নিম্নচাপে পরিণত হচ্ছে ‘তিতলি’, ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাবনা নেই

ছবি: বার্তা২৪

প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ ভারতের উড়িষ্যা উপকূল অতিক্রম করার পর দুর্বল হয়ে নিম্নচাপে পরিণত হতে শুরু করেছে। এর প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল ও দেশের অভ্যন্তরে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টিপাত হতে পারে। তবে ঘূর্ণিঝড়ের আর কোন সম্ভবনা নেই। ইতোমধ্যেই এটি দুর্বল হয়ে গেছে। ফলে ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি‘র শঙ্কামুক্ত বাংলাদেশ।

আবহাওয়া অধিদফতর থেকে পাওয়া তথ্যমতে, সর্বশেষ পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় তিতলি উত্তর, উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে বৃহস্পতিবার ভোরে গোপালপুরের নিকট দিয়ে ভারতের উড়িষ্যা ও অন্ধ্র প্রদেশের উপকূল অতিক্রম করেছে। পরে উড়িষ্যা উপকূল সংলগ্ন স্থানে প্রবল ঘূর্ণিঝড় হিসেবে অবস্থান করে। আরো কিছু সময় পর উত্তর-উত্তর পশ্চিমের দিকে অগ্রসর হয়। 

এই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে গতকাল সমুদ্রবন্দরগুলোকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছিল। সেটি বৃহস্পতিবার সকালে নামিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে। যেহেতু সাগর উত্তাল আছে এবং উপকূলীয় অঞ্চলে বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্য আছে। সে কারণে সমুদ্র বন্দরগুলো ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। মাঝিদের নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। 

এ বিষয়ে আবহাওয়া অধিদফতরের উপ পরিচালক আয়েশা খাতুন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ আরো উত্তর-উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর হবে। এটি যখন স্থলভাগের উপর দিয়ে অগ্রসর হবে তখন আরও দুর্বল হয়ে যাবে। আরো কিছু সময় গেলে স্থলভাগ দিয়ে উত্তর-উত্তর পূর্ব দিকে উড়িশ্যা অতিক্রম করবে। তারপর ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থান নেবে। এই রাস্তা পাড়ি দিতে গিয়ে ঘুর্ণিঝড়টি ধীরে ধীরে দুর্বল হবে। পশ্চিমবঙ্গের দিকে আসলে ‘তিতলি’ আর ঘূর্ণিঝড় থাকবে না। সেটি গভীর নিম্নচাপ বা নিম্নচাপ আকারে থাকবে।’ 

তিনি জানান, নিম্নচাপের প্রভাবে আমাদের উপকূলীয় অঞ্চল ও দেশের অভ্যন্তরে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টিপাত হবে। কয়েকদিন ধরে দেশের আকাশ মেঘলা ও আংশিক মেঘলা সেটা এই ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র কারণেই হচ্ছে। আমরা অনেক জায়গায় ভারী বর্ষণও রেকর্ড করেছি।

আজ (বৃহস্পতিবার) রাতে ঝূর্ণিঝড়ের সর্বশেষ অবস্থা জানিয়ে আবহাওয়াবিদ একে এম রুহুল কুদ্দুস বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়টি ধীরে ধীরে দুর্বল হচ্ছে। সময়টা একটু বেশি নিচ্ছে। এখনও এটি উড়িষ্যাতেই আছে। রাতে সাইক্লোনিক স্টোন হবে। কাল সকাল ও বিকালে ডিপ্রেশন হবে। এরপর স্বাভাবিক হতে পারে।’

আগামী ২৪ ঘন্টার আবহাওয়া পূর্বাভাসে জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি'র প্রভাবে ঢাকা, চট্টগ্রাম, বরিশাল, খুলনা ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ স্থানেই বৃষ্টিপাত হবে। সেই সাথে উপকূলীয় অঞ্চলে অতি ভারী বর্ষণের সম্ভবনা আছে। রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ জেলায়ও বৃষ্টিপাত হবে।

জাতীয় এর আরও খবর

//election count down