানেই বসবাস করেন। ব্যাপারটা পরিষ্কার মাওরি সম্প্রদায়ের অনেক কিউইরা এখনো তাকে নিজেদের সন্তান বলেই মনে করেন।’

বেন স্টোকসের সঙ্গে এ পুরস্কারের জন্য মনোনিত হয়েছেন কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনও। এটা প্রমাণ করে, বিশ্বকাপের সেরা এ খেলোয়াড়কে হারিয়ে পুরস্কার জেতাটা বেশ কঠিনই হবে স্টোকসের জন্য।

জাতির কল্যাণে অবদান রাখা ‘অনুপ্রেরণাদায়ক কিউইদের’ মনোনয়ন দেন নিউজিল্যান্ডের জনগণ। যাদের জন্য দেশ গর্ব করতে পারে।

২০১০ সালে অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক জেফ্রে জন হোপের হাত ধরে শুরু এ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া। যা ১১ বছরে পা দিল এবার। এর আগে পুরস্কারটি জেতেন সাবেক নিউজিল্যান্ড রাগবি ইউনিয়ন অধিনায়ক রিচি ম্যাককো, সিনেমা নির্মাতা তাইকা ওয়াইতিতি ও মানসিক স্বাস্থ্য ক্যাম্পেইনার মাইক কিং।

মনোনয়ন পর্ব শেষ হবে সেপ্টেম্বরে। ডিসেম্বরে বিচারক প্যানেল ১০ জনের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করবেন। অকল্যান্ডে জমকালো অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিজয়ীর হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে ফেব্রুয়ারিতে।

আপনার মতামত লিখুন :