সাকিবের সঙ্গে বিরোধ! মাহমুদউল্লাহ বললেন-আমরা এখনো বন্ধু!

স্পোর্টস এডিটর, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
সাকিব ইস্যুতে মুখ খুললেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ -ফাইল ছবি

সাকিব ইস্যুতে মুখ খুললেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ -ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘটনাটা বিশ্বকাপের সময়কার।

কার্ডিফে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটিং মোটেও পছন্দ করার মতো কিছু ছিলো না। ৩০ ওভারে ব্যাট করতে নেমে মাহমুদউল্লাহ সেই ম্যাচে করেছিলেন ৪১ বলে ২৮ রান। ম্যাচের ৪৫  নম্বর ওভারের শেষ বলে আউট হন। জয়ের জন্য বিশাল রান তাড়া করার জন্য সেসময় একটু দ্রুতগতিতে ব্যাট চালানোর প্রয়োজন ছিলো। কিন্তু মাহমুদউল্লাহর শামুক গতির ব্যাটিং, তাও আবার ইনিংসের একেবারে শেষের দিকে এসে-বিস্ময় ছড়ানোর মতোই তথ্য!

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১০৬ রানে হারের সেই ম্যাচে মাহমুদউল্লাহর ধীর গতির ব্যাটিংয়ের তীব্র সমালোচনা করেন সহ-অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। প্রকাশ্যে নয়। টিম মিটিংয়ে। পরের ম্যাচের একাদশ গঠন নিয়ে সহ-অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের মতামত চাওয়া হলে তিনি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে বাদ দিতে বলেন।

অবশ্য সাকিবের সেই মতামত কানে নেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। আর তাই দল নির্বাচনে তার মতামত গুরুত্ব না পাওয়ায় সাকিবও জানিয়ে দেন- দল নির্বাচন পরিকল্পনায় পরের ম্যাচগুলোতে যেন তাকে না রাখা হয়।

সাকিবের অভিযোগ-অভিমান সবকিছুই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সেই ৪১ বলে ২৮ রানের স্লো ব্যাটিং নিয়ে। 

টিম বৈঠকে সাকিবের এই অভিমানী সিদ্ধান্তের কথা মিডিয়ায়ও জানা জানি হয়ে যায়। যদিও বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট বারবারই অস্বীকার করে আসছে সাকিব-মাহমুদউল্লাহর মধ্যে এমন কিছুই ঘটেনি। তবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও সেই অভিযোগ সরাসরি অস্বীকার করলেন, এমন কিছু নয়। বললেন-‘আসলে বিষয়টা যেভাবে আসা উচিত ছিলো সেভাবে আসেনি। ভিন্নভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।’

রোববার, ১৮ আগস্ট মাহমুদউল্লাহ ফিটনেস অনুশীলনে একাই এসেছিলেন। সেখানেই সাকিবের সঙ্গে তার সাম্প্রতিক বিরোধের প্রসঙ্গ উঠতে মাহমুদউল্লাহ যা বললেন তার পুরোটাই এমন-‘আমার মনে হয় ঐ ধরনের নিউজ নিয়ে কথাবার্তা না বলাই ভালো। আমি এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে চাইছি না। শুধু একটা জিনিষ বলতে চাই, কিছু কিছু জিনিষ যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, সম্ভবত সেভাবে কিছু হয়নি বা ঘটেনি। ওসব ব্যাপারের উপস্থাপনটা হয়তো ভিন্নভাবে হতে পারতো। আমার মনে হয় না কোনো টিমমেটের সঙ্গে আমার কোনো গন্ডগোল বা কিছু হয়েছে। ও (সাকিব) এখনো আমার খুব ভালো বন্ধু। ড্রেসিংরুমে আপনারা চাইলে আসতে পারেন। আমরা কিভাবে কথা বলি। একজন একেক জনের সঙ্গে কিভাবে মজা করি। ভালো ভাবে সময় কাটাই সেটা দেখার জন্য আপনাদের (সাংবাদিকরা) সব সময় স্বাগত জানাই। ছোট হোক বড় হোক আমরা সবাই খুব ভালোভাবে থাকি। সবার সঙ্গে যেন ভালোভাবে থাকতে পারি সেজন্য আমি আমার দিক থেকে শতভাগ চেষ্টা করে যাচ্ছি। এবং দলের জন্য যেন ভালো খেলতে পারি।’

আপনার মতামত লিখুন :