পাখিগুলো উড়ে গেল আপন ঠিকানায়

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
পাখিগুলো উড়ে গেল আপন ঠিকানায়। ছবি: বার্তা২৪.কম

পাখিগুলো উড়ে গেল আপন ঠিকানায়। ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পাখির নাম ‘টিয়া পাখি’। লটকনা ও চন্দনা প্রজাতির ওই টিয়া পাখি বিক্রির উদ্দেশে এক ব্যক্তি ছুটছেন সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারের রাস্তায় রাস্তায়। একটি পাখি বিক্রিও করেছেন। অবশ্য বাকি পাখিগুলো মুক্ত করে দিয়েছেন পরিবেশকর্মী ও বন কর্মকর্তারা।

সিলেট নগরীর জিন্দাবাজার-বন্দরবাজার ও পাড়া মহল্লায় প্রায়ই দেখা মিলে পাখি বিক্রেতাদের। বুধবার (৯ অক্টোবর) বিকেলে জিন্দাবাজার এলাকায় একজন বিক্রেতা বিক্রির উদ্দেশে ৪টি দেশীয় টিয়া পাখি নিয়ে ঘুরছেন। পেছন থেকে তাকে ফলো করছেন একজন পরিবেশকর্মী।

অপরদিকে পাখি বিক্রির এ খবর পান বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম। তিনিও ওই ঘটনাস্থলে চলে আসেন। তারা দুজন মিলে পাখি বিক্রেতাকে আটক করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Oct/10/1539180180524.jpg

এ সময় উপস্থিত জনতার মধ্যে বয়স্ক দু'একজন এবারের মতো ক্ষমা করে দিতে বলেন। পরে ক্ষমা করে দেয়া হয় ওই পাখি বিক্রেতাকে। এরপর পাখিগুলোকে নিয়ে যাওয়া হয় টিলাগড় ইকোপার্কে। মুক্ত করে দেয়ার পর তারা ছুটে যায় আপন ঠিকানায়। পাখি চারটির মধ্যে ২টি লটকন টিয়া ও ২টি চন্দনা টিয়া ছিল।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম জানান, পাখি বিক্রি আইনের দৃষ্টিতে নিষিদ্ধ। দেশীয় পাখি আমাদের পরিবেশ রক্ষা করার জন্য জরুরি। তাই এ বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। যারা পাখি শিকারের সঙ্গে জড়িত তাদের অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে।

বন বিভাগের পক্ষে টিলাগড় বন বিট কর্মকর্তা চয়নব্রত চৌধুরী জানান, তারা খবর পেলেই ব্যবস্থা নিচ্ছেন। কোথাও পাখি বিক্রি করতে দেখলে বন বিভাগকে খবর দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :