খুলনায় মুক্তিযুদ্ধ ও গণহত্যার নিদর্শন ভাস্কর্য হস্তান্তর

ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
খুলনায় মুক্তিযুদ্ধ ও গণহত্যার নিদর্শন ভাস্কর্য হস্তান্তর। ছবি: বার্তা২৪.কম

খুলনায় মুক্তিযুদ্ধ ও গণহত্যার নিদর্শন ভাস্কর্য হস্তান্তর। ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনা: খুলনায় অবস্থিত বাংলাদেশের একমাত্র গণহত্যা জাদুঘরের ‘১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর’ জন্য জননী ও শহীদ সন্তান শিরোনামে মিশ্র ধাতুর তৈরি একটি ভাস্কর্য নির্মাণ করা হয়েছে। জাদুঘরের জন্য ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের অধ্যাপক শিল্পী রোকেয়া সুলতানা। ভাস্কর্য নির্মাণের অর্থ দিয়েছেন ‘হার স্টোরি ফাউন্ডেশনের’ চেয়ারম্যান জেরিন মাহমুদ হোসেন।

শনিবার (১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ভাস্কর্যটি শিল্পী রোকেয়া সুলতানা জাদুঘর ট্রাস্টের সভাপতি বঙ্গবন্ধু অধ্যাপক মুনতাসীর মামুনের কাছে হস্তান্তর করেন।

হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- জাদুঘর ট্রাস্টের সদস্য প্রখ্যাত কবি তারিক সুজাত, অনুদান প্রদানকারী জেরিন মাহমুদ হোসেনসহ আরও অনেকে। স্বাগত বক্তব্য দেন জাদুঘর ট্রাস্টের সম্পাদক ডা. শেখ বাহারুল আলম।

ড. মুনতাসীর মামুন বলেন, ‘২০১৪ সালে এই জাদুঘরটি প্রতিষ্ঠিত হয়ে মাত্র চার বছরে এই পর্যায়ে এসেছে। আমাদের সংগ্রহ এবং দর্শক বাড়ছে। দর্শকের আগ্রহের জায়গা তৈরি হচ্ছে। সেই আগ্রহের কারণে শিল্পী রোকেয়া সুলতানা জাদুঘরের জন্য এই ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেছেন। জেরিন মাহমুদ হোসেন সেখানে অর্থ সাহায্য প্রদান করে জাদুঘরের সংগ্রহ বৃদ্ধিতে সহায়তা করছেন। আমি সকলের প্রতি জাদুঘরের সংগ্রহ বৃদ্ধির জন্য অবদান রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।’

তিনি আরও জানান, ৭১ এর খুনিরা কীভাবে হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল সেগুলি সব সময় মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছে। এই জাদুঘর সেটি মনে করিয়ে দিচ্ছে। এই জাদুঘর নতুন একটি সত্য তুলে ধরে যে, ইতিহাস বিকৃতি ও খুনের রাজনীতি কী কুফল বয়ে আনে।

হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে ভাস্কর্যটি উন্মোচন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের অধ্যাপক শিল্পী রোকেয়া সুলতানা ও জাদুঘর ট্রাস্টের সভাপতি অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন।

আপনার মতামত লিখুন :