প্রকৌশলীর বদলি, কালীগঞ্জে স্বস্তি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
পারভেজ নেওয়াজ খান। ছবি: সংগৃহীত

পারভেজ নেওয়াজ খান। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

একই কর্মস্থলে তিনি কাটিয়েছেন প্রায় সাত বছর। এই দীর্ঘ সময়ে তার বিরুদ্ধে উঠেছে নানা অনিয়ম, দুর্নীতি থেকে শুরু করে বিভিন্ন অভিযোগ। সহকর্মীরাও ছিলেন তার ওপর নাখোশ। অবশেষে কালীগঞ্জের সেই আলোচিত-সমালোচিত উপজেলা প্রকৌশলী পারভেজ নেওয়াজ খানকে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে।

তার এ বদলিতে ঠিকাদার থেকে শুরু করে অফিসের সহকর্মী, এমনকি উপজেলা প্রশাসনের অনেক কর্মকর্তাও স্বস্তি প্রকাশ করেছেন। তাদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও অনেক খুশি হয়েছে। কারণ তার আমলে কাজ শুরু হয়ে সদ্য চালু হওয়া গঙ্গাচড়া শেখ হাসিনা সেতুসহ সংযোগ সড়ক নির্মাণে দফায় দফায় উঠেছিল অনিয়মের অভিযোগ। এর বাইরে ঠিকাদারদের সঙ্গে আঁতাত করে বিভিন্ন সময়ে অনিয়ম করেছেন। মোটা অংকের ঘুষ ছাড়া বিলে সই করতেন না বলেও অভিযোগ রয়েছে। এই অবস্থায় সোমবার (১ অক্টোবর) রাতে অনেকটা নীরবেই তিনি চলে গেছেন বলে জানা গেছে।

এদিকে তার বদলি উপলক্ষে আয়োজিত বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেননি ঠিকাদাররা। আমন্ত্রণ পেয়ে সেখানে আসেননি প্রশাসনের অনেক কর্মকর্তা। ফলে নিজের অফিসেই দায়সারা ভাবে সহকর্মী ও হাতে গোনা কয়েকজনের উপস্থিতিতেই করতে হয়েছে অনুষ্ঠান। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে এসব তথ্য।

স্বস্তি প্রকাশ করে কালীগঞ্জের একাধিক ঠিকাদার অভিযোগ করে জানান, পারভেজ নেওয়াজ খান একজন দুর্নীতিবাজ প্রকৌশলী। তাকে ঘুষ না দিলে রাস্তা, কালভার্টসহ সরকারের উন্নয়নমূলক কাজে কৌশলে বাধা দিতেন। আবার মোটা অংকের ঘুষ ছাড়া বিলেও সই করতেন না। ফলে তার বদলির দাবি ছিল দীর্ঘদিনের।

কালীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলীর দপ্তরে কর্মরত অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, ‘তিনি কখনোই আমাদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করতেন না। তিনি টাকা ছাড়া কিছুই বুঝতেন না।’

জানা গেছে, কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে যোগদানের পর পরই তাকে দেয়া হয় ভারপ্রাপ্ত হিসেবে উপজেলা প্রকৌশলীর দায়িত্ব। কিছুদিনের মধ্যেই তিস্তা নদীর উপর সদ্য চালু হওয়া ৮৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের গঙ্গাচড়া শেখ হাসিনা সেতু-সংযোগ সড়ক নির্মাণের দায়িত্ব দেয়া হয় তাকে। এর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় প্রায় ১২৪ কোটি টাকা। সেতু নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার পর থেকেই উঠতে থাকে নানা অনিয়মের অভিযোগ। স্থাপনের আগেই ভেঙে পড়ে মূল সেতুর একাধিক গার্ডার। দফায় দফায় সংযোগ সড়ক নির্মাণ হলেও প্রায় প্রতিবারেই উঠেছে নিম্নমানের কাজের অভিযোগ।

সর্বশেষ গত ১৬ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেতুটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের দুদিন আগে সংযোগ সড়কের প্রায় ৪০ ফুটসহ একটি ব্রিজের একাংশ ধসের ঘটনা ঘটলে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয় গণমাধ্যমে। এর আগে মূল সেতুর দক্ষিণ প্রান্তের ৫০০ মিটার অ্যাপ্রোচ সড়ক নির্মাণে তিনি নিজেই ‘ঠিকাদার’ ছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

সার্বিক বিষয়ে মুঠোফোনে কথা হলে কালীগঞ্জের বিদায়ী উপজেলা প্রকৌশলী পারভেজ নেওয়াজ খান বলেন, ‘সব অভিযোগ মিথ্যা। প্রায় সাত বছর সেখানে ছিলাম। তাই স্বাভাবিক নিয়মেই বদলি হয়েছি।’

আপনার মতামত লিখুন :